আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > শিশু আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা; বিশেষ আদালতের দাবি জনতার

শিশু আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা; বিশেষ আদালতের দাবি জনতার

শিশু আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা

প্রতিচ্ছবি আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কাঠুয়া অঞ্চলের যাযাবর মুসলিম বাকারওয়াল গোষ্ঠীর ৮ বছর বয়সী মেয়ে আসিফা বানুকে ধর্ষণ ও হত্যায় জড়িতদের বিচারে বিশেষ আদালত প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছেন কাশ্মিরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুস্থান টাইমস-এর খবরে বলা হয়েছে, শনিবার জম্মু ও কাশ্মির উচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতিকে ওই দ্রুত বিচার আদালত প্রতিষ্ঠার অনুরোধ জানিয়েছেন মেহবুবা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতীয় স্বরাষ্ট্র দফতরের এক সূত্রকে উদ্ধৃত করে হিন্দুস্থান টাইমস জানিয়েছে, এমন আদালত প্রতিষ্ঠা করা গেলে ৯০ দিনের মধ্যে আসিফা ধর্ষণ ও হত্যার বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব।

আসিফাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এক সরকারি কর্মকর্তাসহ চার পুলিশ সদস্যকে অভিযুক্ত করেছে ভারতের আদালত। মধ্য জানুয়ারির ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মঙ্গলবার দিন অভিযোগপত্র জনসম্মুখে আনা হয়। জানুয়ারিতে এ নিয়ে তেমন উত্তেজনা না হলেও এ ঘটনায় অভিযোগপত্র দেওয়ার পর সোচ্চার হয়ে উঠেছে বলিউডসহ সারা ভারত।

হিন্দুস্থান টাইমস জানিয়েছে, মেহবুবার নেতৃত্বাধীন জম্মু ও কাশ্মিরের সরকার অভিযুক্ত চার পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরা হলেন, উপ-পরিদর্শক আনন্দ দত্ত, প্রধান কনস্টেবল তিলক রাজ, বিশেষ পুলিশ কর্মকর্তাদীপক খাজুরিয়া ও সুরেন্দর ভারমা।

উল্লেখ্য, কাঠুয়ার উপত্যকায় ঘোড়া চড়ানোর সময় অপহরণ করা হয় আসিফাকে। আদালতে দায়ের করা মামলার বিবরণ অনুযায়ী, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা সানজি রাম তার ভাগ্নে ও একজন পুলিশ সদস্যকে আশফিয়া নামের ওই শিশুকে অপহরণের নির্দেশ দেয়। নির্দেশ বাস্তবায়নের পর মন্দিরে আটকে রেখে তিন দিন ধরে একদল হিন্দু পুরুষ ধর্ষণ করে আসিফাকে। পরে মাথায় পাথর মেরে ও গলা টিপে হত্যা করা হয় তাকে। ঘটনার দ্রুত বিচার নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়ে মেহবুবা তার বিবৃতিতে বলেন: ‘এই ঘটনা একশ কোটিরও বেশি জনসংখ্যার ভারতবর্ষের জন্য একটি নৈতিক, রাজনৈতিক ও মানবিক চ্যালেঞ্জ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। এর যথাযথ ও সমুচিত জবাব দিতে বিন্দুমাত্র দেরি করার উপায় নাই।’

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৩ এপ্রিল) ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘটনাটি নিয়ে শেষ পর্যন্ত মুখ খোলেন। বিরোধীরা তার নীরব থাকা নিয়ে সমালোচনা শুরু করার পরই মোদির এই অবস্থান প্রকাশ। তাও বক্তব্য ছিল একেবারে সংক্ষিপ্ত। কয়েকটি টুইটে তিনি বলেছেন, ধর্ষণের ঘটনায় দেশ লজ্জিত এবং আমাদের মেয়েরা অবশ্যই ন্যায় বিচার পাবে। ঘটনাটির বিস্তারিত প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ক্ষোভও বাড়তে থাকে। ভারতের অনেক বড় বড় চলচ্চিত্র তারকা তাদের ক্ষোভ জানাতে সামাজিক মাধ্যমে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

জানুয়ারিতে যখন ঘটনাটি ঘটে তখন মেয়েটির মৃত্যু সংবাদ কাশ্মিরের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ছাড়া কোথাও স্থান পায়নি। শ্রীনগরে বিক্ষোভ করে বিশেষ তদন্তের দাবি জানানো হয়। এই নৃশংস অপরাধটি জম্মু ও কাশ্মির উপত্যকায় হিন্দু-মুসলিম বিভাজনকে সামনে নিয়ে আসে। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ উপত্যকায় ঘটনাটি দ্রুততা ও পারদর্শিতার সঙ্গে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে আড়াল করা হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে।

ভারতের সিপিআই(এম)-্এর পলিটব্যুরোর সদস্য ও রাজ্যসভার সাবেক এমপি ব্রিন্দা কারাত ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ড নিয়ে এক কলামে লিখেছেন, ‘ওই শিশুর ওপর সংঘটিত বীভৎস নৃশংসতার যে ভয়াবহ বিবরণ চার্জশিটে উঠে এসেছে, তা জেনে কোনও সত্যিকারের মানুষের পক্ষে কি চুপ করে থাকা সম্ভব? দোষীরা যে চূড়ান্ত নগ্ন নিপীড়ন চালিয়েছে, তাতে এমন কে আছে যে রাগে-ক্ষোভে ফেটে পড়বে না? তারা তাকে (আসিফাকে) গুম করেছে, চৈতন্যহীন বানিয়ে ধর্ষণ করেছে, মিরাট থেকে একজন সহযোগীকে ডেকে এনেছে বিকৃত যৌন বাসনা চরিতার্থ করতে… তারা তাকে খুন করা থেকে সাময়িকভাবে বিরত থেকেছে কেবল এই কারণে যে, তাদের একজন তাকে পুনর্বার ধর্ষণ করতে চেয়েছিল।’

জেএস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে