আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > টিকিটের জন্য কিনতে হয় সিরিয়ালও!

টিকিটের জন্য কিনতে হয় সিরিয়ালও!

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের জন্য ট্রেন ও বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। সোমবার রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিটের জন্য অপেক্ষা করেছেন যাত্রীরা। টিকিট প্রত্যাশীদের দীর্ঘ লাইন কাউন্টারের সামনে থেকে শুরু হয়ে বাহিরের অংশের দিকে গিয়ে ঠেকেছে। অনেকে আবার একটি টিকেটের জন্য ১৬ থেকে ১৮ ঘণ্টা পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন।

সোমবার (৪ জুন) সকাল ৮টা থেকে ২৬টি কাউন্টারে টিকিট বিক্রি শুরু হয়। আজ পাওয়া যাচ্ছে ১৩ জুনের আগাম টিকিট। অনেকে ১৪ জুন বৃহস্পতিবার এক দিন ছুটি নিয়েই ঢাকা ছাড়বেন। এজন্য টিকিট কিনতে আজ কমলাপুরে মানুষের উপচে পড়া ভীড়। এরইমধ্যে প্রতিটি কাউন্টারের লাইন স্টেশন চত্বর ছাড়িয়ে নিচের রাস্তা পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। বেশিরভাগই প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নেওয়ার আশায় লাইনে দাঁড়িয়েছেন। তবে কারও কারও লক্ষ্য ভিন্ন। তারা দাঁড়িয়েছেন এই মহামূল্যবান লাইনের সিরিয়াল বিক্রি করতে।

একেকজনের সিরিয়ালের দাম সর্বনিম্ন ২০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত। ১ জুন থেকে আজ পর্যন্ত অনেকেই অভিযোগ করেছেন এই জালিয়াতি নিয়ে।

কালোবাজারিরা টিকিট বিক্রিতে সুবিধা না করতে পেরে এই নতুন জালিয়াতির আশ্রয় নিচ্ছে। তারা গভীর রাতেই লাইনে দাঁড়িয়েছে। সাধারণত টিকিট কিনতে মানুষ আসেন ভোরের দিকে। সেজন্য তারা লাইনের বেশ পেছনের দিকে থাকেন। এতে কেউ লাইনের মাঝামাঝি দিকে থাকলেও কয়েক ঘণ্টা লেগে যাচ্ছে টিকিট সংগ্রহ করতে। এই সুযোগে জালিয়াত চক্রটি সিরিয়াল বিক্রি করে ফায়দা লুটছে। এদের অনেকে আবার টিকিট সংগ্রহ করে চুক্তি করা কাস্টমারের হাতে তুলে দিচ্ছে।

এদিকে সকাল ৮টা থেকে ২৬টি কাউন্টারে ১৩ জুনের টিকিট বিক্রি হয়েছে। কিন্তু শুরুর থেকেই এসি কেবিনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ টিকিট প্রত্যাশীদের। তাদের অভিযোগ, টিকিট বিক্রির শুরুর ১ ঘণ্টার মধ্যেই কাউন্টার থেকে জানানো হয়েছে এসি কেবিনের টিকিট শেষ। বেশিরভাগ কাউন্টারে থেকে এসি টিকিটের বিষয়ে এমন অভিযোগের কথা জানিয়েছেন অপেক্ষমাণ টিকিট প্রত্যাশীরা।

প্রতিটি কাউন্টারেই ছিল টিকিট প্রত্যাশীদের উপচেপড়া ভিড়। সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে উত্তরবঙ্গগামী রাজশাহী, রংপুর ও দিনাজপুর লাইনের টিকিট কাউন্টারগুলোতে। এছাড়া চট্রগ্রামগামী ট্রেনের টিকিটের লাইনও ছিল বেশ দীর্ঘ।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপনে ঢাকা ছেড়ে যেতে ৪র্থ দিনের মতো টিকিট সংগ্রহ করতে দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করছেন টিকিট প্রত্যাশীরা। বিগত তিন দিনের তুলনায় সোমবারে কমলাপুর স্টেশনে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় ছিল বেশি। আজ বিক্রি হচ্ছে আগামী ১৩ জুনের টিকিট। কাঙ্ক্ষিত টিকিট সংগ্রহের জন্য কমলাপুর স্টেশনের টিকিট কাউন্টারগুলোর সামনে কেউ মধ্যে রাত থেকে, কেউবা সেহেরির পর এসে লাইনে দাঁড়িয়েছেন।

সকাল ৮টা থেকে মোট ২৬টি কাউন্টারে আগামী ১৩ জুনের টিকিট দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে নারীদের জন্য সংরক্ষিত কাউন্টার আছে দুইটি। আগামীকাল ৫ জুন দেয়া হবে ১৪ জুনের টিকিট, এবং ৬ জুন দেয়া হবে ১৫ জুনের ট্রেনের অগ্রিম টিকিট।

টিকিট কাউন্টার থেকে জানানো হয়, একজন যাত্রী সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট সংগ্রহ করতে পারছেন। ঈদ উপলক্ষ্যে বিক্রিত টিকিট ফেরতযোগ্য নয়। সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও সোনার বাংলা ট্রেনে কোনো আসন বিহীন টিকিট ইস্যু করা হবে না। অন্যান্য ট্রেনের ক্ষেত্রে শুধু যাত্রীদের অনুরোধে যাত্রার দিন আসন বিহীন টিকিট ইস্যু করা হবে।

 

এসএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে