আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > আইসল্যান্ডে ২২ ঘণ্টা পর ইফতার!

আইসল্যান্ডে ২২ ঘণ্টা পর ইফতার!

প্রতিচ্ছবি আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

রমজান আসে ধীরতার বার্তা নিয়ে। এসময়ে সিয়াম সাধনায় পানাহার বর্জন করে ধৈর্যের কঠিন পরীক্ষা দেয় মুসলিম উম্মাহ। তবে স্থানভেদে এ উপবাস ধৈর্য পরীক্ষার রয়েছে তারতম্য। কেননা পৃথিবী জুড়ে কেউ উপবাস করছেন দীর্ঘ ২১ ঘণ্টা। আর কারও উপবাস অতিক্রম করছে না ১০ ঘণ্টাও। আবার ৯-২১ ঘণ্টার মাঝামাঝিতেও রয়েছে কোনো কোনো দেশ।

সবচেয়ে দীর্ঘ রোজা রাখছেন আইসল্যান্ডের ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা। আইসল্যান্ডে বছরের এই সময়ে দিন থাকে অনেক দীর্ঘ। কয়েক দিন পর দিন আরও দীর্ঘ হবে। পবিত্র রমজানের সময় আইসল্যান্ডে তাই রোজা রাখতে হয় দীর্ঘ সময়। এখন দিনের ব্যাপ্তি প্রায় ১৯ ঘণ্টা। সেই হিসাবে রোজাও রাখতে হচ্ছে ওই সময় পর্যন্ত। সেখানে যাঁরা রোজা রাখছেন, রমজানের শেষের দিকে তাঁদের দীর্ঘ ২২ ঘণ্টা রোজা রাখতে হবে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদনে জানানো হয়, রমজানের শেষের দিকে আইসল্যান্ডে রোজার সময় ২২ ঘণ্টা হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আইসল্যান্ডে এখন রাত ১১ টার দিকে সূর্য অস্ত যায়। সূর্যোদয় হয় ভোর ৪টায়। রোজা রাখেন এমন মুসলিম ব্যক্তিরা সেখানে খুব অল্প সময় পান খাওয়ার জন্য।

পাঁচ বছর আগে পাকিস্তান থেকে আইসল্যান্ড পাড়ি জমান সুলেমান। তিনি বলেন, আমি প্রায় ২২ ঘণ্টা ধরে রোজা পালন করছি। কারণ ইসলামে আপনাকে সুবেহ সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকতে হয়। আমার বিশ্বাসই আমাকে কাজটা সহজ করে দিচ্ছে। এটা খুব সহজ। এটা সহজাত হয়ে যায়। এটা আপনার দিন ও রুটিনের অংশ হয়ে যায়।

তবে সবার পক্ষে এই দীর্ঘ সময় রোজা পালন সহজসাধ্য নয়। যেমনটা বলছিলেন রাজধানী রিকজাভিকের একটি ছোট কমিউনিটির ইমাম মনসুর।

তিনি বলেন, দেরি করে সূর্যাস্তের কারণে আমরা ১৮ ঘণ্টা রোজা পালন করি। আমরা যখন রোজা সম্পর্কিত কোরআনের আয়াত পড়ি, সেখানে লিখা আছে, আল্লাহ আমাদের জন্য সব কিছু সহজ করতে চান।

মনসুর বলেন, আমরা এমনও ঘটনা শুনেছি যে কেউ কেউ দীর্ঘ সময়ের কারণে অজ্ঞান হয়ে গেছেন।

ইয়ামান নামের আরেকজন, যার রিকজাভিকে একটি কাবাবের রেস্তোরাঁ রয়েছে। তিনি বলছিলেন, আপনি যখন কোনো কিছু বিশ্বাস করেন, তখন আপনি সেটি করেই ছাড়েন।

ভৌগোলিক কারণে আইসল্যান্ডে বছরের এই সময়টায় দিন বেশ দীর্ঘ। সেখানে রাত ১১টায় সূর্য অস্ত যায় আর ভোর ৪টায় উদয় হয়। তাই রাতে খাবার খাওয়ার জন্য মাত্র দুই ঘণ্টা সময় পান সেখানকার রোজাদাররা।

তবে শুধু আইসল্যান্ডেই নয় সুইডেনের সর্ব উত্তরের শহর কিরানা এবং নরওয়ের ট্রোমসোর মুসলিমদেরও ২২ ঘণ্টা রোজা পালন করতে হচ্ছে। আর হেলসিংকি, স্টকহোম, অসলো এবং কোপেনহেগেন শহরের বাসিন্দারা রোজা পালন করছেন প্রায় ২০ ঘণ্টার।

এসএইচ 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে