আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > রাজনীতি > ‘জাতির এমন অর্জনে শুভেচ্ছা জানাতে লজ্জা পায় বিএনপি’

‘জাতির এমন অর্জনে শুভেচ্ছা জানাতে লজ্জা পায় বিএনপি’

‘জাতির এমন অর্জনে শুভেচ্ছা জানাতে লজ্জা পায় বিএনপি’

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ায় দেশের মানুষ খুশি থাকলেও বিএনপি রাজনৈতিক দৈন্যতা এবং হীনমন্যতার কারণে দেশ জাতি ও সরকারকে অভিনন্দন জানাতে ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং দলের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘মহান স্বাধীনতা দিবস ও চলমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা এক সময় দরিদ্র ছিলাম কিন্তু এখন দরিদ্র নই। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছি। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে দেশ ১৪-১৫ বছরের মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে উন্নত দেশে পরিণত হত। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার কারণে তিনি সেটা করে যেতে না পারলেও তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে দেশ এখন আরো একধাপ এগিয়ে গেছে। তাই বিএনপি দেশের সরকারকে অভিনন্দন জানাতে লজ্জা পেলেও দেশের জনগণকে অভিনন্দন জানানো উচিৎ ছিল। কিন্তু তারা দেশ ও জাতিকে অভিনন্দন জানাতে ব্যর্থ হয়েছেন। এতে বিএনপির দৈন্যতা, রাজনৈতিক হীনমন্যতার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।

বিএনপি বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করে জাতিকে অপমানিত করেছে বলে মন্তব্য করে সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আমরা দেখলাম বিএনপি গতকাল বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছে নালিশ দেয়ার জন্য। উনাদের কাজ হচ্ছে বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করে দেশের বিষয় নিয়ে নালিশ দেয়া। এ সময় তিনি ছন্দ মিলিয়ে বলেন, ভাইয়ে ভাইয়ে যখন ঝগড়া হয় তখন কেউ যদি চেয়ারম্যানের কাছে নালিশ দেয় তখন সে পরিবারের দুর্ণাম হয়। আমাদের মধ্যে রাজনৈতিক মতপার্থক্য, মতানৈক্য থাকবে। সেগুলো আমরাই আলোচনা করে সমাধান করবো। এগুলো আমাদের ঘরোয়া ব্যাপার। কিন্তু এগুলো বিদেশিদের কাছে যারা নিয়ে যান তারা জাতিকে অপমানিত করেন। আপনাদের যদি নালিশ দিতে হয় তাহলে দেশের জনগণকে দিন, বিদেশিদের কাছে নয়।আর এ গুলোর কারণে বিএনপি কে অনেকে এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টি বলা শুরু করেছে।

‘বাংলাদেশে ২৭ লাখ বেকার রয়েছে’ বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদের সাম্প্রতিক বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে যদি ২৭ লাখ বেকার হয় তাহলে আমি হিসাব করে দেখলাম ১.৬ শতাংশ বেকার। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রে বেকারের সংখ্যা ৭ শতাংশের উপরে, ইউরোপীয় ইউনিয়নে বেকার সংখ্যা ৮ শতাংশের উপরে। আর সেখানে মওদুদ আহমেদের হিসেব অনুযায়ী বাংলাদেশে বেকার সংখ্যা রয়েছে মাত্র ১.৬ শতাংশ। এই জন্য সরকারকে বরং অভিনন্দন জানানো উচিৎ ছিল আপনার। যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়ে বাংলাদেশে বেকার সংখ্যা কম। এটি হচ্ছে বর্তমান সরকারের সফলতা।

খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবী নিয়োগের কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বেগম জিয়া এবং তারেক জিয়ার তাদের আইনজীবীদের ওপর কোনো আস্থা নাই। সেজন্যই তারা ব্রিটিশ আইনজীবী ভাড়া করেছেন। যিনি যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং মীর কাসেম আলীর আইনি পরামর্শক ছিলেন। ব্রিটেনে এতো আইনজীবী থাকতে কেন যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নিয়েছিল যে আইনজীবী তাকেই ভাড়া করা হলো? আপনারা কি আর কোনো আইনজীবী খুঁজে পাননি? এতেই প্রমাণিত হয় একই বৃত্তে দুটি ফুল, একটি হল বিএনপি অপরটি হলো জামায়াতে ইসলাম।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি এম এ ভাসানীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, বিএনএফের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এমপি, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে