আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > রংপুরের প্রথম, মাশরাফির চতুর্থ

রংপুরের প্রথম, মাশরাফির চতুর্থ

অধিনায়ক মাশরাফি

প্রতিচ্ছবি ক্রীড়া প্রতিবেদক:

বিপিএলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি। সাকিবদের হারিয়ে নিজের চতুর্থ ট্রফি জিতে নিলেন মাশরাফি। আর তার নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো ট্রফির জিতল রংপুর রাইডার্স। ঢাকার হয়ে প্রথম দুই বার ট্রফি জেতে মাশরাফি। এরপর কুমিল্লার হয়ে আরও একটি ট্রফি হাতে ওঠে মাশরাফির।  মঙ্গলবার গতবারের চ্যাম্পিয়ন দল ঢাকাকে হারিয়ে বিপিএলে নিজের এক হালি ট্রফি পূর্ণ করলেন মাশরাফি। আর প্রথম বারের মতো ট্রফি জিতল রংপুর রাইডার্স।

রংপুরের প্রথম, মাশরাফির চতুর্থ

মঙ্গলবার ৬টায় শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে শেরে বাংলার মাঠে নামে ঢাকা ডাইনামাইটস ও রংপুর রাইডার্স। এই ম্যাচে টস জেতে চতুর্থ আসরের ট্রফি জয়ী অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তবে রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফিকে প্রথমে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় সাকিব। গেইলের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ঢাকাকে ২০৭ রানের টার্গেট দেয় রংপুর। সেই লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রান তুলতেই নির্ধারিত ওভার শেষ হয়ে যায়। ফলে ৫৭ রানের জয় পেয়ে প্রথমবারের মত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রংপুর রাইডার্স। আর নিজের চতুর্থ ট্রফি জিতে নেন বিপিএলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরেন ঢাকার ওপেনার মেহেদি মারুফ। ব্যক্তিগত শূন্য রানেই মাশরাফির পাতা এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়েন মারুফ। এরপর আরেক ওপেনার এভিন লুইসকে সঙ্গ দিতে আসেন জো ডেনলি। তবে সোহাগ গাজীর বলে নাহিদুল ইসলামের তালুবন্দি হয়ে শূন্য রানেই ফেরেন ডেনলি।

মাশরাফি ও গেইল

ডেনলি ফেরার পর ক্রিজে আসেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। কিন্তু দলীয় ১৯ রান এবং ব্যক্তিগত ১৫ রানে সোহাগ গাজীর বলে মাশরাফির হাতে ধরা পড়েন ওপেনার এভিন লুইস। এরপর সাকিবকে সঙ্গ দিতে আসেন কাইরন পোলার্ড। তবে ব্যক্তিগত ৫ রানের মাথায় রুবেল হোসেনর বলে গেইলের তালুবন্দি হয়ে ফেরেন পোলার্ড।

পোলার্ড ফিরে গেলে ক্রিজে আসেন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান জহুরুল ইসলাম। তবে ব্যক্তিগত ২৬ রানে নাজমুল ইসলামের বলে বোল্ড হন অধিনায়ক সাকিব। দলকে চাপে রেখে ফেরেন সাকিব। এরপর ক্রিজে আসেন মোসাদ্দেক হোসেন। কিন্তু ১ রানের মাথায় বোপারার শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন মোসাদ্দেক। দলীয় ৭৪ রানের মাধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে দিশে হারা হয়ে পড়ে সাকিবের দল ঢাকা।

মোসাদ্দেক ফিরে গেলে দলকে এগিয়ে নিতে ক্রিজে আসেন শহিদ আফ্রিদি। তবে ব্যক্তিগত ৮ রানে নাজমুল ইসলামের বলে রুবেলের তালুবন্দি হয়ে ফেরেন আফ্রিদি। এরপর জহুরুল ইসলামকে সঙ্গ দিতে ক্রিজে আসেন সুনিল নারিন। তাকে দলীয় ১২৯ রান এবং ব্যক্তিগত ১৪ রানে ফেরান ইসুরু উদানা।

মাশরাফি বিন মর্তুজা

নারিন ফিরে গেলে ক্রিজে আসেন আবু হায়দার রনি। তবে দলের ১৩২ রান এবং নিজের ৫০ রানের মাথায় নাজমুল ইসলামের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান জহুরুল ইসলাম। এরপর রনিকে সঙ্গ দিতে আসেন খালেদ আহমেদ। কিন্তু খালেদের ব্যক্তিগত ৮ রান এবং রনির ৯ রানে ঢাকার দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৪৯ রান। ফলে ৫৭ রানে হেরে গেছে সাকিবের দল।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ঢাকাকে ২০৭ রানে টার্গেট দিয়েছে রংপুর। গেইলের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে রংপুরের সংগ্রহ ২০৬ রান।

মঙ্গলবার শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৫ রান এবং ব্যক্তিগত ৩ রানে কট এন্ড বোল্ড হয়ে ফেরেন ওপেনার জনসন চার্লস। এরপর গেইলকে সঙ্গ দিতে আসেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। ম্যাককালামকে সঙ্গে নিয়ে প্রথম ১০ ও্ভার পর্যন্ত ধরে খেলেন গেইল। এরপরই শুরু হয় গেইল ঝড়। ৬৯ বলে ১৬৪ রান দলে যোগ করেন গেইল। আর ৪৩ বলে ৫১ রান দলীয় সংগ্রহে যোগ করেন ম্যাককালাম। দলীয় সংগ্রহ ২০৬ রান দাঁড় করিয়ে অপরাজিত থাকা অবস্থায় মাঠ ছাড়েন তারা দুই জন।

উল্লেখ, এবারের বিপিএলে মাত্র ৩টি সেঞ্চুরি হয়েছে, যার দুইটিই করেছেন ক্রিস গেইল। অসাধারণ ব্যাটিং করায় টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়ার নির্বাচিত হয়েছেন গেইল। আর ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের মুকুটটিও তার হাতেই উঠেছে ১৪৬ রানের অসাধারন ইনিংস খেলায়।

এসএম 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে