আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > আবাসিক হোটেলে মিলল পুলিশ কর্মকর্তার মৃতদেহ

আবাসিক হোটেলে মিলল পুলিশ কর্মকর্তার মৃতদেহ

আবাসিক হোটেলে মিলল পুলিশ কর্মকর্তার মৃতদেহ

প্রতিচ্ছবি বাগেরহাট প্রতিবেদক:

বাগেরহাটে আসাসিক হোটেলের একটি কক্ষ থেকে মো. শহীদুজ্জামান আনসারী (৫৭) নামে এক পুলিশ কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার বেলা সাড়ে বারোটার দিকে বাগেরহাট শহরের কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ডের আল আমিন হোটেল থেকে ওই পুলিশ কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ তার মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

তিনি বাগেরহাট আদালতে উপ পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার সদরের করপাড়া গ্রামের প্রয়াত ইসমাঈল হোসেন আনসারীর ছেলে। তিনি ১৯৭৯ সালে পুলিশ কনস্টবল পদে যোগদান করেন।

২০১৪ সালে বাগেরহাটে যোগদান করেন। গত প্রায় তিন বছর ধরে তিনি বাগেরহাটের ওই আসাসিক হোটেলের দ্বিতীয় তলার ১২ নাম্বার কক্ষে একাই বসবাস করছিলেন।

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাতাবউদ্দিন বলেন, শনিবার রাত সাড়ে দশটার দিকে খাওয়া দাওয়া শেষে তার কক্ষে ঘুমাতে যান। সকালে তিনি তার কার্যালয়ে না যাওয়ায় আদালতের পুলিশ পরিদর্শক বারবার ফোন দিতে থাকেন।

তিনি ফোন রিসিভ না করায় আদালতের পরিদর্শক তাকে খুঁজতে হোটেলে পুলিশ পাঠান। সেখানে এসে পুলিশ সদস্যরা অনেক ডাকাডাকি করলে দরজা না খোলায় পরে রুমের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে তাকে বিছানায় দেখতে পায়।

ঘুমের মধ্যে ‎‎হ্নদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাগেরহাট পুলিশ লাইনে জানাযা শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হবে।

প্রায় এক মাস আগে তার স্ত্রী আসমা পারভীন শিমু সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যান। এরপর থেকে তিনি এক ধরনের মানষিক চাপে ছিলেন জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। তার মালিহা মেহবুবা নামে ১৫ বছর বয়সী একটি মেয়ে রয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে