আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > ভারতে বাসে প্রকাশ্যে ‘অসভ্যতা’; ব্যক্তি আটক

ভারতে বাসে প্রকাশ্যে ‘অসভ্যতা’; ব্যক্তি আটক

Asit

প্রতিচ্ছবি আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

সম্প্রতি বাসে প্রকাশ্যে অসভ্যতা নিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন প্রিয়াঙ্কা দাস নামের একটি মেয়ে। বাসে করে বাড়িতে ফিরছিলেন তিনি। যাত্রাপথে পাশের যাত্রী করছিলেন অসভ্যতা।

কৌশলে ধারণ করেন সেই ‘অসভ্যতা’র ভিডিও। এরপর বাসে সাহায্য চেয়েও পাননি প্রিয়াঙ্কা। ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অর্ধকোটির বেশি মানুষ ভিডিওটি দেখে। এরপর টনক নড়ে কলকাতা পুলিশের।

প্রিয়াঙ্কা বলেন, আমি আর আমার এক বন্ধু আজ সকালে নাগা হেদুয়া থেকে বাড়ির পথে ফিরছিলাম বাসে। হঠাৎ বাসের মধ্যে দেখি এই লোকটি আমাদের দিকে তাকিয়ে অভদ্রতা করছে সবার সামনে। তবুও কেউ কোনো প্রতিবাদ জানালো না। শেষমেষ কনডাক্টরকে বলতে কন্ডাক্টর হেসে বলে ‘কী  করবো বলুন কার মনে কী আছে কি করে বুঝবো?’

তিনি বলেন, আমি চিৎকার করলাম বাসে, উনাকে ধরুন উনি আমাদের সাথে অভদ্রতা করছেন, কেউ একটাও প্রতিবাদ করলো না। এই ঘটনা ১৫ দিন আগেও ঘটেছিল তখন ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। তাই প্রতিবাদ করিনি। এখন করলাম। বিচার চাই।

প্রিয়াঙ্কা বলেন, এর আগের দিন এরচেয়েও বাজেভাবে অভদ্রতা করেছিল। সেদিন প্রতিবাদ ছিল না। আজ প্রমাণ নিয়ে এসেছি।

প্রিয়াঙ্কা দাস জানান, সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ার পর কলকাতা পুলিশ এগিয়ে আসে। এজন্য তিনি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এদিকে প্রিয়াঙ্কার এই সাহসী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন নেটিজেনরা।

প্রিয়াঙ্কা দাসের এই অভিযোগ অনুযায়ী, ওই ব্যক্তি এর আগেও হেদুয়া থেকে দমদমগামী ৩০বি/‌১ বাসে উঠে এই অশালীন কাজ করেছেন। শনিবার প্রিয়াঙ্কা ভিডিও করে রাখেন এবং পুলিশকে ভিডিও সমেত গোটা বিষয়টি জানান। প্রিয়াঙ্কার কাছ থেকেই পুলিশ জানতে পারে যে ওই ব্যক্তি দু’‌দিনই শ্যামপুকুর থানা এলাকার বাস স্টপেজে নেমে যায়। প্রিয়াঙ্কার কাছ থেকে এই গুরুত্বপূর্ণ তথ্যটি জানার পরই পুলিশ শ্যামপুকুর থানাকে ওই ব্যক্তির ছবি পাঠায় এবং দ্রুত খোঁজ চালাতে বলে। স্যামপুকুর থানার ২ জন অফিসার অভিযুক্তকে চিনতে পারে। এরপরই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পেশায় হকার ওই ব্যক্তির নাম অসিত রায়। অভিযুক্ত বৈদ্যবাটির বাসিন্দা। কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে ফেসবুকে অভিযুক্তের ছবি দিয়ে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে, ধৃতের বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তবে এই ঘটনার মধ্য দিয়ে কলকাতা পুলিশ আবারও প্রমাণ করল ফেসবুকে যে কোনও অভিযোগকেই যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারেই পুলিশ দেখে এবং তার প্রতিকারের জন্য দ্রুত ব্যবস্থাও গ্রহণ করে।

Kolkata Police statement

এর আগেও এরকম বহু ঘটনা শুধুমাত্র ফেসবুকের মাধ্যমেই অভিযোগ দায়ের হয়েছে তা গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখে তৎপরতার সঙ্গে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই আইন-শঙ্খলা বাহিনী এমন চর্চা শুরু করেছে।

জেএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে