আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও যমুনা মাল্টিপারপাস

কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও যমুনা মাল্টিপারপাস

কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও যমুনা মাল্টিপারপাস

প্রতিচ্ছবি যশোর প্রতিনিধি:

গ্রাহকের কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পাঁচ বছর ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন যশোরের যমুনা মাল্টি পারপাস কো-অপারেটিভ লিমিটেডের সভাপতি সম্পাদকসহ ডজনখানেক প্রতারক। ওই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে পাঁচটি মামলা চলমান রয়েছে আদালতে।

জানা গেছে, ২০১১ সালে যশোরে যমুনা মাল্টি পারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান চালু করেন যশোরের মণিরামপুরের চাকলা গ্রামের মৃত সেফায়েত উল্লার ছেলে মামুন উর রশিদ ও মাগুরা সদর উপজেলার বামনহাটির আশরাফ আলী।

বহু বিতর্কিত এ দু’ব্যক্তির মধ্যে আশরাফ আলী সেজে বসেন সম্পাদক, আর সভাপতি সেজে বসেন মামুন উর রশিদ। মামুন উর রশিদের ছেলে আশিক পারভেজ পলাশ, স্ত্রী আঞ্জুমানারা খাতুন, সম্পাদক আশরাফ আলীর স্ত্রী জান্নাত ফেরদৌসী, শাশুড়ি শামসুন্নাহার রুবি ও শ্যালক রাশেদুল ইসলামসহ আরও কয়েক আত্মীয় নিয়ে দু’পরিবারের পারিবারিক পকেট কমিটি গঠন করা হয়।

তারা প্রচার করে প্রতিষ্ঠানটি সরকার অনুমোদিত একটি সমবায় আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এরপর মাসে ১ লাখ টাকায় ১ হাজার ৭শ’ টাকা দেয়ার অঙ্গিকার করে আমানত গ্রহণ করে প্রতিষ্ঠানটি। তিন বছর, পাঁচ বছর ও ১০ বছর মেয়াদী আমানত নেয়া হয়। চুক্তি অনুযায়ী যদি কোন আমানত প্রদানকারী তার টাকা আর রাখতে না চান তাহলে আবেদন করলে ৯০ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত দেবে যমুনা মাল্টিপারপাস।

কয়েক বছর নানা রঙিন প্রলোভন প্রচার করে ২০১৩ সালের শেষের দিকে কোটি টাকা হাতিয়ে গা ঢাকা দেয় মামুন ও আশরাফ গং। তারা নিজেদের প্রতারণা ঢাকতে ৪ বার যমুনা মাল্টিপারপাসের অফিস বদল করে।

প্রথমে যশোর শহরের আরএন রোডে, পরে পাশের একটি ভবনে, এরপর বারান্দিপাড়া রাঙামাটি গ্যারেজ মোড় ও শেষে কেশবলাল রোডে আস্তানা গাড়ে। এরপর ৪শ’৩৯ জন সদস্যকে পথে বসিয়ে গা ঢাকা দেয় ওই চক্রটি।

তাদের বিরুদ্ধে একে একে পাঁচটি মামলা করা হয়। মামলা নম্বর যথাক্রমে ২৮৬/১৫ বাদী সিদ্ধেশ্বর ঘোষ, ৪৬৭/১৫ বাদী তাহাজ্জত হোসেন, ৫২৯/৫ বাদী পিংকি রানী ঘোষ, ৫৩০/১৫ বাদী জামেলা খাতুন, ৪৫/১৬ বাদী ডাক্তার আর আমজাদ। মামলাগুলো পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থা তদন্ত করেছে। আর উপজেলা সমবায় অফিস এ ব্যাপারে পৃথক তদন্ত করেছে।

লগ্নিকারীদের অনেকের দাবি, কমিটির এক কর্মকর্তাকে হাতের নাগালে পেলেও তিনি ছল চাতুরী করে পুলিশ ও সমবায় অফিসসহ সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করছেন। তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ব্যাংক একাউন্টে টাকা ছিল মাত্র ৪শ’ ৪১ টাকা।

ভূক্তভোগীদের মধ্যে একজন শহরের খড়কী পাড়ার মাওলানা শাহ আব্দুল করিম রোডের মৃত মহিউদ্দিনের ছেলে তাহাজ্জত হোসেন জানান, পলাতক মামুন উর রশিদ, ছেলে আশিক পারভেজ পলাশ, স্ত্রী আঞ্জুমানারা খাতুন, সম্পাদক আশরাফ আলী, তার স্ত্রী জান্নাত ফেরদৌসী, শাশুড়ি শামসুন্নাহার রুবি ও শ্যালক রাশেদুল ইসলাম তার মামলার আসামি।

ওই চক্রের বিরুদ্ধে পুলিশ সমবায় অফিস, আরও একটি একটি সংস্থা প্রতিবেদন দিয়েছে। সব প্রতিবেদনেই ওই চক্রের পারিবারিক কমিটির মুখোশ খুলে গেছে। মাঝে একবার পুলিশি চোখ ফাঁকি দিয়ে আদালতে গোপনে হাজির হলে মামুন উর রশিদ ভৎসনার শিকার হন। বিচারক তাকে ধমকও দেন। এসময় আইনজীবীর আইনী মারপ্যাচে জামিন নিয়ে আবার গা ঢাকা দিয়েছেন। অন্যান্য লগ্নিকারীদের দাবি, সভাপতি আশরাফের স্ত্রী যশোরেই অবস্থান করছেন।

সাজেদ রহমান/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে