আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > আইএস এর নির্মমতার স্বীকার ইরাকি শিশুরা

আইএস এর নির্মমতার স্বীকার ইরাকি শিশুরা

a325ad71d2fd4f9d8353a490b9c5524f_18প্রতিচ্ছবি ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

জাতিসংঘের মতে আইএস মসুলের বেসামরিক মানুষের পালিয়ে যাওয়া ঠেকাতে তাদের বাচ্চাদের লক্ষ্য করে অত্যাচার করছে। ইউনিসেফ জানিয়েছে, পৃথিবীর সবথেকে নিষ্ঠুর হত্যাকান্ড ঘটাচ্ছে সশস্ত্র একদল বাহিনী। যারা নির্বিচারে মসুলের বাচ্চাদের হত্যা করছে।

জাতিসংঘের শিশু সংস্থা বলেছে, বেশ কয়েকটি মামলা দায়ের করা হয়েছে যারা এভাবে বাচ্চাদের মেরে ফেলছে।

ইরাকের ইউনিসেফ প্রতিনিধি পিটার হকিন্স বলেছেন,  তারা  তাদের বাচ্চাদের যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে। এই যুদ্ধ ভয়ানক ও বিপর্যয়কর। ইরাকে পাঁচ লক্ষ শিশুর সাহায্যের প্রয়োজন।

ইরাকে জুড়ে, শিশুরা ভয়ঙ্কর এবং অবর্ণনীয় সহিংসতার সাক্ষী। তাদেরকে মেরে ,অপহরণ করে, খুন করে, সহিংসতার মাত্রা বাড়িয়ে চলছে আইএস। ইরাকি সৈন্যরা ধীরে ধীরে মোসুলের পুরানো শহর  থেকে আইএস যোদ্ধাদের হটিয়ে দিতে সক্ষম হচ্ছে। কিন্তু আনুমানিক একলক্ষ বেসামরিক নাগরিক – যাদের অর্ধেক শিশু তাদের সুরক্ষার জন্য সেই অনুযায়ী কোন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছেনা।

২০১৪ সালে ইরাকের যুদ্ধের সময় থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ১০হাজার ইরাকি শিশু নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে একহাজার একশো ত্রিশজন। গত ছয় মাসের সহিংসতায় ১৫২জন শিশু নিহত ও ২৫জন আহত হয়েছে। এখনো এই ধারা অব্যাহত আছে।

তারচেয়েও ভয়নক কথা হচ্ছে সেই শিশুদের নিজেদের কাজে ব্যবহার করছে। ইউনিসেফ বলছীক লাখের বেশী শিশু তাদের প্রশিক্ষন নিয়ে আত্বঘাতি হামলায় জড়িয়ে পড়ছে। ১৪বছরের কম বয়েসী বাচ্চাদের বিভিন্ন সশস্ত্র বাহিনীতে জোর করে নিয়োগ করা হচ্ছে।

পিটার হকিনস বলেন,”দেশের ভবিষ্যৎ নিরাপত্তা এবং অর্থনৈতিক শক্তি আজকের দিনে কি ঘটছে তার দ্বারা নির্ধারিত হয়।” ইরাকের সামগ্রিক অবস্থায় ঘর হারা লাখো মানুষ। যুদ্ধ ও সংঘাতের আশংকায় ৪লাখের বেশি লোক উধ্বাস্তু আছেন। তাদের পরিবারের সন্তানেরাই আইএস এর প্রধান টার্গেট বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

সূত্র: আল জাজিরা

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে