আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > দেশের বিভিন্ন গ্রামে ঈদ উদযাপন

দেশের বিভিন্ন গ্রামে ঈদ উদযাপন

%e0%a6%88%e0%a6%a6

প্রতিচ্ছবি ডেস্ক :

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন উপজেলায় আজ রবিবার পালিত হচ্ছে ঈদ-উল-ফিতর।

চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার ৬০টি গ্রাম, শরীয়তপুরের ৪ উপজেলার ২৯টি গ্রামে, মাদারীপুরের ৪ উপজেলার ৩০ গ্রামে এবং চাঁদপুরের প্রায় ৪০টি গ্রামে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপন চলছে।

মধ্যপ্রাচ্যের সাথে মিল রেখেই দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশসহ ৬০ গ্রামের মানুষ আজ রোববার ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ আদায় করেছেন।চন্দনাইশের জাহাগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবার শরীফের অনুসারীরা সকাল ১০টায় প্রধান ঈদ জামাতে ইমামতি করেন মাওলানা সৈয়দ মোহাম্মদ আলী। এছাড়া সাতকানিয়া আনোয়ারা, লোহাগাড়াসহ বিভিন্ন উপজেলার ৬০টি গ্রামে ঈদ উদযাপন করা হয়।

সুরেশ্বর পীরের অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে শরীয়তপুরে ঈদ পালন করছে। অন্তত ১০ হাজার ভক্ত এ ঈদে অংশগ্রহণ করবে বলে জানা গেছে।

সুরেশ্বর পীরের দরবার সূত্র জানায়, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে প্রায় ১শ বছর ধরে সুরেশ্বর পীরের দরবারের সকল ভক্ত ও মুরিদরা একই নিয়মে ঈদ পালন করে।

সুরেশ্বর পীরের বর্তমান গদিনীশীন মুত্তাওয়ালী সৈয়দ কামাল নুরী বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ আমরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ পালন করি। এবার অন্তত ১০ হাজার মুরিদ আমাদের সঙ্গে রোববার ঈদ পালন করছে।

মাদারীপুরের ৪ উপজেলার ৩০ গ্রামের হযরত সুরেশ্বরী (রাঃ) এর অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল ফিতর উদযাপন করছে।

সুরেশ্বরী (রাঃ) এর মাদারীপুর ও শরিয়তপুর জেলাসহ বাংলাদেশের প্রায় দেড় কোটি ধর্ম প্রাণ মুসলমান আজ ২৫ জুন রোববার ঈদুল-ফিতর উদযাপন করছে বলে জনিয়েছেন শরিয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বর দ্বায়রা শরীফের প্রতিষ্ঠাতা হযরত জানশরীফ শাহ্ নূরে আক্তার হোসাইন।

চাঁদপুরের প্রায় ৪০টি গ্রামে ঈদ উদযাপিত। গেল ৮৮ বছর যাবত এসব গ্রামের অধিকাংশ মুসলমান সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখেই ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো পালন করে আসছেন। এবারও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না।

চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ, মতলব দক্ষিণ ও কচুয়া উপজেলার ৪০টি গ্রামে ৮৮ বছর ধরে এভাবে রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়ে আসছে।

সাদ্রা দরবারের গদিসীন পীর মওলানা আবু জোফার আবদুল হাই বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সময়ের ব্যবধান মাত্র তিন ঘণ্টা। এই তিন ঘণ্টা ব্যবধানের জন্য রোজা ও ঈদ পালনে বাংলাদেশে একদিন-দুইদিন ব্যবধান হতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, আজ রোবাবর সাদ্রা দরবার শরীফের হামিদিয়া দাখিল মাদ্রাসা মাঠে ঈদুল ফিতর নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে