আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > রাজনীতি > আবারও সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

আবারও সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

আবারও সংলাপ

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

সীমিত পরিসরে আবারও সংলাপ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দেবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

গতকাল শনিবার রাতে রাজধানীর মতিঝিলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বৈঠকে শেষে একথা জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সংলাপ শেষ হওয়ার আগে তফসিল ঘোষণা না করতে, নির্বাচন কমিশনকে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে, তাও প্রধানমন্ত্রীর চিঠিতে উল্লেখ থাকবে বলে জানান তিনি। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হয়ে সভা চলে প্রায় পৌনে ১ ঘণ্টা।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী,  নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা। বৈঠক শেষে মাহমুদুর রহমান মান্না জানান, এখন থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৈঠক শেষে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যের ৭ দফা দাবির প্রেক্ষিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামীকাল প্রধানমন্ত্রীকে আরেকটি চিঠি দেওয়া হবে। যেহেতু তিনি বলেছিলেন, এটা অব্যাহত থাকবে এবং স্বল্প পরিসরে আলোচনা হতে পারে, সেই আলোচনার আহ্বান জানিয়ে আবার একটি চিঠি আগামীকাল দেওয়া হচ্ছে।’

‘সংলাপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন যেন তফসিল ঘোষণা না করে সে ব্যাপারে ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশনকে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে। এবং সেই বিষয়টিও এই চিঠিতে উল্লেখ থাকবে।’ বলছিলেন বিএনপির মহাসচিব।

অন্যদিকে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘পুরা ব্রিফিংটা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর করবেন। তাঁকে এখন মুখপাত্রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

মান্না বলেন, ‘৬ তারিখের জনসভার ওপর আলোচনা হয়েছে। এরপর আবার ৯ তারিখ করব, বিভাগীয় শহরগুলোতে করব। এটা আমরা প্রথম থেকে বলে আসছি, জনসংযোগ করব, মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা যেহেতু সামনে নির্বাচন আছে। নির্বাচনটাকে আমরা আন্দোলনের অংশ হিসেবে নেব। সেই হিসেবে জনসভাকে গুরুত্ব দিচ্ছি। আমাদের এত কথা বলবার পরও যদি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়, তাহলে বসে ভাবব কী করা যায়।’

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাসহ ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে সংলাপে বসেছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। সেই সংলাপ থেকে কোনো সমাধান পাননি বলে জানিয়েছিলেন ড. কামাল হোসেন। আর বিএনপির মহাসচিব বলেছিলেন, সংলাপে তাঁরা সন্তুষ্ট নন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত এই সংলাপ হয়। সংলাপে বিএনপির পক্ষ থেকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলার বিষয় তুলে ধরে তাঁর মুক্তির দাবি জানান। কিন্তু সে বিষয়ে কোনো সদুত্তর দেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সেদিন রাতেই ড. কামাল হোসেনের বেইলি রোডের বাসায় সংবাদ সম্মেলন করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা দীর্ঘ সময় আমাদের দাবিগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি৷ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলার বিষয় তুলে ধরে তাঁর মুক্তির দাবিও করেছি। কিন্তু সে বিষয়ে আমরা সেখানে কোনো সদুত্তর পাইনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, সংসদ ভেঙে দেওয়াসহ আমাদের দাবিগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। কিন্তু সেখানে কোনো সুনির্দিষ্ট কোনো সমাধান পাইনি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এসব বিষয় নিয়ে আরো আলোচনা হবে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমরা তফসিল পেছানোর কথা বলেছি, কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বলেছেন তফসিল ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি), সরকার নয়। এটি ইসির এখতিয়ার, তারাই সিদ্ধান্ত নিবে।

সংলাপে বিএনপি সন্তুষ্ট কিনা জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, আমি আপনাদের আগেও বলেছি সংলাপে যেসব আলোচনা হয়েছে, তাতে আমরা সন্তুষ্ট নই।

এদিকে সংলাপ শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আলোচনা ভালো হয়েছে। তাঁরা চাইলে আরো আলোচনা হবে।

জেএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে