আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > পাকিস্তানকে লজ্জায় ডুবিয়ে শিরোপা আফগান যুবাদের

পাকিস্তানকে লজ্জায় ডুবিয়ে শিরোপা আফগান যুবাদের

পাকিস্তানকে লজ্জায় ডুবিয়ে শিরোপা আফগান যুবাদের [১]

প্রতিচ্ছবি স্পোর্টস ডেস্ক:

এক দলের ঐতিহ্যবাহী ইতিহাস আরেকজন মাত্রই পা রেখেছে ক্রিকেটের বনেদি পরিবারে। দেশের হয়ে অগ্রজদের এমন বৈচিত্রের মাঝে জাতীয় পতাকা দলে দু দলের ঠাঁই অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের ফাইনালে। এরপর বাকিটা লজ্জা আর গৌরবের মিশেলে লেখা নতুন এক নাটক।

যেখানে আফগান যুবাদের দাপুটে ক্রিকেটে আর পাকিস্তানি আগামী প্রজন্মের অসহায় আত্নসমর্পন। উইলো হাতে ইকরাম আলী খিরের শতক আর মুজিব জারদানের একাই ৫ উইকেট শিকার। আফগানিস্তানের জাতীয় দল যখন অপেক্ষায় ঐতিহাসিক টেস্ট অভিষেকের তখন ১৮৫ রানের বিরাট এ জয়ে ক্রিকেটে নিজেদের আগমনী বার্তাটা উচ্চ স্বরেই জানিয়ে রাখল আফগান যুবারা।

কুয়ালালামপুরের ফাইনালে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেনি পাকিস্তান। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে আফগানিস্তানের গড়া ২৪৮ রানের সংগ্রহ তাড়া করতে গিয়ে পাকিস্তান গুঁড়িয়ে যায় মাত্র ৬৩ রানেই। আর ব্যাটে বলে এমন পারফরম্যান্সের পর মালয়েশিয়ায় অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের শিরোপাটাও নিজেদের শোকেসে সাজিয়ে নিয়েছে তারা।

পাকিস্তানকে লজ্জায় ডুবিয়ে শিরোপা আফগান যুবাদের [২]টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই দৃঢ়তার সঙ্গে খেলেছেন আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানরা। ৬১ রানের ওপেনিং জুটির পর দারুণ এক সেঞ্চুরি উপহার দেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান ইকরাম আলী খির। ১০ বাউন্ডারির সঙ্গে ও ২ ওভার বাউন্ডারিতে ১১৩ বলে ১০৭ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন তিনি।

যদিও স্কেরটা হয়ত আরো বড় হতে পারত তবে সেই আক্ষেপটা পুষিয়ে দেন আফগান বোলাররা। ২৪৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা ছিলেন শুরু থেকেই দিশেহারা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে তাদের ইনিংস শেষ হয় মাত্র ৬৩ রানেই।

আফগানিস্তানের মোহাম্মদ মুসা ৪৬ রানে ৩ উইকেট নেন। ২টি উইকেট নিয়েছেন শাহিন আফ্রিদি। একটি করে উইকেট পেয়েছেন হাসান খান ও মোহাম্মদ তাহা।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে বৃষ্টি-দুর্ভাগ্যে এই পাকিস্তানের কাছেই হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে পাকিস্তানকে ২ রানে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

এম এম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে