আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইডস আতঙ্ক, নারী-শিশুসহ আক্রান্ত ৩৩

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইডস আতঙ্ক, নারী-শিশুসহ আক্রান্ত ৩৩

Rohingya refugees

প্রতিচ্ছবি কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বাড়ছে এইচআইভি আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। বুধবার পর্যন্ত ৩৩ জন রোগী শনাক্তের খবর পাওয়া গেছে। এতে উখিয়া ও টেকনাফের মানুষের মধ্যে আতঙ্কে ভর করছে। খোদ চিকিৎসকরা বিব্রত রোহিঙ্গা এইডস রোগী বৃদ্ধির প্রবণতায়।

রোহিঙ্গাদের মরণব্যাধি এইচআইভি এইডস রোগীদের নিয়ে বিব্রত চিকিৎসকরা। অনিরাপদ শারীরিক মেলামেশাজনিত কারণে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন তারা। তবে কক্সবাজারের সিভিল সার্জন বলছেন, মাঠ পর্যায়ে স্ক্যানিং করে এইডস রোগী শনাক্ত করার কাজ চলছে।

সিভিল সার্জন ডা. আব্দুস সালাম বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইডস রোগী শনাক্ত দিন দিন বাড়ছে। এক সপ্তাহে ১৯ জন এইডস রোগী থেকে বেড়ে ৩৩ জন হয়েছে। এদের মধ্যে ১৮ জন নারী, ১০ জন পুরুষ ও ৫ জন শিশু।

যেসব রোগী পরীক্ষার জন্য চিকিৎসা ক্যাম্পে এসেছে কেবল তাদের রোগ শনাক্ত করা হয়েছে জানিয়ে সিভিল সার্জন সন্দেহ প্রকাশ করেন, এ ছাড়া বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মাঝে এই রোগ আরো থাকতে পারে। এরইমধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে একজন এইডস রোগী।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইডস আতঙ্ক, নারী-শিশুসহ আক্রান্ত ৩৩

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মিজবাহ উদ্দিন জানান, রোহিঙ্গারা প্রাণ বাঁচাতে এ দেশে পালিয়ে এসেছে ঠিকই। কিন্তু তাদের অনেকে সঙ্গে নিয়ে এসেছে মরণব্যাধি এইচআইভি এইডসসহ বিভিন্ন সংক্রামক রোগ।

মিজবাহ উদ্দিন বলেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে প্রায় সব রোগই রয়েছে। তবে আতঙ্কের বিষয় হলো এ পর্যন্ত চিহ্নিত ৩৩ জন এইডস রোগীর চিকিৎসা নিয়ে। এ রোগ দিন দিন বাড়তে থাকায় এলাকায় ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এইডস রোগ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য আক্রান্তদের নিবিড় পরিচর্যা ও তাদের চলাচল সীমিত রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

শারীরিক মেলামেশা জনিত কারণে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় উখিয়া টেকনাফের বৃহত্তর জনসাধারনের মাঝে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা। তবে সিভিল সার্জন বলছেন, মাঠ পর্যায়ে স্ক্যানিং করে এইডস রোগী সনাক্ত করণের কাজ চলছে।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ফাঁড়িতে হামলার অভিযোগ তুলে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা বাড়িঘরে হামলা চালায়। তারা নির্বিচারে রোহিঙ্গাদের হত্যা-ধর্ষণ ও তাদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে আসছে এখনো। দলে দলে বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছে রোহিঙ্গারা।

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে