আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > বন্ধু তোমার লালটুকটুকে স্বপ্নগুলোকে বেঁচোনা

বন্ধু তোমার লালটুকটুকে স্বপ্নগুলোকে বেঁচোনা

বন্ধুনীড়

বেনজির আবরার

“পরার্থে মোরা এগিয়ে যাবো, দেশকে গড়বো নিজেদের মত করে ” এমন ভাবনাকে কেন্দ্র করে কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “বন্ধুনীড়”।

রাজধানীর একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বন্ধুদের একটি দলের নাম বন্ধুনীড়। বন্ধুনীড়ের স্বপ্নটা দেখেছিলেন দুই বন্ধু- বেনজির আবরার আর মনিরুল ইসলাম। তারা নিজেরা আলোচনা করে ব্যাচে যাদের নিয়ে স্বেচ্ছাসেবী কাজ করা যায় এমনদের নিয়ে মগবাজার ডাক্তারগলির ছোট্ট মেসরুমে প্রথম মিটিং করেন, কি করা যায় তা নিয়ে!

১৪ জনের টিমটা সিদ্ধান্ত নিলো তারা নতুন কিছু করবে,  সেটা নিজেদের জমানো অর্থে। তিনটা বিষয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত আসলো, প্রথমত রক্তদান, দ্বিতীয়ত সুবিধাবঞ্চিত শ্রেনীর পাশে দাঁড়ানো আর শেষে বন্ধুত্ব। তিনটারই আলাদা কারন আছে বলে জানা গেলো সংগঠনের আপ্যায়নবিষয়ক সম্পাদক হাসান মাহমুদের

কাছে।হাসান জানালেন, ” আমরা চেষ্টা করেছি নিজেদের বন্ধুত্বকে আরো শক্ত করার তাগিদে নিজেদের সদস্যদের মধ্যে রক্তদানের মানসিকতা সৃষ্টি আর নিজেদের জমানো অর্থে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে কাজ শুরু করি ২০১৫ তে।”

সংগঠনটির অন্য বন্ধুরা হলেন- আলাউদ্দিন রুমেল, সজিব হোসাইন, নিলয় আহমেদ, অজয় ঘঠক, খায়রুল আলম,রিফাত আহমেদ, হাসান সাকিব, তানভীর রেজা, তুহিন আরেফিন, দ্বীন মোহাম্মদ দুখু, রিতুল, ইভান,কানন মাহমুদুল।

সফলতার পথে আছে তারা। ইতোমধ্যেই ছোট্ট এই সংগঠনটি বড় বড় বেশকিছু কাজ করেছে। যাত্রার প্রথমে রমজানে পথশিশুদের সাথে টানা দুদিন ইফতার করে বন্ধুনীড়, এরপর বিজয় দিবসে রমনার পথশিশুদের হাতে বাংলাদেশের পতাকা তুলে দেয়া, অমর একুশে তে বইমেলায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, রাজধানীর মান্ডায় পঞ্চাশটি পরিবারের কাছে ঈদের ড্রেস, সেমাই বিতরণ, হাতিয়া দ্বীপে কম্বল বিতরন এবং মেডিক্যাল ক্যাম্প, বিজয় দিবসে রমনার একটি মাদ্রাসার এতিম শিশুদের সাথে দুপুরের খাবার, বাগেরহাটে শীতবস্ত্র বিতরণসহ আরো কিছু স্বেচ্ছাসেবী কাজ করে গত তিনবছরে। এরমধ্যেই গত ২৬শে ফেব্রুয়ারী বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে “বন্ধুনীড়ের ৩য় জন্মদিন এবং সুপা সাদিয়ার সাথে আড্ডা” শীর্ষক একটি আয়োজন করে তারা।

আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন বিএফইউজে মহাসচিব মো.ওমর ফারুক। আড্ডায় অংশ নেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক, লেখক সুপা সাদিয়া, দুইবারের জাতীয়  সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগীতার চ্যাম্পিয়ন শাকিল রেজা ইফতী।  দুর্দান্ত এমনসব কাজে দেশ ও সমাজের উপকারে আসবে ভেবেই কাজ করেন বলে জানালেন বন্ধুনীড়ের প্রধান সমন্বয়ক বেনজির আবরার। কন্ঠে কন্ঠ মিলিয়ে সংগঠনটির সভাপতি মনিরুল ইসলাম বললেন, ” বাংলাদেশটা আমাদের সবার। নিজেদের দায়িত্ব এড়িয়ে না চলার মানসিকতা কে প্রাধান্য দিতে পারাটাই আমি ও আমার বন্ধুদের কাজ। এরমধ্যেই অসহায় বেশ কিছু পরিবারের চোখ ভেজা আনন্দাশ্রু দেখে কাজের ইচ্ছেটা বেড়েছে।

প্রতিষ্ঠাতা কমিটির অনেকেই শুরু করেছেন চাকুরী, নতুন কিছু সদস্যদের যুক্ত হওয়া কাজের প্রতি আগ্রহ স্বপ্ন দেখাচ্ছে আসন্ন সময়ে দারুন কিছু কাজ করার। এবছরের বাকি কার্যক্রম সম্পর্কে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাসান সাকিব জানালেন,” সবার স্বকীয় বুদ্ধি ও স্বীয় ইচ্ছায় সংগঠনটির এবছরের কিছু কার্যক্রম হাতে রাখা হয়েছে।ছেলেগুলোর দারুন সব কাজের মধ্যে সমাজের অসম্ভব, অপ্রতুলতা আর মানবিক সম্পর্কের উন্নয়নের এক অভিনব চেতনা।

বন্ধুনীড়ের সদস্যদের কথায় জানা গেলো, “এগিয়ে যাবার দূর্নিবার মন্ত্র তাদের।ঠিক যেন বন্ধু তোমার লাল টুকটুকে স্বপ্নগুলোকে বেঁচোনা”।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে