আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > কমলাপুরে দ্বিতীয় দিনেও টিকিট প্রত্যাশীদের উপচে পড়া ভিড়

কমলাপুরে দ্বিতীয় দিনেও টিকিট প্রত্যাশীদের উপচে পড়া ভিড়

%e0%a6%95%e0%a6%ae%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a7%81%e0%a6%b0

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদোক:

ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রির প্রথমদিন টিকেট প্রত্যাশী যাত্রীদের ভিড় তেমন ছিল না। তবে মঙ্গলবার এ চিত্র ছিল ভিন্ন। ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির দ্বিতীয় দিনে কমলাপুর রেল স্টেশনে ছিল উপচে পড়া ভিড়।

সকাল ৮টা থেকে ২২ জুনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়। এর আগে ৭টার দিকেই কাউন্টার ঘিরে প্রতিটি সারি রাস্তায় পর্যন্ত পৌঁছায়। সংকুলান না হওয়ায় পরে সাপের মতো আঁকা-বাঁকা হয়ে দাঁড়ায় টিকিট প্রত্যাশীরা।

কমলাপুর রেল স্টেশনের ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী জানান, আমরা বিষয়টা আগে থেকেই জানতাম। প্রতি বছরই এমন হয়। প্রথমদিন ভিড় না থাকলেও দ্বিতীয় দিন থাকে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়।

তিনি বলেন, টিকিট প্রত্যাশীদের লাইন অনেক বড় হওয়ায়, সীমিত টিকিটের কারণে অনেকে টিকিট পান না। এর জন্যই কার আগে কে লাইনে দাঁড়াবে তার প্রতিযোগিতা থাকে মধ্যরাত থেকে।

প্রতিদিন ৫৫ হাজার টিকিট কমলাপুর স্টেশন থেকে দেয়া হচ্ছে। কাউন্টার থেকে একযোগে  এসব টিকিট ছাড়া হয়। তবে কিছু কিছু ট্রেনের টিকিট দুপুর নাগাদ শেষ হয়ে যায়। ঈদে ট্রেনের টিকিটের চাহিদা থাকে খুব বেশি।

সীতাংশু চক্রবর্তী জানান, বুধবার ২৩ জুলাইয়ের অগ্রিম টিকট দেয়া হবে। এ দিন ভিড় আরও বাড়বে। তবে গতবারের চেয়ে এবার যাত্রীরা অনেক বেশি টিকিট পাচ্ছেন। কারণ ভারত ও ইন্দোনেশিয়া থেকে আসা নতুন বগি রেলে সংযুক্ত হওয়ায় পুরো রেলওয়েতে প্রায় ৫০ হাজার আসন বেড়েছে।

রেলের এ কর্মকর্তা টিকিট কালোবাজারি রোধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানান।

এদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় কমলাপুর রেল স্টেশন পরিদর্শন শেষে রেলমন্ত্রী মুজিবুল জানান, এবার ঈদ যাত্রায় যাত্রীদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে নতুন বগি সংযোগ করা হয়েছে। এছাড়া স্পেশাল ট্রেন সার্ভিসের মাধ্যমে যাত্রীদের নিরাপদে বাড়ি ফেরা নিশ্চিতে কাজ করছে রেল।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে