আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টেস্টে বাংলাদেশের জয়

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টেস্টে বাংলাদেশের জয়

 

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টেস্টে বাংলাদেশের জয়

প্রতিচ্ছবি স্পোর্টস ডেস্ক:

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের সিলেট টেস্টে হেরে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ২১৮ রানে জিতে সমতায় সিরিজ শেষ করেছে। ৪৪৩ রানের পাহাড় সামনে রেখে ব্যাটিংয়ে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে জিম্বাবুয়ে ২২৪ রানে গুটিয়ে গেলে বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়ে এই জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন মিরাজ।

ঢাকা টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে জিম্বাবুয়ে ২ উইকেটে ৭৬ রানে তুলে। আজ বৃহস্পতিবার ব্যাটিংয়ে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম ও মুস্তাফিজুর রহমানদের বোলিং তোপে পড়ে জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় ইনিংসেও দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করে এক পাশ আগলে রাখলেও নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে মাত্র ২২৪ রানে ৯ উইকেট হারায় সফরকারীরা। কিন্তু ইনজুরির কারণে জিম্বাবুয়ের টেন্ডাই চাতারা মাঠের বাইরে থাকায় কাইল জার্ভিসের উইকেট পড়ার সঙ্গে সঙ্গে উল্লাসে ফেটে পড়ে মাহমুদউল্লাহ বাহিনী।

এর আগে, পঞ্চম দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে ক্রমেই দুঃশ্চিন্তার কারণ হয়ে ওঠা সেন উইলিয়ামস ও ব্র্যান্ডন টেইলরের জুটি ভাঙেন মুস্তাফিজুর রহমান। ৩৩ বলে ১৩ রান করে পঞ্চম দিনের শুরুতেই ফিরলেন উইলিয়ামস। তাকে বোল্ড করে ম্যাচের প্রথম উইকেট নিলেন বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজ। মিরপুর টেস্টে এটাই মুস্তাফিজের প্রথম উইকেট। বাঁহাতি পেসারের অ্যাঙ্গেলে ভেতরে ঢোকা বলের লাইন মিস করে বোল্ড হয়ে যান উইলিয়ামস। সিরিজে এনিয়ে টানা তৃতীয়বার বোল্ড হন জিম্বাবুয়ের এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

এরপর জিম্বাবুয়ের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজাকে থিতু হওয়ার আগেই ফিরিয়ে দেন তাইজুল ইসলাম। ফিরতি ক্যাচ নিয়ে বিদায় করেন তাকে। পরে টেইলরের সঙ্গে পিটার মুরের জুটি বাংলাদেশকে চিন্তায় ফেললে আঘাত হানেন মেহেদী হাসান মিরাজ। পা বাড়িয়ে ডিফেন্স করতে চেয়েছিলেন জিম্বাবুয়ের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ব্যাটের কানায় লেগে ক্যাচ যায় শর্ট লেগে। প্রথম চেষ্টায় ধরতে পারেননি ইমরুল কায়েস। বল তার হাত ছুঁয়ে বুকে লেগে শেষে মুঠোয় আসে। ভাঙে ৬৬ রানের জুটি। এছাড়া নতুন ব্যাটসম্যান রেজিস চাকাভা মেহেদী হাসান মিরাজের বলে দ্রুত একটি সিঙ্গেল নেওয়ার চেষ্টায় রান আউটে কাটা পড়েন। এরপর ডোনাল্ড টিরিপানোকে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে জয়ের আরও কাছে নিয়ে যান মেহেদী হাসান মিরাজ। বাড়তি লাফানো বল টিরিপানোর গ্লাভস ছুঁয়ে শর্ট লেগে লিটন দাসের হাতে জমা পড়ে। রানের খাতা খুলতে পারেননি ৯ বল খেলা টিরিপানো। পরে ব্র্যান্ডন মাভুটাকে বিদায় করে ইনিংসে চার উইকেট শিকার করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। রানের খাতা খুলার আগেই তাইজুল ইসলামের হাতে ধরা পড়ে বিদায় নেন তিনি। পরে শেষ ব্যাটসম্যান কাইল জার্ভিসকে খালিদ আহমেদের তালুবন্দি করিয়ে নিজে ৫ উইকেট শিকাররের পাশাপাশি দলকে জয়ের আনন্দে ভাসান মেহেদী হাসান মিরাজ।

এর আগে, বাংলাদেশের দেওয়া ৪৪৩ রানের টার্গেটে চতুর্থ দিনের শেষ সেশনে ব্যাট করতে নামে জিম্বাবুয়ে। শুরুটা ভালোই করেন দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও ব্রায়ান চারি। তবে জিম্বাবুয়ে ইনিংসের ২৩তম ওভারের শেষ বলে দলীয় ৬৮ রানে ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে (২৫) মুমিনুলের ক্যাচ বানিয়ে টাইগার শিবিরে স্বস্তি ফেরান অফ স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ।

এরপর ২৬তম ওভারে বল করতে এসে চতুর্থ বলে আরেক জিম্বাবুয়ান ওপেনার চারিকে (৪৩) লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে বিদায় করেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। যদিও আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করেছিলেন চারি, কিন্তু থার্ড আম্পায়ারও রিপ্লে দেখে আউটের সিদ্ধান্ত দেন।

এর আগে, ফলোঅন না করিয়ে ২১৮ রানের লিড নিয়ে দিনের শুরুতে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। কিন্তু ২৫ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে স্বাগতিকরা। এরপর মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সেঞ্চুরি ও মোহাম্মদ মিথুনের অর্ধশতকের ওপর ভর করে ৪৪৩ রানের চ্যালেঞ্জিং টার্গেট দাঁড় করাতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ।

এএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে