আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > বাড়ছে পানি, পদ্মা-মেঘনা-যমুনার ভাঙন অব্যাহত

বাড়ছে পানি, পদ্মা-মেঘনা-যমুনার ভাঙন অব্যাহত

বাড়ছে পানি, পদ্মা-মেঘনা-যমুনার ভাঙন অব্যাহত

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

বর্ষার শুরু থেকেই পানি বাড়তে শুরু করেছে পদ্মা-মেঘনা-যমুনাসহ বিভিন্ন নদীতে। প্লাবিত হতে শুরু করেছে আশপাশের এলাকা, ভাঙতে শুরু করেছে নদীর তীর। ভাঙনে বড় ধরণের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে তাৎক্ষণিক সমাধানের উদ্যোগ।

শরীয়তপুর

জেলার নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা ইয়াসমিন জানান, বর্ষা শুরু হওয়ায় এবং নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাঙন কবলিত এলাকায় ফসলি জমি, গাছপালা, বাড়িঘরগুলো ভেঙে যাচ্ছে।

শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম জানান, পদ্মার ভাঙন প্রতিরোধে অস্থায়ী বাঁধ নির্মাণের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের রাজস্ব খাত থেকে জরুরি ভিত্তিতে ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। পদ্মার ডান তীরের নড়িয়া কৃর্ত্তিনাশা নদীর মুখ মাহিপাড়া ২২০ মিটার ও মূলফৎগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন পদ্মার পাড় ২১০ মিটার মোট ৪৩০ মিটার এলাকায় ৬৫ হাজার অপচনশীল জিও ব্যাগ ভর্তি করে বালি ফেলা হবে। এর দ্বারা কিছুটা হলেও ভাঙন রোধ করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।

বাড়ছে পানি, পদ্মা-মেঘনা-যমুনার ভাঙন অব্যাহত 2

মাদারীপুর

বিআইডব্লিউটিসিসহ একাধিক সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ ধরে পদ্মা নদীতে বন্যার পানি বৃদ্ধির গতিবেগ বাড়তে থাকে। অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে স্রোতের গতিবেগ তীব্র আকার ধারণ করে।

বিআইডব্লিউটিসির মেরিন কর্মকর্তা আহমেদ আলী বলেন, নদীতে তীব্র স্রোত। বিশেষ করে লৌহজং টার্নিংয়ে ঘূর্ণিস্রোত সৃষ্টি হওয়ায় এটি ক্রস করতে ফেরিগুলোকে হিমশিম খেতে হতো। তাই বিকল্প চ্যানেল চালু করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ

মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া ফেরি সার্ভিসের মেঘনা নদীর দুই পাড়ের অ্যাপ্রোচ সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় মুন্সীগঞ্জ প্রান্তের চরকিশোরগঞ্জ ঘাট ও গজারিয়া প্রান্তে গজারিয়া ঘাটের দুই পাড়ের অ্যাপ্রোচ সড়ক প্লাবিত হয়েছে।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া ফেরি সার্ভিসে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার করছে ফেরি স্বর্ণচাঁপা। ৫টি ট্রাক কিংবা ৬টি যাত্রীবাহী বাস ধারণ ক্ষমতার এই ফেরিটি প্রতিদিন মেঘনা পাড়ি দিয়ে যাচ্ছে এই নৌরুটে। কিন্তু বুধবার সকাল থেকেই মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে নৌরুটে ফেরি সার্ভিসের দুই পাড়ের ঘাট এলাকার অ্যাপ্রোচ সড়ক প্লাবিত হয়ে পড়ে। এতে করে ঘাটের উভয় পাড়ে যানবাহন ও যাত্রীদের ফেরিতে উঠানামায় দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে।

পদ্মায় স্পিডবোট

সিরাজগঞ্জ

যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় চৌহালী উপজেলার খাষপুখুরিয়া থেকে পাথরাইল পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৮ কিলোমিটার এলাকায় নদী ভাঙন চলছে। প্রতিনিয়তই নদীর পেটে যাচ্ছে বসত বাড়ি, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, দোকান পাটসহ বিভিন্ন স্থাপনা। গত রোববারও (৮ জুলাই) খাষপুখুরিয়া ও চরছলিমাবদ এলাকায় ৭টি বসতবাড়ি যমুনার পেটে গেছে।

এছাড়া যমুনার পশ্চিম তীরে অবস্থিত খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল ও বিশ্ববিদ্যায়ের দক্ষিণে সাড়ে ৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়েও চলছে যমুনা ভয়াবহ ভাঙনের তাণ্ডবলীলা।

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা চেয়ারম্যান মেজর (অব:) আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, দক্ষিণাঞ্চলে যমুনার ভাঙন ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। এখনই ভাঙন ঠেকানো না গেলে চৌহালীর বাকি অংশ মানচিত্রে থাকলেও বাস্তবে থাকবে না।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে