আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > রাজনীতি > এক বছরে আওয়ামী লীগের আয় ২০ কোটি, ব্যয় ১৩ কোটি

এক বছরে আওয়ামী লীগের আয় ২০ কোটি, ব্যয় ১৩ কোটি

আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের কাছে বার্ষিক হিসাব জমা দেন আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

বিগত বছরের তুলনায় ২০১৭ সালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আয় বেড়েছে চার গুণেরও বেশি। একই অনুপাতে বেড়েছে দলটির ব্যয়ও। দলটি আয় ও ব্যয়ের হিসাব থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের কাছে বার্ষিক হিসাব জমা দেন আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ২০১৭ সালে আওয়ামী লীগের আয় ছিল ২০ কোটি ২৪ লাখ ৯৬ হাজার ৪৩৬ টাকা। এ বছর দলটির ব্যয় ছিল ১৩ কোটি ৬৩ লাখ ৪৮ হাজার ৩১৯ টাকা। বছর শেষে উদ্বৃত্ত ছিল ৬ কোটি ৬১ লাখ ৪৮ হাজার ১১৭ টাকা।

এর আগের বছর, অর্থাৎ ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের আয় ৪ কোটি ৮৪ লাখ ৩৪ হাজার ৯৭ টাকা এবং ব্যয় ৩ কোটি ১ লাখ ৮৪ হাজার ৫৯৯ টাকা ছিল বলে জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক বলেন, ‘এ বছর আমরা দলের নতুন কার্যালয় নির্মাণ করেছি। এ কারণে শুকাঙ্ক্ষীদের কাছ থেকে অনেক দান-অনুদান এসেছে। ফলে ২০১৬ সালের তুলনায় ২০১৭ সালে আমাদের আয় ও ব্যয় অনেক বেড়েছে।’

তিনি বলেন, ‘গত বছর ভবন নির্মাণের জন্য আমরা ১০ কোটি টাকা অনুদান পেয়েছি। সমপরিমাণ অর্থই ভবন নির্মাণের পেছনে খরচ হয়েছে।’

আব্দুস সোবহান গোলাপ জানান, নেতাদের মাসিক চাঁদা, জেলাভত্তিক প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ফি, সংসদ সদস্যদের ফি, সংরক্ষিত নারী আসরের মনোনয়ন ফরম বিক্রি, প্রাথমিক সদস্য ফরম বিক্রি, জেলা মঞ্জুরি ফি, ভবন নির্মাণের জন্য অনুদান, ব্যাংক সুদ ছিল ২০১৭ সালে আওয়ামী লীগের আয়ের উৎস। অন্যদিকে, বিভিন্ন প্রকাশনা, পোস্টারিং, নেতাকর্মী ও সাংবাদিকদের আপ্যায়ন এবং ভবন নির্মাণ ছিল দলের ব্যয়ের খাত।

আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে ভবন নির্মাণে প্রাপ্ত অনুদান ছাড়াই দলের আয় ছিল ১০ কোটি ২৪ লাখ ৯৬ হাজার ৪৩৬ টাকা। আর ভবন নির্মাণ ছাড়া ব্যয় ছিল ৩ কোটি ৬৩ লাখ ৪৮ হাজার ৩১৯ টাকা। সেই হিসাবে ভবন নির্মাণের এই অনুদান ছাড়াই ২০১৬ সালের তুলনায় ২০১৭ সালের দলের আয় বেড়েছে ৫ কোটি ৪০ লাখ ৬২ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকা। আর ব্যয় বেড়েছে ৬১ লাখ ৬৩ হাজার ৭২০ টাকা।

একই হিসাবে ২০১৬ সালের আওয়ামী লীগের উদ্বৃত্ত তহবিলের পরিমাণ ছিল ১ কোটি ৮২ লাখ ৪৯ হাজার ৪৯৮ টাকা। আর ২০১৭ সালে দলের উদ্বৃত্ত তহবিল ছিল ৬ কোটি ৬১ লাখ ৪৮ হাজার ১১৭ টাকার। সে হিসাবে এই এক বছরের ব্যবধানে দলের উদ্বৃত্তও বেড়েছে সাড়ে তিন গুণের বেশি।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আব্দুস সবুর।

ইসির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩ সাল থেকে প্রত্যেক বছরই আওয়ামী লীগের ব্যয়ের তুলনায় আয় বেশি। ২০১৬ সালে দলটির আয় হয়েছিল ৪ কোটি ৮৪ লাখ ৩৪ হাজার ৯৭ টাকা। বিপরীতে ব্যয় করেছিল ৩ কোটি ১ লাখ ৮৪ হাজার ৭৯৯ টাকা। উদ্বৃত ছিল ১ কোটি ৮২ লাখ ৪৯ হাজার ২৯৯ টাকা।

এর আগে ২০১৫ সালে আওয়ামী লীগ আয় করে ৭ কোটি ১১ লাখ ৬১ হাজার ৩৭৫ টাকা। ব্যয় করে ৩ কোটি ৭২ লাখ ৮১ হাজার ৪৬৯ টাকা। এ বছরও দলটি প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত দেখিয়েছিল।

২০১৪ সালে দলটি আয় দেখিয়েছে ৯ কোটি ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪৩ টাকা। আর ব্যয় দেখিয়েছে ৩ কোটি ৪৪ লাখ ৪০ হাজার ৮২১ টাকা। এ বছর প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত ছিল আওয়ামী লীগের।

২০১৩ সালে আওয়ামী লীগ আয় দেখিয়েছিল ১২ কোটি ৪০ লাখ টাকা। আর ব্যয় দেখিয়েছিল ৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এ বছর প্রায় ৬ কোটি টাকা দলটির উদ্বৃত্ত ছিল।

২০০৮ সালে নিবন্ধন প্রথা চালুর পর গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ মেনে প্রতিবছর আর্থিক লেনদেনের হিসাব দেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর।

কোনো দল পরপর তিন বছর আয়-ব্যয়ের হিসেব জমা না দিলে ইসি চাইলে তার নিবন্ধন বাতিল করতে পারে।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে