আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > বাবার পায়ে শেঁকল বেঁধে নির্যাতন

বাবার পায়ে শেঁকল বেঁধে নির্যাতন

 বাবার পায়ে শেঁকল বেঁধে নির্যাতন

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক: জীবনের শেষ প্রান্তে দাড়িয়েও নিজ সন্তানদের হাতেই নির্মমভাবে নির্যাতিত হচ্ছেন যশোরের কেরামত আলী মোল্লা (৭০)। দীর্ঘদিন ধরে পায়ে শিকল বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করছে তারই দুই ছেলে আবু তালেব ও রেজাউল ইসলাম।

এ বিষয়টি নিয়ে ওই এলাকায় হৈচৈ পড়ে গেছে। জমি বিক্রি করে ফেলতে পারেন এ আশংকায় এ পৈশাচিককতা চলছে বৃদ্ধের উপর।

তবে এ ব্যাপারে প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, মধুগ্রামের বয়ঃবৃদ্ধ কেরামত আলীর প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর তার সন্তানেরা তার ভরনপোষন বন্ধ করে দেয়। ফলে তিনি অসহায় হয়ে পড়েন। অসহায়ত্ব কাটাতে দেড় বছর আগে তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন।

এর জের ধরে সন্তানদের সাথে তার দুরত্ব আরও বাড়তে থাকে। ছেলেরা তার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। ছেলেদের রোষাণল থেকে বাঁচতে তিনি অন্য জমিতে ঘর বেঁধে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস শুরু করেন।

এক পর্যায়ে অর্থাভাবে তার ১৬ বিঘা জমি থেকে ১ বিঘা জমি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন। ১৫ লাখ টাকায় বিক্রির কথাবার্তা চলতে থাকে এক ক্রেতার সাথে। জমি বিক্রির বিষয়টি তার ছেলে রং মিস্ত্রী আবু তালেব ও কালেক্টরেট মার্কেটের একটি কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান রেজাউল ইসলাম জানতে পারেন।

তারা তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে ১৮ জুন এশার নামাজ শেষে রাস্তা থেকে বাবাকে তুলে এনে বাড়ির বারান্দায় শেঁকল দিয়ে বেঁধে রাখে।

এভাবে গত ৪ দিন ধরে শেঁকল বাধা অবস্থায় তিনি পড়ে আছেন।

বিষয়টি নিয়ে এলাকার ইউপি মেম্বর আব্দুস সালামের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন এবং সেখানে লোক পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে আইনগত সব রকম সহযোগীতা দেয়া হবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে