আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > সত্যিই কী হারিয়ে গেলেন হকিং?

সত্যিই কী হারিয়ে গেলেন হকিং?

স্টিফেন হকিং

জোহরা সিজন:

একটি বই পাল্টে দিল বিজ্ঞানের সব হিসেব নিকেষ। ‘এ ব্রিফ হিস্ট্রি অফ টাইম’; রীতিমতো তোলপাড় বিশ্বজুড়ে। শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে কাটিয়ে একজন সাধারন মানুষ হয়ে উঠলেন বিজ্ঞানের অনন্য এক নাম।

তবে অনেকেই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে ছিলেন বইটির লেখক স্টিফেন হকিংসের দৃশ্যতা নিয়েই। অর্থাৎ কারো কারো কাছে তিনি ছিলেন হকিংসের ছায়া মানব।

কেউ কেউ বিশ্বাস করেন, যাকে হকিংসের পরিচয় দেয়া হচ্ছিল সে প্রকৃতপক্ষে হকিংস নন। তাদের মতে তার সর্বাধিক বিক্রিত বই ‘এ ব্রিফ হিস্ট্রি অফ টাইম’ প্রকাশের প্রায় তিন বছর আগেই তার মৃত্যু হয়। এখানে শেষ নয়, এরপর বেশ কয়েকবার তার মৃত্যু আর হুইল চেয়ারে বসে থাকা ব্যক্তিটি নিয়ে ওঠে বিভিন্ন প্রশ্ন।

বিশ্বের এক প্রান্তের মানুষ বিশ্বাসের নেপথ্য বক্তব্য, এক শ্রেণির উচ্চবিত্ত রাজনীতিবিদ এবং বিজ্ঞানীদের প্রচেষ্টায় হকিংস সদৃশ্য কাউকে দৃশ্যমান করে রাখা হয়েছে।

এইতো মাত্র মাস দুয়েক আগে (১৩ জানুয়ারি) ডেকান ক্রোনিকাল নামক একটি সংবাদ মাধ্যমে একদল ষড়যন্ত্রকারী তত্ত্ববিদ্গন তাদের দাবির প্রমান নিয়েই হাজির হলেন। তারা দাবি করেন, স্টিফেন হকিংসের মৃত্যু অনেক আগেই হয়েছে। তার দাঁতসহ ছবির বিভিন্ন দিক বিশ্লেষণ করে চ্যালেঞ্জ করেন এটা হকিংসের রোবট বা প্রতিকৃতি।

এরপর আজ ঠিক দুই মাসের মাথায় রহস্য নিয়েই বিদায় নিলেন হকিংস। তার মৃত্যুতে পরিবার থেকে একটি বার্তা প্রদান করা হয়। ওই বার্তায় স্টিফেন হকিংয়ের সন্তান লুসি, রবার্ট ও টিম জানান- “আমরা গভীর দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে আমাদের প্রিয় বাবার আজ জীবনাবসান হয়েছে।”

প্রসঙ্গত, মাত্র ২২ বছর বয়সে বিরল প্রকৃতির মোটর নিউরন ডিজিজে আক্রান্ত হন হকিং। তিনি বড়জোর কয়েক বছর বাঁচবেন বলে সে সময় চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছিলেন। ওই অসুস্থতার কারণেই বাদবাকী জীবন তাকে হুইলচেয়ারে কাটাতে হয়েছে। তার বাকশক্তি প্রায় লোপ পায়। বিশেষভাবে নির্মিত ভয়েস সিন্থেসাইজার দিয়ে কথা বলতে পারতেন তিনি।

তাত্ত্বিক গবেষণার বাইরে এই বিজ্ঞানী সাধারণ মানুষের কাছেও জনপ্রিয় ছিলেন। তিনি একাধিক টেলিভিশন শোতেও হাজির হয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে ‘দ্য সিম্পসনস’ এবং ‘রেড ডোয়ার্ফ অ্যান্ড দ্য বিগ ব্যং থিওরি’। এ ছাড়াও তাকে কেন্দ্র করেও তৈরি হয়েছে একাধিক টেলিভিশন অনুষ্ঠান ও সিনেমা।

 

জেএস/ এমএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে