আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > ক্ষমতা ছাড়তে অস্বীকৃতি জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট মুগাবের

ক্ষমতা ছাড়তে অস্বীকৃতি জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট মুগাবের

জিম্বাবুয়ে প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে

প্রতিচ্ছবি ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

গৃহবন্দি জিম্বাবুয়ে প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে পদত্যাগে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।  দেশটির প্রতিরক্ষা বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল কনস্টান্টিনো চিওয়েঙ্গার সঙ্গে বৈঠক তাই ফলপ্রসূ হয়নি।

জিম্বাবুয়ের সামরিক বাহিনী কর্তৃত্ব ক্ষমতা গ্রহণ ও প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবেকে গৃহবন্দির বিষয়ে আলোচনা করতে দক্ষিণ আফ্রিকার একটি প্রতিনিধিদল দেশটিতে গিয়েছিল। ৩৭ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা এই প্রেসিডেন্টকে পদত্যাগের আহ্বান জানানো হয়েছে। কিন্তু মুগাবে তা মানতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে তাকে ছেড়ে স্ত্রী গ্রেস মুগাবে নামিবিয়াতে পালিয়েছেন। বিরোধী দলীয় নেতা মরগান তাসভাঙ্গিরাই বলেছেন, ‘জনগণের ইচ্ছার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মুগাবের অবিলম্বে পদত্যাগ করা উচিত।’

ইতোমধ্যে পুরো বিষয়টিকে ‘ক্যু মনে হচ্ছে’ বলে মন্তব্য করেছে আফ্রিকান ইউনিয়ন (এইউ)। সংগঠনটি দ্রুতই জিম্বাবুয়েকে সাংবিধানিক ধারায় নিতে আহ্বান জানিয়েছে।

ইউনিয়নটির প্রধান আলফা কোন্ড বলেছেন, কোনো ক্যু মানা হবে না। সেনাদের ব্যারাকে ফিরে যাওয়া প্রয়োজন। তবে অভ্যুত্থান (ক্যু) করার কথা অস্বীকার করে যাচ্ছে জিম্বাবুয়ের সামরিক বাহিনী। যদিও অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সম্প্রতি বহিষ্কৃত ভাইস প্রেসিডেন্ট এমারসন নানগাগবাকে (৭৫)।

গত সপ্তাহে মুগাবে ভাইস প্রেসিডেন্ট এমারসন মানাঙ্গাওয়াকে সরিয়ে দেয়ার পর থেকে দেশটিতে এক ধরনের সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। তার স্থলে স্ত্রী গ্র্যাস মুগাবেকে তার দল ও প্রেসিডেন্সিতে নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে মনোভাব দেখান।

দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর বুধবার ৯৩ বছর বয়সী প্রবীণ এই প্রেসিডেন্টকে গৃহবন্দি করে সেনাবাহিনী। মুগাবের ভবিষ্যৎ উত্তরাধিকার কে হবেন তা নিয়ে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখে রয়েছে দেশ।

এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে