আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > টাইগ্রেসদের হাত ধরেই প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো বাংলাদেশ

টাইগ্রেসদের হাত ধরেই প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো বাংলাদেশ

টাইগ্রেসদের হাত ধরেই প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো বাংলাদেশ

প্রতিচ্ছবি স্পোর্টস ডেস্ক:

ভারত থেকে চরম হতাশাই উপহার দিয়েছিল পুরুষ ক্রিকেট দল। আফগানিস্তানের মত দলের কাছে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় পুড়তে হলো। চারদিকে হতাশা আর ব্যর্থতার খবরের মাঝেও যখন ক্রিকেটটা বাংলাদেশের মানুষকে আনন্দ দিতো, তখন সেই ক্রিকেটও পথ হারিয়ে বসেছিল দেরাদুনে গিয়ে।

কিন্তু পুরুষ ক্রিকেটাররা না পারুক, নারী ক্রিকেটাররা বয়ে নিয়ে এলো বাংলাদেশের জন্য দারুণ এক সু-সংবাদ। তৈরি করলো এক গৌরবোজ্জল ইতিহাস। ক্রিকেটের ইতিহাসে মেয়েদের হাত ধরেই ক্রিকেটে প্রথমবারের বহুজাতিক কোনও টুর্নামেন্টে এই প্রথম শিরোপা আসলো বাংলাদেশের ঘরে।

কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভাল মাঠে নারী ক্রিকেটের পরাশক্তি ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে নারী এশিয়া কাপের শিরোপা জিতে নিলো বাংলাদেশ।

রোববার কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভাল মাঠে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। ম্যাচটি বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টায় অনুষ্ঠিত হয়। সরাসরি সম্প্রচার করছে স্টার স্পোর্টস-১, গাজী টিভি।

ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ১২ রানে মহানন্দাকে রান আউটের ফাঁদে ফেলে টাইগ্রেসদের উল্লাসের শুরু। এরপর ২৬ রানে দীপ্তি শর্মা, ২৮ রানে মিতালি রাজ, ৩২ রানে আনুজা পাতিল ফিরে গেলে বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। সেখান থেকে অন্যপ্রান্তে উইকেট আগলে রেখে রানের চাকা সচল রাখেন হারমনপ্রীত। শেষ পর্যন্ত ৪২ বলে ৫৬ রানের ইনিংস খেলে ইনিংসের শেষ বলে ফেরত যান হারমনপ্রীত। ৫৬ রানের ইনিংসে ৭টি দর্শনীয় চার মারেন হারমনপ্রীত। বাংলাদেশের পক্ষে রোমানা ও খাদিজা ২টি এবং সালমা ও জাহানারা ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

১১৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দারুন সূচনা করে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। ৭ ওভারেই দলীয় স্কোর ৩৫ রান করেন শামীমা সুলতানা ও আয়েশা রহমান। এরপরই ছন্দপতন বাংলাদেশের । পরপর দুই বলে দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর উইকেটে এসে ফারহানা হক নিগার সুলতানকে সঙ্গে নিয়ে ২০ রানের জুটি গড়েন। এরপর আবারও উইকেটের পতন। এবার ফিরে যান ফারহানা হক। দলীয় ৮৩ রানে ফিরে যান নিগার সুলতানা।

এরপর ফাহিমা খাতুনের সঙ্গে রুমানা আহমেদ এসে উইকেটে জুটি গড়েন। কিন্তু বেশি দূর এ জুটি এগুতে পারেনি। দলীয় ৯৬ রানে ফাহিমা আউট হলে বাংলাদশের জয় পাওয়াটা অনেক দূরেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু অন্যপাশে অভিজ্ঞ রুমানা বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন। ঝুলন গোস্বামীর এক ওভারে তিনটি চার মেরে খেলাকে বাংলাদেশের হাতে নিয়ে আসেন রুমানা। মূলত ওই ওভারেই ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ঝুলন ওই ওভারে ১৭ রান দেন।

শেষ পর্যন্ত রুমানা জয় থেকে ২ রান দূরে থাকতে আউট হন। শেষ বলে জাহানারা আলম দুই রান নিলে শিরোপা জয়ের উল্লাসে মাতে বাংলাদেশ। ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ ২৩ রান ও ২ উইকেট তুলে নেয়ায় প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান রুমানা আহমেদ। আর টুর্নামেন্ট জুড়ে অসাধারণ পারফরম্যান্সের কল্যাণে প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্টের পুরস্কান পান ভারতের অধিনায়ক হারমনপ্রীত কাউর। ভারতের পক্ষে পুনম ইয়াদব ৪টি ও অধিনায়ক হারমনপ্রীত কাউর ২টি উইকেট লাভ করেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

ভারত : ১১২/৯ (২০ ওভার) (মিথালি ১১, স্মৃতি ৭, দিপ্তি ৪, কাউর ৫৬, অনুজা ৩, ভেদা ১১, তানিয়া ৩, শিখা ১, ঝুলন ১০, একতা ১*; নাহিদা ০/১২, সালমা ১/২৪, খাদিজা ২/২৩, জাহানারা ১/২৩, রুমানা ২/২২, ফাহিমা ০/৮)।

বাংলাদেশ : ১১৩/৭ (২০ ওভার) (শামিমা ১৬, আয়েশা ১৭, ফারজানা ১১, নিগার ২৭, রুমানা ২৩, ফাহিমা ৯, সানজিদা ৫, জাহানারা ২*, সালমা ০*; বিস্ট ০/১৩, শিখা ০/১০, দিপ্তি ০/১৯, অঞ্জু ০/২৩, পোনম ৪/৯, ঝুলন ০/২০, হারমানপ্রিত ২/১৯)।

ফলাফল : বাংলাদেশ ৩ উইকেটে জয়ী।

প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচ : রুমানা আহমেদ।

প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্ট : হারমানপ্রিত কাউর।

এসএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে