আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর হ্যাক হওয়া ওয়েবসাইট সচল

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর হ্যাক হওয়া ওয়েবসাইট সচল

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর হ্যাক হওয়া ওয়েবসাইট

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

হ্যাক হওয়ার প্রায় ছয় ঘণ্টা পর দেশের অধিকাংশ ‍গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ওয়েবসাইট উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ এপ্রিল) রাত থেকেই সরকারের সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলো সাইটগুলো উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে এবং কিছু কিছু সাইট এরই মধ্যে লাইভ (সচল) করা গেছে বলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

বুধবার (১১ এপ্রিল) সকাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইট, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বঙ্গভবন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইটে ঢোকা গেছে।

মঙ্গলবার রাত ১০টার দিক থেকে বেশ কয়েকটি সরকারি সাইটে ব্রাউজ করলে সেগুলো হ্যাক হয়েছে বলে দেখাচ্ছে। হ্যাকাররা ওই সাইটগুলো হ্যাক করার পর সেখানে উপরে শিরোনাম হিসেবে ‘হ্যাকড বাই বাংলাদেশ’ এবং তার নিচে বাংলাদেশের পতাকা হাতে শাহবাগে আলোচিত প্রতিবাদীর ছবি দেয়া হয়েছে।

রাত ১০টার দিকে বঙ্গভবনের ওয়েবসাইট (bangabhaban.gov.bd), প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইট (www.pmo.gov.bd), জাতীয় সংসদের ওয়েবসাইট (parliament.portal.gov.bd), স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট (www.mha.gov.bd) বিসিএস প্রশাসনের ওয়েবসাইট (bcsadminacademy.gov.bd) এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে (moa.gov.bd) গেলে একই দৃশ্য দেখা যায়।

ছবির নিচে হ্যাশট্যাগ দিয়ে Reform Quota BD, Stop the Genocide, Reform Quota System, Bangladesh, Student Protest, United WE Stand, No_Private or Publice Discrimination, Aamrai BANGLADESH এ ধরনের বেশ কিছু স্লোগান লেখা হয়।

হ্যাক হওয়া সাইটের মধ্যে ছিল, বঙ্গভবন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, পার্ব্যত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ধর্ম মন্ত্রণালয়, ভূমি মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়, যুব ও ক্রিয়া মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, শ্রম ও কর্ম সংস্থান মন্ত্রণালয়, অ্যাটর্নি জেনারেল, কন্ট্রোলার জেনারেল, আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা ইনস্টিটিউট, বিসিএস প্রশাসনের ওয়েব সাইটসহ আরও কয়েকটি।

এসময় ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘মোরা ঝঞ্ঝার মত উদ্দাম’ গানটি বাজছিল।

এদিকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার মঙ্গলবার রাতে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ‘আমরা দু’টি বিষয় ধারণা করছি। একটি হলো যারা কোটা সংস্কারের পক্ষে আন্দোলন করছে তারা হ্যাক করে থাকতে পারে। দ্বিতীয়ত, এটা শুধু বাংলাদেশের আক্রমণ নয়, এই আক্রমণ সারাবিশ্বে হয়েছে। সিসকোতে একটা ত্রুটির কারণে এটা হয়েছে। দু’দিন আগে থেকেই বিশ্বে এই সমস্যা শুরু হয়েছে। আমাদের যাদের সতর্ক থাকার প্রয়োজন ছিল, তারা সচেতন ছিলেন না। ফলে এটা ঘটে থাকতে পারে। এই সময় ও সুযোগটাকে কাজে লাগানো হয়েছে। আমরা কোনও বিষয়কেই উড়িয়ে দিচ্ছি না। আমাদের প্রথম কাজ হলো সাইট ফিরেয়ে আনা। সেই কাজ এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে।’

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার দাবিতে রোববার দুপুরে পূর্বঘোঘিত গণপদযাত্রা শেষে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। পরে রাত ৮টার দিকে তাদের ওপর পুলিশ চড়াও হলে সংঘর্ষ শুরু হয়। সোমবার সকাল পর্যন্ত পুলিশ ও ছাত্রলীগের সঙ্গে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থী আহত হন। এছাড়া শতাধিক আন্দোলনকারীকে আটক করা হয়।

কোটা সংস্কারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্পষ্ট ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আগের মতো আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যেতে মঙ্গলবার ঐক্যবদ্ধ ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারীরা। সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ ঘোষণা দেয় শুরু থেকে আন্দোলনের নেতৃত্ব দেয়া কমিটি।

কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা আসতেই হাজার হাজার শিক্ষার্থী ফের রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হতে থাকেন। নিয়মিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাত ৯টা পর্যন্ত মিছিল আর স্লোগানে তারা গোটা ক্যাম্পাস মুখরিত করে রাখেন।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে