আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > বাদ দেয়া হল ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলিম’ শব্দ

বাদ দেয়া হল ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলিম’ শব্দ

বাদ দেয়া হল ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলিম’ শব্দ

প্রতিচ্ছবি ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

ধর্মনিরপেক্ষ ধারণা এর সাথে সাংঘর্ষিক এই যুক্তি দিয়ে আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় (এএমইউ) থেকে ‘মুসলিম’ এবং বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় (বিএইচইউ) থেকে ‘হিন্দু’ শব্দদু’টি সরিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব নিল বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

১০টি কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে গঠিত হয় এই প্যানেল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্যানেল সদস্য জানিয়েছেন, কেন্দ্রের অর্থে চলা বিশ্ববিদ্যালয়গুলি ধর্মনিরপেক্ষ সংস্থা তাই ধর্মীয় পরিচয়বাহী শব্দ তাদের চরিত্রের সঙ্গে মানানসই নয়। তাই ওই দুটি বিশ্ববিদ্যালয়কে শুধু বেনারস বিশ্ববিদ্যালয় বা আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় বলা উচিত বা নাম দেওয়া যেতে পারে তাদের প্রতিষ্ঠাতার নামে।

এএমইউ ও বিএইচইউ ছাড়া অন্য যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলির হিসেবনিকেশ এই প্যানেল অডিট করেছে, সেগুলি হল পন্ডিচেরি বিশ্ববিদ্যালয়, এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়, উত্তরাখণ্ডের হেমবতী নন্দন বহুগুণা গাড়োয়াল বিশ্ববিদ্যালয়, জম্মু, রাজস্থান ও ঝাড়খণ্ডের তিনটি কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয়, ওয়ার্ধার মহাত্মা গাঁধী অন্তরাষ্ট্রীয় হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয় ও মধ্যপ্রদেশের হরি সিংহ গৌড় বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের প্যানেল তাদের লিখিত প্রতিবেদনে বলেছে, ধর্মনিরপেক্ষ ভারতে এ ধরনের দুটি ঐতিহ্যবাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলিম’ শব্দ দুটি বাঞ্ছনীয় নয়।

আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা স্যার সৈয়দ আহমেদ খান। আর বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মদনমোহন মালব্য।

আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ১৮৭৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৬ সালে।

এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে