আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > নির্বাচন > ময়মনসিংহ-৯ আসনে আওয়ামী লীগের সুদৃষ্টিতে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া

ময়মনসিংহ-৯ আসনে আওয়ামী লীগের সুদৃষ্টিতে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া

ময়মনসিংহ-৯ আসনে আওয়ামী লীগের সুদৃষ্টিতে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া

আহমেদ এফ রুমী:

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হতে পারেন মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তিনি দলীয় নীতি নির্ধারকদের সুনজরে আছেন বলেও আওয়ামী লীগের একটি বিশ্বস্ত সূত্র প্রতিচ্ছবি’কে জানিয়েছে।

তিনি ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০৮ ও ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে একই আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। মনোনয়ন না পেলেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তার নিজ হাতে গড়া বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ড থেকে এক চুলও নড়েননি কবির উদ্দিন ভূঁইয়া। ৫৩ বছরের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা এবং বর্তমান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি গভীর আস্থা রেখে দলীয় সকল কর্মকাণ্ডে নিরলসভাবে অংশগ্রহণ করে চলেছেন।

রাজনৈতিক দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নিজ এলাকাকেও গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেন নান্দাইলের এ জননেতা। দুর্নীতি, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত নান্দাইল গড়ার প্রয়াশ ব্যক্ত করেন তিনি। পর্যাপ্ত সম্মান আর শ্রদ্ধাই একজন জনপ্রতিনিধির কাছে জনগণের চাওয়া। আর এমনই একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া। তাই তো তাকে ঘিরেই স্বপ্ন বুনছে ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনের মানুষ।

সম্প্রতি নিজের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের বর্ণনা দেন কবির উদ্দিন ভূঁইয়া। এসময় আসন্ন নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলেও আশা পোষণ করেন তিনি। কবির উদ্দিন ভুঁইয়া বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই সবদিক বিবেচনা করে ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসন থেকে আমাকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেবেন। আমি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি।’

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অভিজ্ঞ আইনজীবী এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়ার রাজনৈতিক পথচলা শুরু বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের হাত ধরে। ১৯৬৫ সালে আপন চাচা প্রয়াত ভাষা সৈনিক রফিক উদ্দিন ভুইয়ার আদেশে ছাত্রজীবনেই রাজনীতিতে অনুপ্রবেশ ঘটে কবির উদ্দিন ভূঁইয়ার। সেই থেকে নিরলসভাবে রাজনীতির মাঠ চশে বেড়াচ্ছেন তিনি।

ময়মনসিংহ-৯ আসনের জনগণের স্থানীয়দের কাছে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া একজন জনহিতৈষী ব্যক্তিত্ব হিসেবে জনপ্রিয়। রাজনৈতিক জীবনের শুরু থেকেই তিনি স্থানীয়দের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন।

রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে বর্তমানে কবির উদ্দিন ভূঁইয়া ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র কার্যনির্বাহী সদস্য।

এছাড়া তিনি একাধারে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ময়মনসিংহ জেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক, তৎকালীন কিশোরগঞ্জ মহকুমা ছাত্রলীগের দুইবারের সাবেক সভাপতি, বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের দুই বারের সাবেক সহ-সভাপতি, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক, বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন আহ্ববায়ক কমিটির সদস্য, বৃহত্তর ময়মনসিংহ চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহ শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি, আনন্দমোহন কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি ছিলেন।

ময়মনসিংহ-৯ আসনে আওয়ামী লীগের সুদৃষ্টিতে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া

পেশাগত জীবনে কবির উদ্দিন ভূঁইয়া ময়মনসিংহ জেলা আইনজীবী সমিতির দুই বারের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, ময়মনসিংহ রোটারী ক্লাবের সাবেক সম্পাদক, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ অর্গানাইজিং কমিটির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন ময়মনসিংহ শাখার প্রতিষ্ঠাকালীন কার্যকরী কমিটির সদস্য ও আজীবন সদস্য এবং নান্দাইল মুসুল্লী স্কুল ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি ছিলেন।

এছাড়াও আরো অনেক সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িয়ে আছে নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের ঐক্যের প্রতীক এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া।

আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী এ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের জন্ম ১৯৪৭ সালের পয়লা মার্চ। তার পৈত্রিক নিবার নান্দাইলের মেরেঙ্গা গ্রামে। শিক্ষাজীবনে আইন বিষয়ে উচ্চশিক্ষা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই সুনামের সাথেই আইন পেশায় জড়িত আছেন বর্তমানে জেলা নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালের এ পাবলিক প্রসিকিউটর।

বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির উদ্দিন ভূঁইয়া মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন ১৯৭১ সালের এপ্রিল মাসে। সেসময় তৎকালীন মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তার সুযোগ্য সন্তান ও বর্তমান আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, এডভোকেট ফরিদ আহম্মদ, প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন এবং আমোকসু’র সাবেক ভিপি হামিদুল হককে ভারতে পৌঁছে দেন তিনি। এরপর বেঙ্গল লিবারেশন ফ্রন্টের (মুজিব বাহিনী) সদস্য হিসেবে ভারতের দেরাদুনের ঠান্ডুয়ায় সামরিক একাডেমিতে প্রশিক্ষণ নিয়ে গেরিলা লিডার হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিভাবে অংশ নেন।

ময়মনসিংহ-৯ আসনে আওয়ামী লীগের সুদৃষ্টিতে এডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া

প্রসঙ্গতঃ ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনে দুই ধারায় চলছে আওয়ামী লীগ। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুবারের সাংসদ আবদুস সালামের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার সুযোগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ হন জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল আবেদিন খান। আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পেতে এই দুজনের লড়াইয়ে যুক্ত হয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির উদ্দিন ভূঁইয়া।

স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্বাধীনতার পর ১৯৭৩, ’৮৬, ’৯৬, ২০০৮ ও ২০১৪ সালে এ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা বিজয়ী হন। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা জানান, ২০১৪ সালে আবদুস সালামের মনোনয়নপত্র বাতিল হলে মনোনয়ন-সংক্রান্ত আওয়ামী লীগের চিঠির দ্বিতীয় স্থানে থাকা আনোয়ারুল আবেদিন খানকে মনোনয়ন দেয় দল। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ হলেও দলে পদ পাননি তিনি।

একাদশ নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে আবদুস সালাম বলেন, ‘নির্বাচনের প্রস্তুতি আমাদের সব সময়ই থাকে। সভানেত্রীই বলতে পারেন দল থেকে কে মনোনয়ন পাবেন।’ নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগে কোনো বিভক্তি নেই বলে দাবি করেন তিনি।

সাংসদ আনোয়ারুল আবেদিন খান বলেন, ‘ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পর্যায়ে সভা-সমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের বার্তা পৌঁছে দিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট চাইছি। তাতে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি এবং আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

নির্বাচন নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যেও ঔৎসুক্য রয়েছে। উপজেলার ভোটাররা জানান, সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের সুফল তাঁরা ভোগ করছেন। তবে সাধারণ মানুষ সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি ততটা সন্তুষ্ট নন। তাঁদের ‘উচ্ছৃঙ্খলতা’ সাধারণ মানুষ ভালো চোখে দেখছে না।

এআর/এসএইচ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে