আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > সাবেক হওয়ার অন্তর জ্বালায় ভুগছেন সিনহা

সাবেক হওয়ার অন্তর জ্বালায় ভুগছেন সিনহা

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

সাবেক হওয়ার অন্তর জ্বালা থেকেই মনগড়া বই লিখেছেন সুরেন্দ্র কুমার সিনহা (এসকে সিনহা)  এ কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানী বঙ্গবন্ধু এভিনিউে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক-পূর্ব সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন দাবি করেন।

কাদের বলেন, তিনি সাবেক হয়ে গেছেন। সাবেক হওয়ার অন্তর জ্বালা আছে। কী পরিস্থিতিতে সাবেক হয়েছেন তা সবাই জানে। বই লিখে মনগড়া কথা বলবেন বিদেশে বসে, সেটা নিয়ে কথা বলার কোনো প্রয়োজন আছে? ক্ষমতা যখন থাকে না তখন অনেক অন্তর জ্বালা গড়ে ওঠে।

তিনি বলেন, এস কে সিনহা এখন বইতে যা লিখেছেন, প্রধান বিচারপতি থাকা অবস্থায় বলার সৎ সাহস একজন বিচারপতি হিসেবে কেন তার ছিল না? এখন বিদায় নিয়ে কেন পুরনো কথা নতুন করে বলছেন, যা খুশি তাই বলছেন। তিনি যদি সত্যই বলতেন, তাহলে যখন প্রধান বিচারপতি ছিলেন তখন বললেন না কেন? সত্য কথা দেশের জনগণের মাঝে এসে বললেন না কেন? এখন বিদেশে বসে আপন মনে ভুতুড়ে কথা চাপছেন। এটা আমাদের ও দেশের মানুষের বিশ্বাস করতে হবে? এর যৌক্তিকতা নেই।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দলে দলে জনে জনে যে ঐক্যের কথা আসছে, এতে করে কি জনমনে কোনো প্রভাব ফেলবে? শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের কি জনপ্রিয়তা কমে যাবে? আমার বিশ্বাস দলের সংখ্যা বাড়িয়ে এদেশে একসময় ৭৬ পার্টির ঐক্য হয়েছিল। এটা কি জনমনে কোনো প্রভাব ফেলতে পেরেছে? আমাদের আস্থা আছে, বাংলাদেশের জনমত শেখ হাসিনার পক্ষে রয়েছে।

নেতায় নেতায় ঐক্য হলেও জনতার মধ্যে কোনো প্রভাব ফেলবে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, দেশের বর্তমান চিত্র অনুযায়ী, এই মুহূর্তে জনমনে কোনো প্রতিফলন হবে না। নেতায় নেতায় ঐক্য, দলে দলে ঐক্য যতই হোক জনগণ প্রভাবিত হবে না। এটাই আমাদের অভিজ্ঞতা।

জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণ প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের মহাসচিবও তাদের ডেকে ছিলেন। কিন্তু পরে জানা গেল, জাতিসংঘের মহাসচিব তাদের আমন্ত্রণ করেননি, এটা এখন দিবালোকের মতো পরিষ্কার। তারা জাতিসংঘের প্রধান ফটকে গিয়ে বারবার অনুরোধ করে, একটা তৃতীয় পর্যায়ের কর্মকর্তার সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি জাতিসংঘের মহাসচিবের আমন্ত্রণপত্র নিয়ে যে মিথ্যাচার করেছে, প্রতারণা করেছে, তাতে দেশের জনগণকে অপমানিত করা হয়েছে। গণতন্ত্রকে অসম্মান করা হয়েছে।

তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্য গড়বেন সর্বাত্মক আন্দোলন করার জন্য। আমাদের কাছে মনে হয়, তারা ২০০১ সালে তত্ত্বাবধায়কের নামে যে একটা পার্টিজান নির্বাচনকালীন সরকার করেছিল, সেই চিন্তা-ভাবনা আবার তারা করছে। আবার তারা নিজেদের ছক ও কূটকৌশল প্রয়োগ করে একটা নির্বাচন করতে চাচ্ছে ২০০১ সালের মতো। একটা নির্বাচন তারা চায়। কিন্তু তারা ভুলে গেছে, ২০০১ আর ২০১৮ সাল সময় বদলে গেছে।

কাদের বলেন, আমার বিশ্বাস তাদের এই দলের সংখ্যা বাড়িয়ে, এই দেশে একসময় ৭৬ পার্টির ঐক্য হয়েছে। এটা কি জনমতে কোনো প্রভাব ফেলতে পরেছে? কাজেই বিএনপির এই সব হুমকি-ধামকির পরোয়া আমরা করি না। আমাদের আস্থা আছে বাংলাদেশের জনগণের ওপর। জনমত শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের পক্ষে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন প্রমুখ।

এএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে