আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > বিসিএল দিয়ে মাঠে গড়াচ্ছে নতুন বছরের ক্রিকেট

বিসিএল দিয়ে মাঠে গড়াচ্ছে নতুন বছরের ক্রিকেট

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ

প্রতিচ্ছবি ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ নয়; জানুয়ারিতে মাঠে গড়াচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ (বিসিএল)। মূলত জাতীয় দলের খেলা থাকায় ক্লাবগুলো জানুয়ারিতে প্রিমিয়ার লিগ খেলতে রাজী নয়। যে কারণে নতুন বছরের শুরুটা হচ্ছে বিসিএল দিয়ে। বিসিবির টুর্নামেন্ট কমিটি চাইছে ৫ জানুয়ারি বিসিএল মাঠে নামাতে।

চলতি মাসেই শেষ হয়েছে জাতীয় লিগ। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের দ্বিতীয় আসরটি শুরু হচ্ছে এক মাসের ব্যবধানেই। এখন চলছে সেটারই প্রস্তুতি। তবে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা শুরুর সময় এক সপ্তাহ পেছানোর অনুরোধ করেছে। সেক্ষেত্রে ১২ বা ১৫ জানুয়ারিতে শুরু হতে পারে বিসিএল। মূলত দল গঠন ও প্রস্তুতির জন্যই এক সপ্তাহ পেছানোর অনুরোধ তাদের।

চার দলের মাঝে ডাবল লিগ পদ্ধতিতে হবে খেলা। রাউন্ড মোট ছয়টি। তিন রাউন্ড মাঠে গড়ানোর পর পড়তে পারে অন্তত দুই মাসের বিরতি। কেননা ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে প্রিমিয়ার লিগ আয়োজনের চিন্তা করছে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিস (সিসিডিএম)।

যদিও বিসিবির এমন প্রস্তাবে রাজী নয় একাধিক ফ্র্যাঞ্চাইজি। তারা চান টানা খেলে বিসিএল শেষ করতে। ইতোমধ্যে বিরতির বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে বিসিবিকে চিঠি দিয়েছে দক্ষিণাঞ্চলের ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রাইম ব্যাংক। মধ্যাঞ্চলের ফ্র্যাঞ্চাইজি ওয়ালটন গ্রুপও বিরতির বিপক্ষে। তারা মনে করে বিরতিতে টুর্নামেন্টের গতিতে ছেদ পড়লে আকর্ষণ কমে যাবে, ফ্র্যাঞ্চাইজির খরচও বাড়বে।

সবদিক পর্যালোচনা করে বিসিএল নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে ৩১ ডিসেম্বর। ওই দিন বিসিবির টুর্নামেন্ট কমিটির নতুন চেয়ারম্যান গাজী গোলাম ‍মুর্ত্জা ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন।

গত সপ্তাহে সিসিডিএম’র নতুন চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ জানিয়েছিলেন, ২০ জানুয়ারি শুরু হবে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। ক্লাবগুলোর সঙ্গে আলোচনা না করেই সিদ্ধান্তে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। শেষপর্যন্ত ক্লাবের ইচ্ছাকেই প্রাধান্য দিতে হচ্ছে। জানুয়ারির শুরু থেকে ত্রিদেশীয় ও শ্রীলঙ্কা সিরিজ নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন মাশরাফী-মোস্তাফিজ, সাকিব-তামিমরা। তারকা ক্রিকেটার ছাড়া তাই প্রিমিয়ার লিগ খেলতে আগ্রহী নয় ক্লাবগুলো।

বুধবার দুপুরে বিসিবি কার্যালয়ে বিসিএলের দল গঠন নিয়ে সভা করেছেন নির্বাচকরা। জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানান, জাতীয় লিগে পারফর্ম করা ক্রিকেটাররা যেন সুযোগ পায় সেটি নিশ্চিত করতে চান তারা।

‘আমরা ৮০ ভাগ এগিয়ে গিয়েছি। এখন চারটা দল তৈরি করে দিচ্ছি। আমরা চাইছি জাতীয় লিগে যারা সেরা পারফর্মার, ওদের যেন সুযোগ দিতে পারি। সঙ্গে এইচপি’র খেলোয়াড়রা আছে। তারপর জাতীয় দলের যারা টেস্ট খেলবে তাদেরকে যেন সুযোগ দিতে পারি। এভাবে চিন্তা-ভাবনা করছি।’

 

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে