আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > প্রাণহীন রিয়ালকে উড়িয়ে উয়েফা সুপার কাপ অ্যাতলেটিকো’র

প্রাণহীন রিয়ালকে উড়িয়ে উয়েফা সুপার কাপ অ্যাতলেটিকো’র

প্রাণহীন রিয়ালকে উড়িয়ে উয়েফা সুপার কাপ অ্যাতলেটিকো’র

প্রতিচ্ছবি স্পোর্টস ডেস্ক:

দিয়েগো কস্তার রেকর্ড গড়া দ্রুততম গোলের দিনে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদকে উড়িয়ে উয়েফা সুপার কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। একইসঙ্গে শিরোপা জয়ের আনন্দে মৌসুম শুরু করলো দিয়েগো সিমেওনের দল।

এস্তোনিয়ার তালিনে বুধবার রাতে ম্যাচটি ৪-২ গোলে জিতেছে আতলেতিকো। শুরুতে পিছিয়ে পড়ার পর করিম বেনজেমা ও সের্হিও রামোসের গোলে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল রিয়াল। কিন্তু কস্তার দ্বিতীয় গোলে সমতা টানে গতবারের ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়নরা। আর অতিরিক্ত সময়ে পার্থক্য গড়ে দেয় সাউল নিগেস ও কোকের গোল।

দিয়েগো কস্তার দুর্দান্ত নৈপুণ্যে ম্যাচ শুরুর ৫০ সেকেন্ডের মাথায় এগিয়ে যায় আতলেতিকো। মাঝমাঠের আগে থেকে দিয়েগো গদিনের উঁচু করে বাড়ানো বল প্রথম হেডে সামনে বাড়ানোর পথে পরাস্ত করেন সের্হিও রামোসকে। দ্বিতীয় হেডে পিছনে ফেলেন রাফায়েল ভারানেকে আর সবশেষে ছয় গজ বক্সের বাইরে বাইলাইনের কাছ থেকে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে গোলটি করেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড।

প্রতিযোগিতার ইতিহাসে দ্রুততম গোলের আগের রেকর্ডটি ছিল এভার বানেগার দখলে। ২০১৫ সালে বার্সেলোনার কাছে ৫-৪ ব্যবধানে হারের ম্যাচে তৃতীয় মিনিটে তখনকার রেকর্ডটি গড়েছিলেন সেভিয়ার আর্জেন্টাইন এই মিডফিল্ডার।

১৭ মিনিটে ইয়ান ওবলাকের নৈপুণ্যে ব্যবধান ধরে রাখে আতলেতিকো। মার্সেলোর নিচু ক্রসে মার্কো আসেনসিওর ফ্লিক ঝাঁপিয়ে এক হাত দিয়ে ঠেকান স্লোভেনিয়ার গোলরক্ষক।

টানা আক্রমণ করতে থাকা রিয়াল ২৭ মিনিটে সমতায় ফেরে। ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা গ্যারেথ বেলের দারুণ ক্রসে হেডে দূরের পোস্ট দিয়ে বল জালে পাঠান ফরাসি ফরোয়ার্ড বেনজেমা।
দুই মিনিট পর এগিয়েও যেতে পারতো ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা; কিন্তু আসেনসিওর শট পোস্ট ঘেঁষে বাইরে চলে যায়।

৬৩ মিনিটে রামোসের সফল স্পট কিকে এগিয়ে যায় রিয়াল। কর্নার থেকে উড়ে আসা বল স্প্যানিশ ডিফেন্ডার হুয়ানফ্রানের হাতে লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

৭৯ মিনিটে সমতা ফেরায় আতলেতিকো। সতীর্থের বাড়ানো বলে বাইসাইকেল কিকের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন কস্তা। রিয়ালের রক্ষণ দলকে বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হলে সাইড-লাইনে বল পেয়ে হুয়ানফ্রান দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে ছোট করে বাড়ান আনহেল কোররেয়াকে। তিনি বাড়ান ছয় গজ বক্সে; অনায়াসে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন ব্রাজিলে জন্ম নেওয়া কস্তা।

নির্ধারিত সময়ের যোগ করা মিনিটের একেবারে শেষ মুহূর্তে নায়ক হতে পারতেন মার্সেলো। কিন্তু বাঁ-দিক থেকে বেলের ক্রস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি ব্রাজিলিয়ান লেফট-ব্যাক।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথম ভাগে ছয় মিনিটের ব্যবধানে দুবার বল জালে জড়িয়ে জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলে আতলেতিকো।

৯৮ মিনিটে বাঁ-দিকের বাইলাইন থেকে ঘানার মিডফিল্ডার টমাসের ক্রসে দারুণ ভলিতে দলের তৃতীয় গোলটি করেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার সাউল নিগেস। আর ১০৪ মিনিটে ভিতোলোর পাসে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন আরেক স্প্যানিয়ার্ড কোকে।

বাকি সময়ে তেমন কোনো সুযোগই তৈরি করতে পারেনি গত মাসে ইউভেন্তসে পাড়ি জমানো ক্লাবের সর্বোচ্চ গোলদাতা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোকে ছাড়া প্রথম কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলতে নামা রিয়াল মাদ্রিদ।

প্রতি বছর নতুন মৌসুমের শুরুতে আগের মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপাজয়ী ও ইউরোপা লিগের চ্যাম্পিয়নের মধ্যে লড়াইটি হয়ে থাকে। এবারই প্রথম একই শহরের দুটি ক্লাব এই লড়াইয়ে মুখোমুখি হলো।

আর প্রথম ক্লাব হিসেবে তিনবার প্রতিযোগিতাটিতে খেলার সুযোগ পেয়ে প্রতিবারই শিরোপা জয়ের কীর্তি গড়লো আতলেতিকো।

এর আগে ২০১০ ও ২০১২ সালে দুবার জিতেছিল তারা। আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে ছাড়া প্রথম কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলতে নেমে হারের মুখ দেখলো রিয়াল।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে