আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় বখাটের হামলা, আহত ৫

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় বখাটের হামলা, আহত ৫

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় বখাটের হামলা, আহত ৫

প্রতিচ্ছবি নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীতে এক কলেজছাত্রীকে ইভটিজিং করার প্রতিবাদ করায় ওই ছাত্রীর পরিবারের উপর হামলা করেছে ইভটিজারসহ বখাটেরা। এ সময় বখাটেদের ছুরি ও লাঠির আঘাতে ওই ছাত্রী ও তার বাবা-মাসহ পরিবারের ৫ সদস্য গুরুতর আহত হয়।

আহতরা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বুধবার সকালে বিষয়টি স্থানীয় সংবাদকর্মী ও পুলিশকে জানায় হামলার শিকার ভুক্তভোগী পরিবারটি। মঙ্গলবার বিকেলে জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের মনপুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো- নোয়াখালী সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া ইসলাম মুন্নি, তার বাবা মো. ইয়াছিন, মা জেসমিন আক্তার, বোন সারমিন আক্তার ও মামি ডলি আক্তার।

বুধবার দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই ছাত্রীর বাবা ইয়াছিন জানান, পার্শ্ববর্তী আলামপুর গ্রামের রফিক উল্যাহর ছেলে রাজু দীর্ঘদিন পর্যন্ত তার মেয়েকে উত্যক্ত করে আসছিল। বিষয়টি সম্প্রতি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানানো হয়।

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে তার মেয়ে কলেজ শেষ করে বাড়ি যাচ্ছিল। এসময় পিছন থেকে রাজু তাকে ডাকতে থাকে। রাজুর ডাক না শুনে মেয়েটি খুব দ্রুত হেটে বাড়ির কাছাকাছি চলে যায়। একপর্যায়ে রাজু একটি লাঠি নিয়ে দৌড়ে এসে মেয়েকে বেদম মারতে থাকে। মেয়ের চিৎকারে তিনি, তার স্ত্রী, ছোট ও শ্যালকের স্ত্রী ছুটে আসেন।

তারা আসার কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজুর ভাই সাজু, স্থানীয় বখাটে রিয়াজ, জাকের হোসেন ও বাবু সহ কয়েকজন ছুরি ও লাঠি নিয়ে ঘটনাস্থলে আসে। এসময় বখাটেরা ছুরি দিয়ে তাঁকে ও তার স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। তার দুই মেয়ে ও শ্যালকের স্ত্রীকে বেদম মারধর করে।

বর্তমানে তার স্ত্রী, তিনিসহ পাঁচজনই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

কলেজ ছাত্রীর মামা আল আমিন বলেন, তিনি তখনও বাড়িতে ছিলেন। পরে বাড়ির পাশে পরিবারের সদস্যদের চিৎকার শুনে দৌড়ে আসেন। এসময় আশপাশ থেকেও লোকজন বাহির হতে থাকলে বখাটেরা চলে যায়। একপর্যায়ে তিনি আহতদের রক্তাক্ত অবস্থায় হাসপাতালে আনতে চাইলে পথিমধ্যে বাধা দেয় বখাটেরা। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদের নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করা করানো হয়।

তিনি আরো জানান, হাসপাতালে আহতদের ভর্তি করিয়ে তার শিশুপুত্রসহ তিনি ঔষধের জন্য হাসপাতালের বাহিরের প্রধান ফটকে গেলে হামলাকারী ওই বখাটেরা আরো কয়েকজন সহ তাকে অপহরণ করার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে আশপাশের লোকজন তাকে রক্ষা করে।

বিষয়টি বেগমগঞ্জ থানায় অবহিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুব মোর্শেদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি ইভটিজিংয়ের কারণে ঘটেছে কিনা তা এখনো তারা নিশ্চিত নন। তবে বিষয়টি তদন্ত করা হবে। এ ঘটনায় আহতদের থানায় মামলা দিতে বলা হয়েছে।

আসাদুজ্জামান কাজল/এ আর

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে