আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > পরিবেশ > পাল্টাচ্ছে ময়মনসিংহ: পরিচ্ছন্ন নগর গড়তে ব্যাপক আয়োজন

পাল্টাচ্ছে ময়মনসিংহ: পরিচ্ছন্ন নগর গড়তে ব্যাপক আয়োজন

পাল্টাচ্ছে ময়মনসিংহ: পরিচ্ছন্ন নগর গড়তে ব্যাপক আয়োজন

প্রতিচ্ছবি ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

শহরের বিভিন্ন সড়কে ময়লা-আর্বজনা পড়ে থাকতে দেখা যেত হরহামেশাই। পরিস্কারের সকল আয়োজন থাকলেও তা হতো ধীরে ধীরে। আবর্জনার কারনে পাড়া মহল্লা দিয়ে যাতায়াত খুবই দুর্বিসহ হয়ে পরত।

যন্ত্রনা সহ্য করে নাকে কাপড় দিয়ে পথ চলতে বাধ্য হত স্কুল-কলেজ পড়ুঁয়াসহ স্থানীয় এলাকাবাসী। এ অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে। পয়লা জানুয়ারী থেকে পূর্ব ঘোষনা অনুযায়ী পৌর পরিষদের উদ্যোগে রাতে ময়লা-আর্বজনা সরিয়ে নগর পরিচ্ছন্ন নগর গড়তে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলছে পরিচ্ছন্ন কর্মীরা।

ইতিবাচক এ পরিবর্তনের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে শহরের সকল শ্রেণি পেশার জনগন। ময়মনসিংহ পৌরসভা বছরের প্রথম দিন থেকে শুরু করেছে রাতের বেলা আবর্জনা অপসারণের কাজ।

পৌরসভা পরিচছন্ন কর্মীরা সন্ধ্যার পর বিভিন্ন সড়ক ঝাড়– দিয়ে ময়লা আর্বজনা জড়ো করে, পরে গাড়ি এসে ময়লা তুলে নিয়ে রাতেই শহরের দুরে ভাগাড়ে ফেলা হচ্ছে। সকালে ঘুম থেকে উঠে পৌরবাসী পরিচ্ছন্ন নগর উপভোগ করছে। সকালে প্রাত:ভ্রমনে বের হওয়া অনেকেই স্বাচ্ছ্যন্দে যাতায়াত করছে।

কিছুদিন আগেও সঠিক পর্যাপ্ত লোকবলসহ অর্থাভাবে শহরের ময়লা আর্বজনা কখন ফেলা হবে তার ঠিক ছিলনা। ময়লা পরে থাকতো দিনের পর দিন। যা থেকে রোগ ছড়াতো।

পৌর পরিষদের সময়োপযোগী সিদ্ধান্তে এ বছর থেকে শুরু হয়েছে রাতে ময়লা পরিস্কার করে পরিচ্ছন্ন নগর গড়ার স্বপ্ন। শহরের পাটগুদাম ব্রীজ মোড়, স্টেশন রোড, গাঙ্গিনারপাড়, নতুন বাজার, টাউন হল মোড়সহ শহরের বিভিন্ন সড়কগুলো পরিচ্ছন্ন করতে পৌর কর্মকর্তাগন অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন।

পাল্টাচ্ছে ময়মনসিংহ: পরিচ্ছন্ন নগর গড়তে ব্যাপক আয়োজন

এ বিষয়ে পরিবেশ আন্দোলন নেতা এ্যাডভোকেট শিব্বির আহমেদ লিটন বলেন, এ উদ্যোগ সময়োপযোগী ও তা অব্যাহত রাখতে হবে এবং যে সকল ড্রেন ময়লা পরিস্কার করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণভাবে পরিস্কার করতে হবে। শুধু রুটিন ডিউটি নয় নিজের কাজ মনে করে ভালো ভাবে পরিস্কার করবে এটাই প্রত্যাশা এবং পরিচ্ছন্ন কর্মীরা তা পুরণে সচেষ্ঠ হবে।

সেবা ও অধিকার আদায়ের সংগঠন জনউদ্যোগ আহবায়ক এ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু বলেন, আগে দিনে পরিস্কার হতো তা দৃশ্যমান ছিল, এখন তা রাতে হচ্ছে তাই রাতে শহরে বের হলে শহর পরিস্কার মনে হচ্ছে। জনসাধারনের কাজ তো দিনের বেলায়, দিনের ময়লা রয়েই যাচ্ছে। তাই সচেতনতা বৃদ্ধিতে ব্যাপক প্রচারনা চালাতে হবে।

নারী অধিকার আন্দোলন ও মহিলা পরিষদ নেতা সাজেদা বেগম সাজু বলেন, বর্তমান মেয়র তরুণ মেধাবী প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তাই সময়োপযোগী সিন্ধান্ত গ্রহন করেছে। এটি অব্যাহত থাকুক আশা করি, যেন সময়ের আর্বতে কার্যক্রমটি বন্ধ না হয়ে যায়। সময় লাগবে একটা কিছু বদলাতে হলে নিজে থেকে বদলাতে হয়। একদিন পরিচ্ছন্ন নগরে পরিনত হবেই ময়মনসিংহ।

পৌরসভার সেনেটারী ইন্সপেক্টর দীপক মজুমদার বলেন, বিশ্বের সাথে তালমিলিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে পর্যাপ্ত লোকবল না থাকায় বা নানা জটিলতায় ময়লা আর্বজনা অপসারন সঠিক ভাবে পরিচালিত হতো না। ময়লা পরে থাকতে দেখা যেত দিনের পর দিন। সকলের সহযোগিতায় পৌর পরিষদের উদ্যোগে আমরা আজ পরিস্কার নগরী উপভোগ করতে সক্ষম হয়েছি।

রাত সাড়ে ১০টার মধ্যে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলে রাতেই আবর্জনা অপসারণের লক্ষে পৌর কতৃপক্ষ সমাজের বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষের সাথে মতবিনিময়ে সিন্ধান্তের পর এ কাজ শুরু করেন। এ কাজে প্রচার-প্রচারনার পাশাপাশি সকলকে এগিয়ে আসাার আহবান জানান তিনি। এখন শহরের মানুষ সন্ধ্যা হতেই ময়লা-আর্বজনা নির্ধারিত স্থানে সংগ্রহ করে এবং অপসারন করতে পরিচ্ছন্ন কর্মীদের সহযোগিতা করছে।

মেয়র ইকরামুল হক টিটু প্রশংসনীয় উদ্যোগের কথা নিয়ে বলেন, আমরা পরিচ্ছন্ন ময়মনসিংহ নগর গড়তে চাই। রাত্রিকালীন সময়ে আবর্জনা অপসারণের সিদ্ধান্ত অনেক চিন্তাপ্রসুত। শহরবাসীর সহযোগিতায় কাজটি আরো সুন্দর ও সুচারু ভাবে করা সম্ভব হবে। সকলকে মনে করতে হবে এ শহর আমার এর পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব আমার। তাই প্রতিটি ওয়ার্ডে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, জনসচেতনতা মুলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। আশাকরি, এ উদ্যোগটি ফলপ্রসূ হবে।

কাজী মোহাম্মদ মোস্তফা/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে