আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > ঢাকা > আওয়ামী লীগের এক, বিএনপির একাধিক

আওয়ামী লীগের এক, বিএনপির একাধিক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল পার্টি

প্রতিচ্ছবি টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

নির্বাচনী হালচালে টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী) আসনে এবার আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী থাকলেও বিএনপির প্রার্থী একাধিক। টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী) আসনটি নানা কারণে জেলার ৮টি আসনের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ। মধুপুরের শালবন, ধনবাড়ীর জমিদারবাড়ী, আদিবাসীদের নানা সংস্কৃতি আর রাণী ভবানীর স্মৃতি বিজড়িত লাল ও এঁটেল মাটির অঞ্চল মধুপুর ও ধনবাড়ী উপজেলা নিয়ে এ আসন গঠিত।

এ আসনটি আওয়ামী লীগের দুর্ভেদ্য ঘাঁটি। আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির অন্যতম সদস্য সাবেক খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক এ আসনের এমপি। তিনি প্রায় ১৬ বছর ধরে এ আসনের প্রতিনিধিত্ব করছেন।  দুই উপজেলাতেই তার শক্ত অবস্থানের কারণে তার কোন প্রতিদ্বন্দী নেই বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বিগত নির্বাচনগুলোতে তিনি তার প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের বিপুল ভোটের ব্যবধানে হারিয়েছেন।

এছাড়াও মধুপুর ও ধনবাড়ী উপজেলার আওয়ামী লীগ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গসংগঠনের নেতকর্মী তার প্রতি আস্থাশীল। আগামী সংসদ নির্বাচনেও তিনি এ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন এটা প্রায় নিশ্চিত।

ধনবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন বলেন, যে যাই বলুক না কেন এ আসনে ড. মো. আব্দুর রাজ্জাকের কোন বিকল্প নাই। তিনি এক জন সৎ ও নিষ্ঠাবান রাজনীতিবিদ। এবারও তিনি মনোনয়ন পেয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হবেন। কেননা তার নেতৃত্বে মধুপুর-ধনবাড়ীতে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ধনবাড়ীতে ৫০ শয্যা হাসপাতাল, মডেল উপজেলা ও থানা ভবন, ফায়ার সার্ভিস, মধুপুরে ৭২ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পান্ন অত্যধুনিক সাইলোসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড ড. মো. আব্দুর রাজ্জাকের পরিশ্রমের ফসল।

ধনবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মীর ফারুক আহমাদ ফরিদ বলেন, এ আসনে বর্তমান এমপি ড. রাজ্জাকের কোন বিকল্প নাই। তিনিই মনোনয়ন পাবেন এবং বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন।

অপরদিকে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম নাজুক অবস্থানে রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে অভ্যন্তরীন কোন্দল।

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ফকির মাহবুব আনাম স্বপন বলেন, আমাদের এমন কোন নেতাকর্মী নেই যে দমন পীড়নের শিকার না হয়েছে। এর মধ্যে দিয়েই আমরা সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছি। ধনবাড়ী উপজেলা প্রতিষ্ঠা করায় ব্যপক ভূমিকা রেখেছি। তাছাড়া পারিবারিক ঐতিহ্যেই ধনবাড়ী ও মধুপুরে ব্যপক উন্নয়ন করেছি নিজেদের টাকা দিয়ে। সবকিছু ছেড়ে এসে এ অঞ্চলের মানুষ হিসেবে আমি সবার পাশে থাকতে চাই। দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশনা  মেনে কাজ করছি। তিনি মূল্যায়ন করবেন। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারলে এ আসনে বিএনপি প্রার্থী অবশ্যই জয়ী হবে।

ফকির মাহবুব আনাম স্বপন ছাড়াও সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন, সৈয়দা আশিকা আকবর, মধুপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার সাবেক মেয়র সরকার  শহিদুল ইসলাম শহিদ, বিএনপি চেয়ারপার্সনের মামলা পরিচালনাকারী এডভোকেট মোহাম্মদ আলী মনোনয়ন পেতে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মধুপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি জাকির হোসেন সরকার মনে করেন, সরকারি দলের হামলা মামলায় দলীয় কর্মকান্ড কিছু স্থবির। তবে দলে কোন বিভেদ নেই। আর মনোনয়ন অনেকেই চাইতে পারেন, তবে আমি শতভাগ নিশ্চিত কেন্দ্রীয় নেতা ফকির মাহবুব আনাম স্বপন মনোনয়ন পেলে দলে কোন বিভেদ থাকবেনা। তার মতে, নিরপক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপি প্রার্থীই বিজয়ী হবে।

এআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

Leave a Reply

উপরে