আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > আজ ১ মিনিট অন্ধকার থাকবে দেশ

আজ ১ মিনিট অন্ধকার থাকবে দেশ

আজ ১ মিনিট অন্ধকার থাকবে দেশ

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

আজ বিভীষিকাময় ভয়াল ২৫ মার্চ। একাত্তরের এই দিনে ইতিহাসের নৃশংসতম গণহত্যার নজির স্থাপন করেছিল পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। রাজধানী ঢাকায় সারাদিনের কাজ শেষে নিরীহ মানুষ যখন ঘরে ফিরে ঘুমিয়ে ছিলেন, তখন তাদের হত্যার জন্য পথে নামে হানাদার পাকিস্তানি সেনার ট্যাঙ্ক আর সাঁজোয়া বহর। হিংস্র শ্বাপদের মতো ধেয়ে যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পুলিশ ও ইপিআর ব্যারাকের দিকে। শুরু হয় কুখ্যাত ‘অপারেশন সার্চলাইট’। এক রাতেই সেদিন বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে লাখো বাঙালিকে হত্যা করা হয়।

গত বছর ২৫ মার্চকে জাতীয় গণহত্যা দিবস ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এ উপলক্ষে আজ রোববার কালরাতে গণহত্যা স্মরণে দেশব্যাপী এক মিনিট নীরবতা পালনের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। কেপিআইভুক্ত এলাকা ছাড়া সারাদেশের মানুষ রাত ৯টা থেকে ৯টা ১ মিনিট পর্যন্ত দাঁড়িয়ে সব আলো নিভিয়ে একসঙ্গে নীরবতা পালন করবেন। তবে প্রতীকী এই ব্ল্যাক আউটের সময় জরুরি স্থাপনাগুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ ঠিকই থাকবে। গত ১১ মার্চ সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এরই মধ্যে সরকারের এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে চিঠি পাঠিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। চিঠিতে জানানো হয়েছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জননিরাপত্তা বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, তথ্য মন্ত্রণালয়, গণযোগাযোগ অধিদপ্তর এবং সব জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) মাধ্যমে গণহত্যা দিবসে এক মিনিট ব্ল্যাক আউট কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে।

দিবসটি উপলক্ষে গতকাল শনিবার এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, ২৫ মার্চের গণহত্যা শুধু বাংলাদেশেরই নয়, বিশ্বমানবতার ইতিহাসেও একটি কালো অধ্যায়। সেই কালরাতে বাংলার মাটিতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী যে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল, তা ছিল বিংশ শতাব্দীর নৃশংসতম গণহত্যা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বাণীতে বলেন, ২৫ মার্চকে ‘গণহত্যা দিবস’ হিসেবে পালন প্রকৃত অর্থে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের আত্মাহুতির প্রতি জাতির চিরন্তন শ্রদ্ধা স্মারক। এটা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নারকীয় হত্যাকাণ্ডের সাক্ষ্য হিসেবে বিবেচিত হবে। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে তার সরকার সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতে অপারেশন সার্চলাইটের নামে গণহত্যা শুরু হওয়ার পরবর্তী নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে হত্যা করা হয় ৩০ লাখ মানুষকে। সল্ফ্ভ্রম হারান দুই লাখেরও বেশি নারী। এদিকে জাতীয় গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতির দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও।

এসএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে