আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > ঝুঁকি নিয়ে ট্রেন-বাসের ছাদে চেপে ঈদ আনন্দযাত্রা

ঝুঁকি নিয়ে ট্রেন-বাসের ছাদে চেপে ঈদ আনন্দযাত্রা

%e0%a7%a7

 
ইফতি মাহবুব :

প্রিয়জনের সাথে ঈদ উদযাপন করতে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। টিকিট না পেয়ে বাস-ট্রেনের ছাদে চেপে বসেন বহু মানুষ। সকাল থেকেই রাজধানীর কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেল স্টেশন এবং গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালী বাস টার্মিনালে বাড়ি ফেরা মানুষের উপচে পড়া ভিড়।

কমলাপুর স্টেশনে ট্রেনের শিডিউলে খুব বেশি হেরফের না থাকলেও প্রতিটি ট্রেন ছাড়তে ১০ থেকে ২০ মিনিট দেরি হচ্ছে। তবে সকালের দিকে রংপুর এক্সপ্রেস দুইঘন্টা দেরিতে ছাড়ে।

ট্রেনের ভিতরে ভিড়তো আছেই। দাঁড়িয়ে যাচ্ছেন বহু মানুষ। ভিতরে জায়গা পেয়ে অনেকেই উঠে পড়েছেন ছাদে। বাড়ি যেতে হবে, টিকিট পাননি তাই ঝুঁকি নিয়েই ছাদে যেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অনেক যাত্রী।

ট্রেনের ছাদে ওঠা নিষিদ্ধ হলেও তা নিয়ন্ত্রণে কোনোই ব্যবস্থা নেয়নি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

কমলাপুর রেল স্টেশনের ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্ত্তী প্রতিচ্ছবিকে জানিয়েছেন, রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি দুই ঘন্টা পরে ছাড়লেও রেলের শিডিউলে তেমন কোনো হেরফের হচ্ছে না। তিনি আরো জানান, যাত্রীদের চাপ থাকায় আজ থেকেই শুরু হয়েছে বিশেষ ট্রেন সার্ভিস। দিনে ও রাতে কমলাপুর থেকে ৬৬টি ট্রেন ছেড়ে যাবে এরমধ্যে বিশেষ ট্রেন রয়েছে তিনটি।

নিজেকে নবাগত মনে হয়: শ্রীদেবী

এদিকে সবগুলো বাসস্ট্যান্ডের চিত্র একই। টার্মিনালগুলোতে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। নির্ধারিত সময়ে বাস ছাড়ছে না। এজন্য মহাসড়কের যানজটকেই দুষছেন বাস কর্তৃপক্ষ।

সময় মতো বাস না ছাড়ায় ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। কাউন্টারে বসার জায়গা না পেয়ে অনেকেই পরিবার নিয়ে কাউন্টারের বাইরে বাসের জন্য অপেক্ষা করেছেন।

টিকিট না পেয়ে বাসের ছাদে উঠেছে বহু মানুষ। ছাদে উঠিয়ে বাড়তি টাকা আদায় করে নিচ্ছে কর্মচারিরা। দুরপাল্লার গাড়িতে ছাদে যাওয়া ঝুঁকিপূর্ণ হলেও তা নিয়ে ভ্রুক্ষেপ নেই বাস মালিকদের। নজর নেই প্রশাসনেরও।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে