আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > বাবা! ভালোবাসা নিও

বাবা! ভালোবাসা নিও

father-and-child

প্রতিচ্ছবি ডেস্ক:

এতো রক্তের সাথে রক্তের টান স্বার্থের অনেক উর্ধ্বে,

হঠাৎ অজানা ঝড়ে তোমায় হারালাম,

মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ল,

বাবা কতদিন কতদিন দেখিনা তোমায়,

কেউ বলেনা তোমার মত কোথায় খোকা ওরে বুকে আয়

কেউ বলেনা মানিক কোথায় আমার ওরে বুকে আয়……

2-ohay-tv-24810বাবাকে নিয়ে অসাধারণ একটি গান জেমস এর। বাবা কে নিয়ে যুগে যুগে তৈরী হয়েছে নানা ধরণের শিল্প। কেউ এঁকেছেন, কেউ গান গেয়েছেন কেউবা আবার নিজের মন মত করে বাবার অবয়ব ফুটিয়ে তুলেছেন  তার নিজস্ব প্রতিভা দিয়ে। বিশ্বের সকল বাবাকে সম্মান জানাতে ও তাদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করতে বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে ‘বাবা দিবস’।

53560d5a5f2ced890bcb79f69d574491যদিও মা দিবসের মত এত আড়ম্বর করে পালিত হয়না বাবা দিবস, তবুও বাবাদের প্রতি টান সবসময়ই অন্যরকম। জুন মাসের তৃতীয় রোববার পালিত হয় বাবা দিবস। পিতার প্রতি সন্তানের সম্মান, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের জন্য দিনটি বিশেষভাবে উৎসর্গ করা হয়ে থাকে। সন্তানরা তাদের প্রিয় জন্মদাতার জন্য নানা উপহার কিনবে, দেবে। যাদের বাবা বেঁচে নেই, তারা হয়তো আকাশে তাকিয়ে অলক্ষ্যে বাবার স্মৃতি হাতড়াবে। মনে করবে বাবার সাথে কাটানো সুন্দর স্মৃতিগুলো। যদিও সবার অলক্ষেই বাবা থাকেন ছায়া হয়ে পাশে পাশে।

father-son-walkingশিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর যে শব্দগুলো সবার আগে তার মুখ থেকে বেরিয়ে আসে তার অন্যতম হচ্ছে `বাবা`। এ যেন সন্তানের কাছে চিরন্তন আস্থার প্রতীক। কোনো শিশু যখন এই শব্দ উচ্চারণ করতে শেখে তখন বাবার মন পুলকে ভরে যায়। বাবা বলে ডাকতে পারাতে বাবার হাস্যোজ্জ্বল অনুভূতি যেন সেই অবুঝ শিশুর হৃদয়কে মুহূর্তেই আন্দোলিত করে তোলে।

কোন দুঃখ দূর্দশা যেন ছুঁতে পারেনা সন্তানকে। তাই নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে বাবারা আজীবন পরিশ্রম করে যান সন্তানের জন্য। হাজার কষ্ট সয়ে তিলে তিলে যে সন্তানকে বড় করেছেন একজন বাবা, তাকে ঘিরেই এদিন হবে ব্যতিক্রমী উৎসব। তবে বাবা কি শুধুই একটি বিশেষ দিনের জন্য! এরকম বিতর্ক থাকলেও এই বিশেষ দিনটিতে একটি ফুল অথবা একটি কার্ড নিয়ে শুভেচ্ছা জানালে বাবা তাতেই খুশি। বাবার চাহিদা এতটুকুই। সারাজীবনের পরিশ্রম আর ত্যাগের বিনিময়ে যদি সামান্য উপহার জোটে বাবার কপালে মন্দ কি? তার সাথে যোগ করুন ভালবাসি বলে ছোট একটি চিরকুট বা অডিও। বাবার পছন্দের বা প্রয়োজনী জিনিসটি রাখুন উপহারের তালিকায়।

7d880f2ea5110e6c9426fa5f234ab390দিনশেষে হয়তো তার পাওনা কিছুই জোটেনা। অবহেলা অনাদরে স্থান হয় বৃদ্ধাশ্রমে। তারপরেও হাসিমুখে সন্তানের মঙ্গল কামনা করেন বাবা। ‘বিশ্ব বাবা দিবস’ নামে যে যন্ত্রণা হৃদয়ের গভীরে একটি বছর ধরে স্তূপ হয়ে থাকে, জুন মাসের তৃতীয় রোববার সেই দিবসে তা কান্না হয়ে ঝরে পড়ে। বৃদ্ধাশ্রমের বাবারা এ দিবসটিকে বরণ করেন অশ্রু দিয়ে। সন্তানকে ভালোবাসার অশ্রু। এখানকার বাবারা একা- বড়ই একা। তাদের সঙ্গে নেই আদরের কোনো নাতি-নাতনি। কেউ রুম কিংবা বারান্দায় বিলাপ করছেন, আবার কেউ প্রিয় সন্তান ও প্রিয়তমার ছবি বুকে জড়িয়ে আর্তনাদ করছেন।

এক বাবা বললেন, ‘আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি প্রিয় সন্তানদের যেন কখনো বৃদ্ধাশ্রমে থাকতে না হয়’। সন্তানের সুখের জন্য রক্ত পানি করে যে বাবা এতকিছু করলেন, সেই বাবা এখন বৃদ্ধাশ্রমে। খুঁজে ফেরেন সন্তানের মুখ। বাবার হৃদয়ের সবটুকু ভালোবাসা নিংড়ে দিয়ে সাধ আর সাধ্যে প্রতিষ্ঠিত সন্তান আজ অনেক দূরে। তাইতো নচিকেতা গেয়েছেন

christian-fathers-day-gifts12-e1307832300655নিজের হাতে ভাত খেতে পারতো নাকো খোকা

বলতাম আমি না থাকলে কি করবি রে বোকা?

ঠোঁট ফুলিয়ে কাঁদতো খোকা আমার কথা শুনে

খোকা বোধ হয় আর কাঁদে না,নেই বুঝি আর মনে।

ছোট্টবেলায় স্বপ্ন দেখে উঠতো খোকা কেঁদে

দু’হাত দিয়ে বুকের কাছে রেখে দিতাম বেঁধে

দু’হাত আজো খুঁজে,ভুলে যায় যে একদম

আমার ঠিকানা এখন বৃদ্ধাশ্রম!

তবে বাবা দিবসে আমাদের প্রতিপাদ্য হোক অবহেলায় অনাদরে যেন আমার বৃদ্ধ বাবা চোখের পানিতে মৃত্যুর দিন না গুনে। যার যার জায়গা থেকে সাধ্যমত চেষ্টা করি মানুষটাকে ভাল রাখার। বছরের প্রতিটি দিন যেন বাবা দিবসের উপলব্ধি নিয়ে আসে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে