আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > অ্যাপ ছাড়া ‘ওঠাও সার্ভিসে’ মোটর বাইকারদের রমরমা ব্যবসা

অ্যাপ ছাড়া ‘ওঠাও সার্ভিসে’ মোটর বাইকারদের রমরমা ব্যবসা

অ্যাপ ছাড়া ‘ওঠাও সার্ভিসে’ মোটর বাইকারদের রমরমা ব্যবসা

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

সড়ক পরিবহন আইন বাতিলসহ ৮ দফা দাবিতে রাজধানীসহ সারাদেশে চলছে গণপরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতি ও অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট। ফলে দেখা দেয় গণপরিবহন সংকট। আর এ সুযোগ নিয়ে রাজধানীতে ঝুঁকিপূর্ণভাবে চলছে রাইড শেয়ারিং এর নামে মোটর সাইকেলে যাত্রী পরিবহন।

পাঠাও, উবার, সহজ, পিকমি’র মতো বিভিন্ন স্মার্টফোন ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং কোম্পানির চালকদের পাশাপাশি এ চক্রে যোগ দিয়েছেন অনিয়মিত মোটরবাইক, প্রাইভেট কার ও অটোরিকশা চালকরাও।

রাইড শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে অ্যাপস ব্যবহার না করে ‍অসাধু রাইড শেয়ারকারী চালকরা কয়েক গুণ বেশি টাকা আদায় করছেন মানুষের কাছ থেকে।

অ্যাপস ছাড়া রাইড শেয়ারিং-এ ছিনতাইসহ বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তা ঝুঁকি রয়েছে, নারীদের জন্য এটি আরো বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

অ্যাপ ছাড়া ‘ওঠাও সার্ভিসে’ মোটর বাইকারদের রমরমা ব্যবসারাইড শেয়ারিংয়ে কোম্পানিগুলো বলছে, অ্যাপস ছাড়া রাইড শেয়ার চালক এবং রাইডার (যাত্রী) উভয়ের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটার সম্ভবনা রয়েছে এতে।

কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, অ্যাপসে চালক ও আরোহীর বিস্তারিত তথ্য সংরক্ষিত থাকে। চালক ও আরোহী কোথা থেকে কোথায় যাচ্ছেন তারও রেকর্ড সংরক্ষিত থাকে। অ্যাপসে গেলে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটা সহজ নয়, ঘটলেও অপরাধীকে ধরা পড়তেই হবে।

শ্রমিকদের কর্মবিরতির এ সময়টা ছাড়াও অ্যাপস ছাড়া রাইড শেয়ারিংয়ের ঘটনা ঘটছে। তবে এই দুই দিন এটি ব্যাপকহারে বেড়েছে।

উবার, পাঠাওসহ অন্যান্য রাইড শেয়ারিংয়ের চালকরা দিনে একটা বা দুইটা রাইড অ্যাপস ব্যবহার করে করলেও অধিকাংশ রাইডই অ্যাপস ব্যবহার ছাড়া করছেন।

ভুক্তভোগীদের বক্তব্য, রাইড শেয়ারকারী অনেকে মোটরবাইকার সামনে আছেন। কিন্তু কেউ অ্যাপস এ রাজি হচ্ছেন না, চুক্তিতে গেলে তারা যাবেন।

রাইডাররা বলছেন, অ্যাপস আছে তবে এখন আর পাঠাও সার্ভিস নাই, এখন সব ‘ওঠাও সার্ভিস’!  অ্যাপস ছাড়া চুক্তিতে যাত্রীকে গন্তব্যে নিয়ে যাওয়ার এই ব্যবস্থাকে রাইড শেয়ারকারী চালকরা ‘ওঠাও সার্ভিস’ বলছেন।

রাস্তায় গণপরিবহন না থাকার সুযোগ নিয়ে মোটরবাইক চালকরা মানুষকে জিম্মি করে বাড়তি ভাড়া আদায় করছেন। রাইড শেয়ারিংয়ের চালকরাও সিএনজিওয়ালাদের মতো আচরণ করছে বলে মন্তব্য করেন ভুক্তভোগী উবার-পাঠাওয়ের গ্রাহকরা।

রাইড শেয়ারকারী এক যাত্রী বলেন, অনেক সময় অনেক রাইডার অ্যাপস দেখিয়ে ভাড়া নির্ধারণ করেন কিন্তু অফলাইনে রাইড শেয়ার করেন। সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে কমিশন না দিয়ে পুরো টাকা নিজে নিতে তারা এটা করেন।

এ বিষয়ে এক রাইডার বলেন, অ্যাপস ব্যবহার ছাড়া রাইড শেয়ার করা যাত্রীদের মতো চালকদের জন্যও ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। কারণ যাত্রী বেশে কেউ এসে ক্ষতি করে দিতে পারে। অ্যাপস ব্যবহার ছাড়া রাইড শেয়ার করাটা অন্যায়। তবে কোম্পানিগুলো কম হারে কমিশন নিলে রাইডাররা অ্যাপস ব্যবহার করেই যাত্রী পরিবহন করবে।

অ্যাপ ছাড়া ‘ওঠাও সার্ভিসে’ মোটর বাইকারদের রমরমা ব্যবসা

এ বিষয়ে উবারের মুখপাত্র জানান, অ্যাপস ছাড়া রাইড শেয়ার করা চালক ও যাত্রী উভয়ের জন্যই ঝুঁকিপূর্ণ। সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রযুক্তি আমাদের অবিশ্বাস্য  সুযোগ এনে দিয়েছে। রাইড শেয়ারকারী চালক এবং রাইডার এক সঙ্গে মিলিত হওয়া থেকে শুরু করে গন্তব্যে পৌঁছানো পর্যন্ত তথ্য অ্যাপসের মাধ্যমে সংরক্ষিত থাকে।

অ্যাপস ব্যবহার করে রাইড শেয়ার করে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে উবার কর্তৃপক্ষ ইনস্যুরেন্স সুবিধা দেয় বলেও জানান তিনি।

উবার মুখপাত্র আরো জানান, রাইড শেয়ারের আগেই চালক এবং রাইডার দুজনই দুজনের ছবি দেখতে পারেন, গাড়ির নম্বর জানতে পারেন, পরস্পরের সম্পর্কে জানতে পারেন। রাইড চলাকালে জিপিএস ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তারা নিজেরাই অবস্থান জানতে পারেন। রাইড শেয়ার করার পর অ্যাপসের মাধ্যমে অভিযোগ করতে পারেন। যার ওপর ভিত্তি করে আমরা ব্যবস্থা নিয়ে থাকি।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে