আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খুলনা > মন্ত্রীর নির্দেশেও সংস্কারের ছোঁয়া পায়নি যশোরের ৫ মহাসড়ক

মন্ত্রীর নির্দেশেও সংস্কারের ছোঁয়া পায়নি যশোরের ৫ মহাসড়ক

jessore-benapole-road

প্রতিচ্ছবি যশোর প্রতিনিধি:

সেতু মন্ত্রীর নির্দেশের পরও গত আড়াই মাসে সংস্কারের ছোঁয়া লাগেনি যশোরের ৫ মহাসড়কে। ঠিক আগের মতোই সড়কের বেহাল দশা, সামান্য বৃষ্টিতেই খানাখন্দে জলাবদ্ধার মহা উৎসব। এত কিছু দেখেও সংস্কার কাছে হাত দেয়নি সড়ক বিভাগ।

তবে কবে নাগাদ সংস্কার কাজে হাত দিয়ে সড়কে যানবাহন  চলাচলের উপযোগী হবে করা হবে। তা ও বলতে পারছে না সংশ্লিষ্টরা। এদিকে সড়কগুলো অবস্থা এতটাই খারাপ যে খানাখন্দে পরে বিকল হয়ে যায় যানবাহন।

যদিও সড়ক ও জনপথ বিভাগ যশোর বলছে, এ বছর বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের কারণে যশোরের ৫টি জাতীয় সড়কসহ দু’টি গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক সড়ক ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। যে কারণে রাস্তাগুলি মেরামত করতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন।

জাতীয় সড়কগুলো হলো যশোর-খুলনা, যশোর-বেনাপোল, যশোর-ঝিনাইদহ, যশোর-মাগুরা এবং যশোর-নড়াইল। এছাড়া রাজারহাট, মনিরামপুর, কেশবপুর, চুকনগর কেশবপুর-সরষকাঠি-কলারোয়া সড়ক এবং পালবাড়ী-দড়াটানা-মনিহার হয়ে মুড়লী পর্যন্ত সড়কগুলো ভেঙ্গে একাকার হয়ে গেছে।

গত আগস্ট মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যশোর সার্কিট হাউজে এসে সড়ক বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেন। তিনি সময় দেন ১০ দিনের মধ্যে সড়কে যান চলাচলের উপযোগী করতে হবে।

রাস্তাঘাটের এই দুর্দশা লাঘবের দায়িত্বটা কার? একই কথা বলেন স্থানীয় এ্যালুমিনিয়াম ব্যবসায়ী রাজীব হাসান, তিনি বলেন দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবেই এ সড়কের বেহাল দশা। বর্ষা হলেই পানি দাঁড়িয়ে যায় এ সড়কে। তাছাড়া ইজি-বাইক মোটরসাইকেল, রিকসা, ছোট-বড় ট্রাক, বাস চলাচলের সময় নিচের অংশ বেধে যাচ্ছে। এতে ক্ষতি হচ্ছে যানবাহনগুলোর।

সওজ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ১৭ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৩ সালে যশোর শহরের দড়াটানা মোড় থেকে নাভারণ মোড় পর্যন্ত ওই মহাসড়কের ২৩ কিলোমিটারে ওভারলে (বিটুমিনের আস্তারণ) সংস্কার কাজ করা হয়। নিন্মমানের পাথরকুচি ও বিটুমিনের কারণে সংস্কারের এক বছর না যেতেই মহাসড়কের ওই অংশের কয়েকটি জায়গার বিটুমিন ওঠে বেহাল হয়ে যায়।

রইচ উদ্দিন নামে পণ্যবাহী ট্রাকের একজন চালক বলেন, রাস্তা এতোটাই খারাপ যে স্টিয়ারিং এর নিয়ন্ত্রণ ঠিক রাখা যাচ্ছে না। যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটার শঙ্কা রয়েছে। তাছাড়া ট্রাকের বিয়ারিং, টিউ, পাতিসহ ট্রাকের যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে যাচ্ছে।

সাজেদ রহমান / আর এইচ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে