আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, মিনায় যাচ্ছেন হাজীরা

হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, মিনায় যাচ্ছেন হাজীরা

হাজী

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

পবিত্র হ‌জের আনুষ্ঠা‌নিকতা শুরু হ‌চ্ছে আজ থে‌কে। শনিবার বি‌কেল থে‌কে রবিবার (১৯ আগস্ট) ভোর পর্যন্ত সরকা‌রি ও বেসরকা‌রি ব্যবস্থাপনা সোয়া এক লা‌খেরও বেশি বাংলাদেশি হজযা‌ত্রীসহ সকল হজযাত্রী মিনায় যা‌বেন।

হাজীরা সৌদি আরবের সময় অনুযায়ী ৭ জিলহজ মাগরিবের নামাজ আদায়ের পর মিনার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন। আজ (বাংলাদেশ সময়) সূর্যোদয় থেকে মিনায় অবস্থানের মধ্য দিয়ে শুরু হল হজের আনুষ্ঠানিকতা। কাল সূর্যোদয় পর্যন্ত তারা মিনায় অবস্থান করবেন। পবিত্র মক্কা নগরী থেকে তাঁবুর শহরখ্যাত মিনার দূরত্ব ৯ কিলোমিটার।

বাংলা‌দেশ হজ মে‌ডি‌কেল সেন্টা‌রের টিম প্রধান ডা. মো. জা‌কির হো‌সেন খান জানিয়েছেন, অসুস্থ বাংলা‌দেশি হাজিদের চি‌কিৎসা দিতে ৪০ সদ‌স্যের মে‌ডি‌কেল টিম গ‌ঠন করা হ‌য়ে‌ছে। এদির ম‌ধ্যে ১৫ জন ডাক্তার, ১৫ জন নার্স, ব্রাদার, ফার্মা‌সিস্ট ওটি সহকা‌রী ও ১০ জন হজ সহায়ক রয়েছেন। তারা ৮ ঘণ্টা ক‌রে তিন শিফ‌টে দা‌য়িত্ব পালন কর‌বেন।

এছাড়া আরাফাত ও মিনার আশপা‌শে সৌ‌দি সরকা‌রের ক‌য়েক‌টি স্থায়ী হাসপাতা‌লে দুজন ক‌রে ডাক্তার থাক‌বেন। ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান ও ধর্ম সচিব মো. আনিছুর রহমান মক্কায় বাংলাদেশ হজ মিশনে থেকে পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছেন।

এদিকে শুক্রবার এক হাজার ৬৬ জন হজযাত্রী ঢাকা থেকে জেদ্দা পৌঁছেছেন। এ নিয়ে সৌদি আরবে সর্বমোট বাংলাদেশি হজযাত্রী পৌঁছেছেন এক লাখ ২৭ হাজার ২৭৫ জন।

বিমানের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ জানান, বিমানের হজ ফ্লাইট ও সিডিউল ফ্লাইট যোগে সর্বমোট ৬২৭৯৬ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে গেছেন। বাকি হজযাত্রী সাউদিয়া এয়ারলাইন্স যোগে গেছেন। হজের অংশ হিসেবে মুসল্লিরা মিনা, আরাফাত ময়দান, মুজদালিফা ও মক্কায় পাঁচদিন অবস্থান করবেন।

নিয়মানুযায়ী আজ (বাংলাদেশ সময়) ফজর থেকে কাল ফজরের নামাজ পর্যন্ত অবস্থান শেষে হাজীরা আরাফাতের ময়দানে রওনা হবেন। আরাফাতে গিয়ে সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করবেন। সেখানে হজের খুতবা শুনবেন। জোহর এবং আসরের নামাজ একত্রে আদায় করবেন। আরাফাতে সারা দিন কাটাবেন খোলা আকাশের নিচে। আরাফাত থেকে মুজদালিফায় যাবেন। সেখানে গিয়ে মাগরিব ও এশার নামাজ একত্রে আদায় করবেন। মুজদালেফাতেও খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন করবেন। সেখান থেকে জামারায় শয়তানকে মারার জন্য পাথর (কংকর) সংগ্রহ করে নেবেন।

১০ জিলহজ ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে হাজীরা আবার মিনায় ফিরবেন। মিনায় হাজীদের চারটি কাজ থাকে। তা হচ্ছে, পশু কোরবানি করা, মাথা মুণ্ডন, শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও ইহরাম খোলা। এই আহকামের অংশ হিসেবে হাজীরা মিনায় গিয়ে ১০ জিলহজে কোরবানি করবেন এবং মাথা মুণ্ডন বা চুল ছাঁটাবেন। এছাড়া বাকি দুটি কাজও করবেন। এরপর মক্কায় পবিত্র কাবাঘর তাওয়াফ এবং সা’ঈ করবেন। এই তাওয়াফের নাম বিদায়ী তওয়াফ। এর আগে সৌদি আরব গিয়েই হজযাত্রীরা প্রথমে একবার অবশ্যই পবিত্র কাবা ঘর তওয়াফ করেন।

বিদায়ী তওয়াফ সেরে আবার মিনায় ফিরে ১১ ও ১২ জিলহজ সেখানে অবস্থান করে প্রতিদিন তিন শয়তানকে পাথর মারবেন। এভাবে সম্পন্ন হবে হজের গোটা আনুষ্ঠানিকতা। প্রত্যেক হজযাত্রীকে নিজ নিজ মোয়াল্লেম কার্যালয় থেকে গাইডের মাধ্যমে মিনা, মুজদালিফা, আরাফাতে গমন, অবস্থান, শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ, কোরবানির নিয়মকানুন সবকিছু আগেভাগেই জানিয়ে দেয়া হয়।

এসএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে