আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > আজ সেই ভয়াল ১২ নভেম্বর

আজ সেই ভয়াল ১২ নভেম্বর

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

১২ নভেম্বরের কথা মনে পড়লে উপকূলবাসীরা আঁতকে উঠেন আজও। সেই ভয়ানক স্মৃতি বারবার শিহরণ জাগায় তাদের মনে।

১৯৭০ সালের এইদিনে বাংলাদেশের উপকূলীয় জনপদে আঘাত হানে মহাপ্রলয়ঙ্করী এক ঘূর্ণিঝড়। এক রাতেই লন্ডভন্ড হয়ে যায় বির্স্তীর্ণ উপকূল। ওই রাতেই মারা যায় ১০ লাখ মানুষ। তবে, সরকারি তথ্যে এই সংখ্যা ৫ লাখ বলা হয়।

জাতিসংঘের তথ্য বলছে, বিশ্বের ইতিহাসে এ পর্যন্ত এটাই ছিলো সবচেয়ে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়। যার গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ২০৫ কিলোমিটার। আর স্থায়ীত্ব ৩ মিনিটের মতো। এই ঝড়ের ভয়াবহতার প্রভাবে ৭০ এর সাধারণ নির্বাচনে উপকূলীয় এলাকার ১৭টি সংসদীয় আসনের নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছিল। প্রাকৃতিক দুর্যোগে মহাপ্রলয়ের এই গভীর ক্ষত সেখানকার মানুষ গেল ৪৮ বছরেও পুরোপুরি কাটিয়ে উঠতে পারেনি।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ভয়াবহ এই প্রাকৃতিক ধ্বংসলীলার দীর্ঘ ১৫ দিন পর হেলিকপ্টারে চড়ে উপকূল পরিদর্শনে গিয়েছিলেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান। ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে সেখানে মাত্র ২৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছিলো। এ ঘটনায় চরম ধিকৃত হয়েছিলেন এই সামরিক স্বৈরশাসক। অন্যদিকে বাংলার অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘূর্ণিঝড়ের মাত্র একদিন পরেই লঞ্চযোগে উপদ্রুত এলাকায় ছুটে যান।

দীর্ঘ ৪৮ বছর পেরিয়ে গেলেও ইতিহাসের ভয়াবহতম এই দিনটিকে কোনো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়া হয়নি আজও। তাই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও তাদের স্বজনদের দাবি, জাতির ইতিহাসের অন্যতম শোকাবহ দিন ১২ নভেম্বরকে ‘উপকূল দিবস’ হিসেবে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়া হোক।

 ইএ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে