আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > লাইফ-স্টাইল > গাছে সাজানো অন্দরের অন্তর্কথা

গাছে সাজানো অন্দরের অন্তর্কথা

35306প্রতিচ্ছবি ডেস্ক:

নিজের ঘর, নিজের বাড়ী মানুষের সবচেয়ে আপন জায়গা। সারাদিনের ব্যস্ততা সেরে ঘরে ফিরে অবসাদে যখন চোখ বুজে আসে তখন একদন্ড শান্তি নিয়ে আসে সুন্দর সাজানো গোছানো অন্দর।

17904126_1590472370976519_1369854481588232009_nঘরের ইন্টেরিওর যদি সুন্দর সাজানো গোছানো পরিপাটি হয় তাহলে মন ও শরীর দুইই ভাল থাকে। অতিথিদের কাছে আপনি হয়ে ওঠেন আরো ব্যক্তিত্বশালী ও উন্নত রুচির পরিচায়ক। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি  সুন্দর করে উপস্থাপন করা কারুকার্যময় অন্দর আপনার পারিবারিক সুসম্পর্কের ধারক ও বটে। কম দামে ছোটখাট কিছু জিনিস দিয়েই মনোরম করে সাজাতে পারেন আপনার ঘরের বারান্দা, শোবারঘর, বসার ঘর সবকিছু। ইনডোর প্ল্যান্ট বা গাছ যাই বলিনা কেন আপনার ঘরকে করে তুলবে আকর্ষনীয়। গাছগুলো আপনি মন মত করে গুছিয়ে নিতে পারেন আপনার রুচি অনুযায়ী।

একটি সুন্দর ঘরের প্রধান ব্যাপার আপনার ঘর কতটা সবুজ। কারন সবুজ রঙ মানুষের মনের মধ্যে প্রশান্তি এনে দেয়। দেহ ও মনে ক্লান্তি দূর করে সবুজ গাছ। ছোট ছোট কিছু ইনডোর প্লান্ট আপনি অনায়াসেই বারান্দা বা বসার ঘরে রাখতে পারেন। এর থেকে নির্গত অক্সিজেন আপানার ঘরের তাপমাত্রাও রাখবে অনুকূলে। চোখে দেখাও প্রশান্তি ও স্বস্তিদায়ক। কিছু গাছ আছে যা শুধু ঘরের আবহাওয়ায় ভাল থাকে। অন্যান্য গাছ লাগাতে চাইলেও লাগাতে পারেন তবে এক্ষেত্রে আপনাকে একটু কষ্ট করে সপ্তাহে তিন দিন টবগুলো বাইরে রোদে দিতে  হবে।

13308212_10205647180293346_1249504690807290073_o-585x350মাটি ছাড়াও পিতল অথবা রড-আয়রনের টবও ব্যবহার করা যায়। বসার ঘরের কোণে, শোবার ঘরের ড্রেসিং টেবিলের ওপর রাখতে পারেন। তবে এ ধরনের টবের আকার যেন ছোট হয়। নইলে দৃষ্টিনন্দনের পরিবর্তে দৃষ্টিকটু লাগবে। আবার ঘরের আশপাশটা আপনার যদি খালি খালি লাগে তাহলে একটা ভালো অপশন আছে। জানালায় ঝুলন্ত পটে রাখতে পারেন এ ধরনের গাছ, যা নিচের দিকে ঝুলে থাকবে। আর আপনার ঘরে বেশকিছু নির্জীব জিনিসের মাঝে একচিলতে সবুজের ছোঁয়া কিন্তু মন্দ লাগবে না। আর চাইলে নিজের মনের মাধুরী মিশিয়ে রঙ বা ডিজাইন করে নিতেন পারেন টবগুলোতে।

5168-houseplantsঅন্দরের গাছের মধ্যে মানিপ্লান্ট অন্যতম। এছাড়াও আছে পিস লিলি, লাকি ব্যাম্বো, ব্যাম্বো পাম, এবং কিছু থাইল্যান্ড এর গাছ। এসব গাছ দিয়ে খুব সহজেই দৃষ্টিনন্দন করা যায় ঘর। পরিবেশ ও থাকে প্রাণবন্ত।  কিছু কিছু গাছ ঘরের মধ্যে জমে থাকা ভ্যাপসা ভাব, দুর্গন্ধ, আসবাপত্র ও বিষাক্ত বায়বীয় পদার্থ শোষণ করার ক্ষমতা রাখে। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে এ ধরনের গাছগুলোর জুড়ি নেই।

18486276_1628511357172620_572710042438523209_nদীর্ঘদিনের জন্য বাহিরে গেলে সবগুলো গাছকে একসাথে রেখে দিন জানালার রোদের কাছে। নারিকেলের ছোবড়া বিজিরে গাছে গোরায় দিন। অথবা বড় চ্যাপ্টা প্লেটে পানি দিয়ে গাছের নিচে রাখতে পারেন। এতে অনেকদিন ধরে গাছে আর্দ্রতা বজায় থাকবে। ক্যাকটাস গাছগুলোকে রোদে রাখুন বেশী। আর কোনভাবেই যেন গাছের গোড়ায় পানি না জমে সে দিকে খেয়াল রাখুন। গাছের কোন পাতা নষ্ট হয়ে গেলে সে পাতা কেটে ফেলে দিন। নয়তো অন্যান্য পাতা ও সংক্রমিত হবার আশঙ্কা থাকে। গাছের পুষ্টির জন্য ডিম বা সবজি সেদ্ধ করা পানি দিতে পারেন।

বেশী বেশী গাছ লাগান। অন্দরের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতে এর জুড়ি মেলা ভার। গাছ লাগিয়ে সেগুলোর পরিচর্যা করতেও ভুলবেন না। ছোট ঘরে ছোট গাছ আর বড় ঘরে বড় গাছের মাপ মাথায় রেখে অন্দর সাজান বাহারি গাছ ও টবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে