আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > ১৭১ আরোহীকে বাঁচিয়ে হিরো যে পাইলট

১৭১ আরোহীকে বাঁচিয়ে হিরো যে পাইলট

যে পাইলটের বীরত্বে বাঁচলো ১৭১ প্রাণ

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

একের পর এক বিমান দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে বাংলাদেশ। এবারও ইউএস-বাংলা। তবে এ যাত্রায় রক্ষা পেল পাইলটের দক্ষতার বলে। ফলে রক্ষা পেয়েছে ১৬৪ যাত্রীসহ ১৭১ আরোহীর জীবন।

জানা গেছে, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বিএস-১৪১ নিয়ে গত মঙ্গলবার হজরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা দেয় যার যার পাইলট ছিলেন ক্যাপ্টেন জাকারিয়া সবুজ। পরে দুর্ঘটনার আশংকা দেখা দিলে তার নেতৃত্বে বিমানটি  জরুরি অবতরণ করা হয়  শাহ্ আমানত আন্তর্জাতিক ইতোমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘রিয়েল হিরো’র উপাধি পেয়ে গেছেন তিনি।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, বিএস-১৪১ ফ্লাইটটি মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় হজরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করে। দুপুর সাড়ে ১২টায় কক্সবাজারে পৌঁছানোর কথা ছিল ফ্লাইটটির। কিন্তু অবরতণের সময় পাইলট লক্ষ্য করেন উড়োজাহাজটির নোজ গিয়ার নামছে। নিশ্চিত দুর্ঘটনার মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তখন নিরাপদে অবতরণের পথ খুঁজছিলেন পাইলট জাকারিয়া। কিন্তু কক্সবাজারের এয়ারপোর্টে জরুরি অবতরণের প্রয়োজনীয় সুবিধা না থাকায় পাইলট চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রকৃত অবস্থা জানান এবং জরুরি অবতরণের অনুমতি চান। এরপর তড়িৎ গতিতে চট্টগ্রাম এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষ সব ব্যবস্থা গ্রহণ করে। রানওয়ের দিকে মুখ করে সাজানো হয় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ও জরুরি অ্যাম্বুলেন্স। এপরপ পাইলট নোজ গিয়ার না নামিয়েই সেখানে নিরাপদে ল্যান্ড করে।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, শাহ্ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি রানওয়ে স্পর্শ করার সাথে সাথে উড়োজাহাজটির পেছনে ছুটতে শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের বেশ কয়েকটি গাড়ীসহ উদ্ধারকারী দল। এক পর্যায়ে ফ্লাইটি রানওয়েতে থেমে গেলে বড় কোন দুর্ঘটনা ছাড়া ইমারজেন্সি ডোর দিয়ে যাত্রীরা একে এক বের হয়ে আসেন। আর এভাবে এতো মানুষের জীবন রক্ষায় নিজের দক্ষতা ও সাহসিকতার প্রমাণ রেখেছেন ইউ এস বাংলা এয়ারলাইন্সের পাইলট ক্যাপ্টেন জাকারিয়া।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর নেপালের কাঠমান্ডুতে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় ৫১ জনের মৃত্যু হয়। সেটা মাথায় রেখে চট্টগ্রামে জরুরি অবতরণের সময় সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রাখা হয়। কারণ, নোজ গিয়ার কাজ না করার অবতরণের সময় আগুন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল।

এএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে