আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > বিনোদন-সংস্কৃতি > সালমান-ঐশ্বরিয়ার ঘুণে খাওয়া সম্পর্ক

সালমান-ঐশ্বরিয়ার ঘুণে খাওয়া সম্পর্ক

সালমান খান ও ঐশ্বরিয়া রাই

প্রতিচ্ছবি বিনোদন ডেস্ক :

বলিপাড়ার ভাইজান খ্যাত সালমান খান ও মিস ওয়ার্ল্ড খ্যাত ঐশ্বরিয়া রাই  পুরানো লাভস্টোরি ও ট্র্যাজেডির কথা সকলেরই জানা।

বর্তমানে ঐশ্বরিয়া বচ্চন পরিবারে  বিয়ে করে স্বামী-সন্তানের সঙ্গে সুখে জীবন কাটাচ্ছেন। অন্যজন ৫০ পেরিয়েও দেশের অন্যতম এলিজিবল ব্যাচেলার। কিন্তু এই জুটির বিচ্ছেদের আসল কাহিনী এখনও অনেকেরই অজানা।

সালমান-ঐশ্বরিয়ার ব্রেক-আপের অধ্যায় বলিউডে যেন আজও রহস্য। কখনও শোনা গিয়েছিল, সালমানের আচরণ আর ব্যাবহার পছন্দ হচ্ছিল না প্রাক্তন এই বিশ্ব সুন্দরীর। প্রতিটি কাজে অ্যাশের উপর সালমানের অতিরিক্ত নিয়ন্ত্রণে নাকি অতীষ্ঠ হয়ে উঠেছিলেন নায়িকা। আবার কখনও শোনা যায়, প্রেম কাহিনিতে তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে বিবেক ওবেরয়ের প্রবেশই ভাঙনের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু কোন বিষয়ই বিস্তারিতভাবে  জানা যায়নি। তবে এবার সামনে এলো আরও কিছু  নুতন তথ্য।

জানা গেছে, এ্যাশের বাবার অমতেই সালমানের সঙ্গে সম্পর্ক অনেকখানি এগিয়ে গিয়েছিলেন।

কিন্তু শেষপর্যন্ত তা আর টেকেনি।  তাঁদের এই সম্পর্কের ভাঙনের অন্যতম কারণ ঐশ্বরিয়ার বাবাই।

এ্যাশের বাবা সালমানকে  অপছন্দ করার পিছনে যথেষ্ট যুক্তি ছিল। যদিও সালমান সে বিষয়ে কোন অভিযোগও করছেন না।

দাবাং খান একবার স্বীকারও করেছিলেন, ঐশ্বরিয়ার বাবার সঙ্গে তিনি বেশ খারাপ ব্যবহার করেছিলেন।

সালমান জানান,তিনি একাবার  ঐশ্বরিয়ার বাবার সঙ্গে যে ব্যবহার করেছিলেন তা এ্যাশের বাবার একেবারেই পছন্দ হয়নি। স্বাভাবিকভাবে আমার বাবার সঙ্গেও এমন ব্যবহার আমি মেনে নিতাম না।  আর এটাই স্বাভাবিক।

সেই বিষয়টি একেবারেই সহ্য করতে পারেননি সে সময়ের এক নম্বর নায়িকা। তিনি বলেন, শুধু বাবাকেই নয়, তার সঙ্গেও একই রকম অপমান করতে শুরু করেছিলেন সালমান। যে বিষয়টি দিনের পর দিন বেড়ে জাচ্ছিল আর মেনে নেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছিল  এই নায়িকার  পক্ষে। আর তারপরই নাকি একটু একটু করে সালমানের থেকে দূরে সরতে থাকেন তিনি।

তাদের বিচ্ছেদের ব্যাপারে ঐশ্বরিয়া জানিয়েছিলেন, সালমানের খারাপ সময়েও তিনি তার পাশে ছিলেন । কিন্তু মদ্যপ অবস্থায় ওর নিয়ন্ত্রণহীন ব্যবহার ক্রমেই বাড়তে থাকে। শারীরিক ও মানসিকভাবে ঐশ্বরিয়া অপমানিত হতে হয়েছে বারবার। নিজের সম্মান রক্ষা করতেই শেষমেশ সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। আমি নিশ্চিত আমার জায়গায় অন্য কেউ থাকলেও এমনটাই করতেন।

এ এম/এ এস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে