আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > আবারো বাড়তে শুরু করেছে চাল, পিঁয়াজের দাম

আবারো বাড়তে শুরু করেছে চাল, পিঁয়াজের দাম

আবারো বাড়তে শুরু করেছে চাল, পিঁয়াজের দাম

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কথা বলে চালের দাম বাড়াচ্ছেন আমদানিকারকরা। স্থলবন্দরগুলোয় আমদানি করা চালের দাম এরই মধ্যে কেজিতে ১ টাকা বেড়েছে। আবার শাক-সবজিতে স্বস্তি আসতে শুরু করলেও লাগামহীন পাগলা ঘোড়ার মতো ছুটছে পেঁয়াজের দাম। গত সপ্তাহেও কেজিপ্রতি দেশি পেঁয়াজ ৮০ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজ ৬০ টাকা করে বিক্রি হয়েছে।

ভারত থেকে সবচেয়ে বেশি চাল আমদানি হয় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে। দুদিনের ব্যবধানে বন্দরটিতে আমদানি করা চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ১ টাকা। দুদিন আগেও প্রতি কেজি স্বর্ণা চাল পাইকারিতে বিক্রি হয়েছিল ৩৬ টাকায়। একই চাল গতকাল বিক্রি হয় ৩৭ টাকা কেজি দরে। এছাড়া ৩৯ টাকা কেজি দরের রত্না জাতের চাল এদিন বিক্রি হয় ৪০ টাকায়।

দাম বৃদ্ধির কারণ হিসেবে ডলারের মূল্য বেড়ে যাওয়ার কথা বলছেন আমদানিকারকরা। পাশাপাশি ভারতে পণ্যটির রফতানি মূল্য বেড়ে যাওয়াকেও এর কারণ হিসেবে দাবি করছেন তারা।

এদিকে সবশেষ সবজির খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিকেজি ধনিয়াপাতা ৫০-৭০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, কাঁচামরিচ ১২০ টাকা, পেঁপে ২৫ টাকা, সিম ৫০ টাকা, টমেটো ৮০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, মূলা ৩০ টাকা, আলু ২০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, প্রতিপিস বাঁধাকপি ২০ টাকা, প্রতিপিস ফুলকপি ২০ টাকা, পেঁয়াজ পাতা ৫০ টাকা কেজি, লালশাক ১০ টাকা আঁটি, বরবটি ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা বাজারের বিক্রেতারা জানান, পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের সংকট রয়েছে। বেশি দাম দিয়ে কিনে তো বেশি টাকায় বিক্রি করতে হবে। তবে আমদানি ঠিক আছে বলে শুনেছি, কিন্তু হঠাৎ করে কেন দাম বাড়লো তা বলতে পারবো না।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যে দেখা গেছে, দুই সপ্তাহ ধরে চাল পিঁয়াজসহ অনেক পণ্যের  আমদানি মূল্যও বাড়ছে। তবে শীঘ্র বাজারমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনার আশাবাদ ব্যক্ত করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে