আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > ছাত্রলীগের হাতে আওয়ামী লীগ নেত্রীর শ্লীলতাহানি

ছাত্রলীগের হাতে আওয়ামী লীগ নেত্রীর শ্লীলতাহানি

ছাত্রলীগের হাতে আওয়ামী লীগ নেত্রীর শ্লীলতাহানি

প্রতিচ্ছবি কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজার সরকারি কলেজে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে গিয়ে আওয়ামীলীগের অন্যতম অঙ্গসংগঠন ছাত্রলীগের হাতেই লাঞ্ছিত হলেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরি।

বঙ্গবন্ধুর জন্ম বার্ষিকীর অনুষ্ঠান মঞ্চেই আওয়ামী লীগ নেত্রীকে উদ্দেশ্য করে অশালীন স্লোগান দেয় ছাত্রলীগ নেতারা। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগ নেতারা এই নেত্রীকে চেয়ার নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় কলেজ শিক্ষকরা ছাত্রলীগকে নিবৃত করার চেষ্টা করলে তাদেরও লাঞ্ছিত করা হয়।

এ ঘটনার পর দুপুরে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন আওয়ামী লীগ নেত্রী নাজনীন সরওয়ার কাবেরি। ছাত্রলীগের নাজেহালের বর্ণনা দিতে গিয়ে অঝোরে কাঁদলেন দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের রাজনীতি করা আওয়ামী লীগের এ নেত্রী।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী অভিযোগ করে বলেন, ‘১৭ মার্চ কলেজ প্রশাসনের আমন্ত্রণে সকালে কক্সবাজার সরকারি কলেজে বঙ্গবন্ধুর জন্ম বার্ষিকী পালন করতে যাই। এসময় বক্তব্য দেয়ার জন্য আমার (কাবেরি) নাম ঘোষণা করলে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাখায়াত হোসেন ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দিয়ে অশালীন গালিগালাজ শুরু করে। ছাত্রলীগ নেতা শাখাওয়াত চেয়ার নিয়ে আমাকেমারতে তেড়ে আসেন।’

এসময় কান্নায় ভেঙে পড়েন নাজনীন সরওয়ার কাবেরি। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক পরিবারে জন্মেছি। স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের সাথে ছিলাম। দীর্ঘ এক যুগ ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছি। আজ এই ছাত্রলীগ আমার বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ স্লোগান দিয়ে আমার চরিত্র হননের চেষ্টা করলো। এমনকি তারা আমাকে শারীরিকভাবেও হেনস্তা করে ছাড়লো।’

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘এটাই কি আমার দীর্ঘ ৩০ বছরের বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির পাওনা?’

ছাত্রলীগের হাতে আওয়ামী লীগ নেত্রীর শ্লীলতাহানি

কাবেরি বলেন, ‘পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে আমি যখন বাধ্য হয়ে মঞ্চ থেকে নেমে আসছিলাম, তখন ছাত্রলীগের ওই গ্রুপটি আমাকে কেটে টুকরা টুকরা করে ফেলবে বলে হুমকি দেয়।’

‘ছাত্রলীগ নামে এরা সন্ত্রাসী’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এ নেত্রী বলেন, ‘এদের নেতৃত্বে কলেজের জমি দখল হয়। আমি তার প্রতিবাদ করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে গালিগালাজ ও মারতে তেড়ে আসে। তাদের হাতে শিক্ষকরাও জিম্মি।’

এ ব্যাপারে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জাকের হোসেন বলেন, ‘নাজনীন সরওয়ার কাবেরির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।’

উল্টো কাবেরির বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক ও পদবঞ্চিত কয়েকজন নেতার পক্ষ নিয়ে ‘ষড়যন্ত্র’ করার অভিযোগ তোলেন ছাত্রলীগের এই নেতা। তিনি বলেন, ওনাকে (নাজনীন) অনুষ্ঠানে দাওয়াত দেয়া হয়নি। উনি অহেতুক এসে ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ড নিয়ে বিষোদগার করায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা হৈ চৈ করেছে। এখানে আমাদের কোনো হাত ছিল না। রাস্তা নির্মাণের অভিযোগটিও সঠিক নয় বলে দাবি করেন তিনি।

এদিকে কাবেরির পক্ষ নিয়ে বক্তব্য দেন কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইসতিয়াক আহম্মেদ জয়। তিনি বলেন, ‘নাজনীন সরওয়ার কাবেরি সাবেক ছাত্রলীগ নেতা। তিনি সুখে দু:খে ছাত্রলীগের পাশে থাকেন। তার সাথে এমন আচরণ কখনোই মেনে নেয়া হবেনা।’

তিনি আরো বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ একেএম ফজলুল করিমের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি এই ব্যাপারে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

ইএ/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে