আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > হাওর বোর্ড অথর্ব: আলাদা মন্ত্রণালয় করার দাবি

হাওর বোর্ড অথর্ব: আলাদা মন্ত্রণালয় করার দাবি

jolavomi
হাওরাঞ্চলে বন্যার বিষয়ে ভারতের সাথে আলোচনা দরকার বলে মনে করে  হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম (হ্যাপ) ।
সংগঠনটির উপদেষ্টা মোস্তফা জব্বার বলেন, হাওরের অকাল বন্যার জন্য ভারতের সঙ্গে কোন দিন আলোচনা করা হয়নি। কিন্তু প্রতি বছর হাওরে ভারতের ঢলের কারণে বন্য হয় । এ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে কথা বলে সমাধানে আসা দরকার।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ছোট মিলনায়তনে  হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম (হ্যাপ) আয়োজিত ‘হাওরের ফসল রক্ষা বাধের বিপর্যয়, পূনর্বাসন সংক্রান্ত তথ্য ও করনীয়’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন তিনি।

হাওরের ২ কোটি মানুষের দুর্ভোগ রোধে হাওর উন্নয়ন অধিদপ্তর যথেষ্ট নয় বলেও মনে করেন মোস্তফা জব্বার। বলেন, ছোট ছোট কাজের জন্য বিভাগ কিংবা মন্ত্রণালয় গঠন করা হয়। হাওরের জন্য একটা মন্ত্রণালয় করা উচিত।

তিনি বলেন, হাওর উন্নয়ন বোর্ডের মত অথর্ব প্রতিষ্ঠান আর একটিও নেই। ২ কোটি মানুষের জন্য তারা উপযুক্ত নয়।

হাওর উন্নয়ন অধিদপ্তরককে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের অধিনে দুটি বোর্ড গঠন কিংবা আলাদা মন্ত্রণালয় গঠন করার সুপারিশ করেন এই প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ।hawor-flood-bangladesh

হাওরের অতি দারিদ্ররা সরকারের ত্রাণ পাচ্ছে, কিন্তু মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো পাচ্ছে না এমন অভিযোগ করেন তিনি।  হাওর বিপর্যস্ত হওয়ার কারণে দেশের খাদ্য নিরপত্তা  চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সরকারি কর্মকর্তাদের অনেকে বলছে, কিছু হবে না। এসব কথা বলে কোন লাভ হবে না। হাওরের বন্যার কারণে চাল আমদানি করতে হচ্ছে।

হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম (হ্যাপ) এর পক্ষ থেকে সুপারিশ জানানো হয়েছে, দাদনের হাত থেকে হাওরবাসীকে রক্ষা করতে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে। সেই সাথে মাঘ মাসের মধ্যে বাধ নির্মাণ শেষ করারও দাবি জানানো হয়। একই সাথে হাওরে এ বছর মাছ চাষের জন্য লিজ না দেয়ারো অনুরোধ জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলন থেকে।

সরকারের ভালো উদ্যোগ সমন্বয়হীনতায় যাতে নষ্ট না হয়, এ জন্য একটি শক্তিশালী মনিটরিং সেল গঠন করার প্রস্তাব দিয়েছে হ্যাপ।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুজ্জামান শরিফ। উপস্থিত ছিলেন আমিনুল ইসলাম, সদস্য সুবল দাস ও এ কে এম মুসা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে