আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > ঢাবি শিক্ষিকার খামখেয়ালিতে ছাত্র পেল ‘পাঁচের মধ্যে ৭’

ঢাবি শিক্ষিকার খামখেয়ালিতে ছাত্র পেল ‘পাঁচের মধ্যে ৭’

ঢাবি শিক্ষিকার খামখেয়ালিতে ছাত্র পেল 'পাঁচের মধ্যে ৭'

প্রতিচ্ছবি  প্রতিবেদক:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্রকে ক্লাস উপস্থিতিতে ৫ এর মধ্যে ৭ নম্বর দেয়া মত ঘটনার জন্ম দিলেন ঐ বিভাগের শিক্ষক। এছাড়া বিভাগের ২১ শিক্ষার্থীকে ক্লাস উপস্থিতিতে দেয়া হয়েছে শূন্য (০) মার্ক। এ নিয়ে বিভাগটির শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হলে। এটিকে ‘প্রিন্টিং মিসটেক’ বলে দাবি করেন কোর্সের শিক্ষক।

সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের পঞ্চম সেমিস্টারের ‘অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া ও প্রতিষ্ঠান’ নামক কোর্সে এ ঘটনা ঘটেছে। ওই কোর্সের কোর্স শিক্ষিকা বিভাগের প্রভাষক আমিনা খাতুন রিংকি। পঞ্চম সেমিস্টারের ছাত্র মো. মনির হোসেনকে এই অতিরিক্ত নম্বর দিয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগের সুরে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিভাগটির কয়েকজন শিক্ষক এভাবে খামখেয়ালি করে আসছেন। আছে অঞ্চল বৈষম্যও। ওই শিক্ষিকা ক্লাস উপস্থিতি গণনা না করে অনুমান নির্ভর হয়ে নম্বর দিয়েছেন। ক্লাসে উপস্থিত থেকেও উপস্থিতির নম্বর পাননি অনেকে।

এ বিষয়ে তারা বিভাগের চেয়ারম্যান বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিবেন বলে জানান।

তারা আরও জানান, অভিযুক্ত শিক্ষিকা কোর্সের সহকারী শিক্ষক আবদুল খালেকের ক্লাস উপস্থিতি গণনা করেননি বলে এমনটি হয়েছে। ওই শিক্ষিকা শিক্ষার্থীদেরকে শিট দেখে দেখে ক্লাসে লেকচার প্রদান করেন। এছাড়া নির্দিষ্ট সময়সূচী অনুযায়ী ক্লাস নেওয়ার কথা থাকলেও  বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে তিনি অর্ধেক ক্লাস নিয়েছেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষিকা আমিনা খাতুন রিংকি সাংবাদিকদের বলেন, এটা প্রিন্টিং মিসটেক। এটার সংশোধনীর সুযোগ আছে। যেসব সমস্যা হয়েছে ঠিক করা হবে।

বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক মফিজুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীদের দেখানোর জন্য এই ফলাফলটা দেওয়া হয়। এখানে সংশোধনের সুযোগ আছে। তারা যেসব অভিযোগগুলো করছে তা সংশোধন করা হবে।

 

ইএ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে