আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > বাসের ঈদযাত্রায় দুর্ভোগ: হর্তাকর্তাদের সামনেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায়

বাসের ঈদযাত্রায় দুর্ভোগ: হর্তাকর্তাদের সামনেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায়

বাসের ঈদযাত্রায় দুর্ভোগ: হর্তাকর্তাদের সামনেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় 2

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে রাজধানীতে শুরু হয়েছে ঘরমুখো মানুষের তোড়জোড়। বাসে ঘরে ফিরতে অতিরিক্ত ভাড়া ছাড়াও নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বিলম্বে বাস ছাড়ার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

শুক্রবার (১৭ আগস্ট) রাজধানীর গাবতলী, কল্যাণপুর, মহাখালী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল ঘুরে এসব দৃশ্য দেখা গেছে। বাস কাউন্টার সূত্রে জানা যায়, যাত্রীর অভাব থাকার কারণে এ ধরণের ভোগান্তি হচ্ছে।

ভোর থেকেই গাবতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় ভিড় বাড়া শুরু হয়েছে। গাবতলী থেকে ছেড়ে যাচ্ছে খুলনা, বরিশাল, উত্তরবঙ্গ ও চট্টগ্রাম রুটের গাড়ি। বাসের টিকিট সহজেই পাওয়া যাচ্ছে। তবে গুণতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। তাছাড়া সরকার নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা কোনো কাউন্টারে লক্ষ্য করা যায়নি।

বরিশালগামী হানিফ পরিবহনের এক যাত্রী বলেন, নির্ধারিত ভাড়া ৫৫০ টাকা। কিন্তু নিচ্ছে ৭৫০ টাকা। টিকিটে আবার এই অতিরিক্ত ভাড়ার পরিমাণ লেখা নেই। অন্যদিকে একই রুটের সুরভী পরিবহন একই ভাড়ার বদলে পেছনের সিটের ক্ষেত্রে ৮০০ টাকা আর সামনের দিকের ক্ষেত্রে ১০০০ টাকা নিচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, গাড়ি ছাড়ার নির্ধারিত সময় থেকে আধা ঘণ্টা পেরিয়ে গেছে। তবু বাসের দেখা নেই। আবার রাস্তায় তাদের লোকাল যাত্রী তোলার ভোগান্তি। ফেরিঘাটের জ্যামের বিষয়টিও চিন্তায় ফেলছে।

বাসের ঈদযাত্রায় দুর্ভোগ: হর্তাকর্তাদের সামনেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় 3

অতিরিক্ত ভাড়ার বিষয়টি অস্বীকার করে হানিফ পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার দুলাল খান বলেন, ভাড়া অতিরিক্ত নাই। শুধু যে যেরকম ঈদ বোনাস দেয় তাই রাখছি আমরা। তাও ৫০ টাকার বেশি না। আর বাস দেরি হচ্ছে কারণ গাবতলী এলাকায় অনেক জ্যাম। গাড়ি মিরপুর বাংলা কলেজ থেকে ঘুরে আসতে হচ্ছে। জ্যামের কারণে এই সংক্ষিপ্ত পথ দীর্ঘ হয়ে যাচ্ছে। এ কারণেই আধা ঘণ্টা বা এক ঘণ্টা দেরি হচ্ছে। আর কোনো কারণ নেই। তাছাড়া আমাদের বেশিরভাগ বাসের সিট পরিপূর্ণ হয়নি। প্রায় প্রত্যেকটি বাসে ১০টি করে সিট খালি আছে।

যাত্রীদের অভিযোগ- এই সিটগুলো পূর্ণ হলেই বাস ছাড়বে। তাছাড়া গাবতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় ও সামনের রাস্তায় প্রতিটি কোম্পানির বাস দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। গাবতলী পশুর হাট ছাড়াও যা এই সড়কের যানজটের অন্যতম কারণ।

অন্যদিকে, শ্যামলী ও সোহাগ পরিবহনের কাউন্টার ও যাত্রী মারফত জানা গেছে, তাদের কোনো টিকিট বিক্রি বাদ নেই। যাত্রীরা আসছে আর নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ি ছেড়ে যাচ্ছে।

যাত্রীদের কল্যাণে নিরাপত্তা রক্ষাকারী র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও পুলিশের সঙ্গে অতিরিক্ত ভাড়া, ফিটনেসবিহীন বাস পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ যাবতীয় ভোগান্তি দূর করার উদ্দেশে রয়েছে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র (বিআরটিএ) ভিজিলেন্স টিম।

ভিজিলেন্স টিমের প্রধান মোটরযান পরিদর্শক আব্দুল খাবিরু বলেন, র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা আমাদের সহায়তা করছেন। বৃহস্পতিবার থেকে আমাদের এই টিম কাজ করছে। এখন পর্যন্ত আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি যাত্রীদের কাছ থেকে। তাছাড়া সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চার্ট আজকের মধ্যেই প্রতিটি কাউন্টারের সামনে লাগিয়ে দেবে বলে জানিয়েছেন পরিবহন মালিক শ্রমিক সমিতির নেতারা।

কিন্তু অভিযোগের বিষয়ে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিআরটিএ’র ভিজিলেন্স টিমে লিখিত অভিযোগ জানাতে হয়। বাড়ি ফেরার পথে লিখিত অভিযোগ করা কীভাবে সম্ভব? আর তাদের (ভিজিলেন্স টিমের) সামনেই তো অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছে।

এ বিষয়ে আব্দুল খাবিরু জানান, আমাদের যাত্রীরা যদি একটি চিরকুটে অভিযোগ লিখে দেয় তাতেও হবে। লিখিত ছাড়া আমরা কিসের ভিত্তিতে অ্যাকশনে যাবো। তাছাড়া আমরা ফিটনেসবিহীন বাসের ক্ষেত্রে খুব কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছি।

গাবতলী টার্মিনালে বহু সংখ্যক ফিটনেসবিহীন বাসে যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যাওয়া ছাড়াও মেরামতের কাজে পরিবহন শ্রমিকদের ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে