আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > বিপিএলেও ব্যর্থ জাতীয় দল

বিপিএলেও ব্যর্থ জাতীয় দল

বিপিএলেও ব্যর্থ জাতীয় দলপ্রতিচ্ছবি ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সবচেয়ে দুশ্চিন্তার কারণ টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের ক্রিকেট। এ ফরম্যাটে কোনোভাবেই প্রত্যাশিত সাফল্য পাচ্ছে না সাকিব-তামিম-মুশফিকরা। ১০টি টেস্ট খেলুড়ে দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০ এ। ৯ এ আফগানিস্তান, ৮ এ শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের রেটিং ৭৬, আফগানিস্তান ৮৬ ও শ্রীলঙ্কা ৯১।

ক্রিকেটের এখন পর্যন্ত সর্বকনিষ্ঠ এ ফরম্যাটে টাইগারদের দুর্দশার সবচেয়ে বড় প্রমাণ সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফর। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুই ম্যাচে পাত্তাই পায়নি সাকিব আল হাসানের দল।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ভিন্ন কন্ডিশনে খেলা হলেও ঘরের মাঠে চিরচেনা কন্ডিশনে জাতীয় দল কেমন খেলে সেটা দেখার সবচেয়ে বড় মঞ্চ ছিল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। বিপিএলে দেশের মাটিতে টাইগারদের কাছ থেকে আশানুরূপ পারফরম্যান্স প্রত্যাশা থাকলেও হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া সে প্রত্যাশা পূরণেও ব্যর্থ বাকিরা।

ঘুরে ফিরে বিদেশী ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সেই উদ্ভাসিত বিপিএল। ফাইনালসহ বিগ ম্যাচগুলোর দিকে তাকালেও যেটা স্পষ্ট। ব্যাটিংয়ে ক্রিস গেইল ৪৮৫ রান করে সবার উপরে। তবে তার কাছাকাছি ছিলেন তামিম ইকবাল চার নম্বরে। রান করেছিলেন তিনি ১০ ম্যাচে ৩২২। এই এক ক্রিকেটার প্রত্যাশিত ব্যাটিং করেছিলেন। কিন্তু অন্যদের অবস্থা সুবিধাজনক নয়। সর্বশেষ জাতীয় দলের স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটারদের মধ্যে শীর্ষে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। করেছেন তিনি ৩১২ রান। এরপর ইমরুল কায়েস ২৯৯, লিটন দাস ২৬১, মুমিনুল ২৩০, সাকিব আল হাসান ২১১, সাব্বির রহমান ২১১, মুশফিকুর রহীম ১৮৫, সৌম্য সরকার ১৬৯। মেহেদি হাসান মিরাজের স্কোর উল্লেখযোগ্য পরিসংখ্যানেই ওঠেনি।

তবে বোলিংয়ে তুলনামূলক ভালো করেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। উইকেট সংগ্রহে শীর্ষে সাকিব ২২ উইকেট নিয়ে। অন্যদের মধ্যে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন নিয়েছেন ১৬ উইকেট। রুবেল হোসেন ১৫, তাসকিন আহমেদ ১৪ ও শফিউল ১২, মেহেদি হাসান মিরাজ নিয়েছেন ১০ উইকেট ও অলরাউন্ডার হিসেবে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ৬ উইকেট। টি-২০ স্কোয়াডের বাইরে থাকাদের মধ্যে মাশরাফি নিয়েছেন ১৫, নাসির হোসেন ১২ ও ইনজুরি থেকে ফিরে পাঁচ ম্যাচ খেলে মুস্তাফিজুর রহমান নিয়েছেন ৪ উইকেট।

মাশরাফি বিন মর্তুজা

এবারের বিপিএলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া দল রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা তো বলেছেন, ‘বিপিএল থেকে আমাদের ছেলেরা কী শিখল এটা আসলে দেখার বিষয়। কারণ এবারই বিশ্বের নামীদামি ক্রিকেটারের সংখ্যা ছিল বেশি। তাদের সাথে খেলে অনেক কিছু শেখার আছে। ছেলেরা যদি সেটা নিতে পারে, তাহলে ভবিষ্যতে সেটা খুবই উপকারে আসবে। কারণ কাছ থেকে এমন সব স্টারদের অ্যাপ্রোচ প্ল্যানগুলো দেখতে পারা এটা বিশাল বড় সুযোগ। আশা করি সুযোগগুলো তারা কাজে লাগিয়েছেন।’

তবে এটাও ঠিক, গত বিপিএলে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সাব্বির রহমানের একটা সেঞ্চুরি ছিল। এবার ওই মার্কে যেতে পারেননি কেউ। তিনটি সেঞ্চুরির তিনটিই বিদেশি ক্রিকেটারদের। ঘরের মাঠে আরেকটু ভালো পারফরম্যান্স প্রত্যাশা ছিল বৈকি!

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে