আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হয়ে অনেক অপমানের জবাব দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হয়ে অনেক অপমানের জবাব দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হয়ে অনেক অপমানের জবাব দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

নিজস্ব অর্থায়নে কাজ শুরুর পর পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান বসানোর খবর শুনে আনন্দে কেঁদেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের ৭২তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে সে সময় যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছিলেন তিনি।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর পদ্মা সেতুর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলারের ওপর ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের প্রথম স্প্যানটি যখন বসানো হয়, তখন যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন তিনি। শনিবার দেশে ফেরার পর বিমানবন্দরে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নিজের ওই সময়কার অনুভূতি তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বারবার মেসেজ পাঠাচ্ছে, ফোনে কথা হচ্ছে, বলছে, ‘আপনার জন্য দেরি করব’। আমি বললাম, না । দেরি করবা না।’

40759604_303

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওখানে তখন রাত ৩টা। ওবায়দুল কাদেরও মেসেজ পাঠালো, তার সচিবও মেসেজ পাঠালো যে, সুপার স্ট্রাকচারটা বসে গেছে। আমি তো জেগেই ছিলাম। আমি বললাম, আমাকে ছবি পাঠাও। সঙ্গে সঙ্গে সমস্ত ছবি এবং ভিডিও ক্লিপ পাঠালো। ওই সময় বসে দেখে সত্যি কথা বলতে কী..আমরা দুই বোন ওখানে কেঁদেছিলাম…রেহানা, আমি.. কী যে অপমান, কত কিছু যে হয়েছে, তা বলার মতো না।’

দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছিল বিশ্বব্যাংক। এর সেই অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমাণিত হলে সংস্থাটিকে ‘না’ জানিয়ে দিয়ে ২০১৫ সালে নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকায় এই সেতু তৈরির কাজ শুরু করে সরকার।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘পদ্মা সেতু যে নিজেদের টাকায় করতে পারব; তা অনেকে বিশ্বাস করতে পারেনি, অনেক সিনিয়র কেবিনেট মেম্বাররাও বিশ্বাস করতে পারেনি। সবাই বলতেন, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ছাড়া কেউ করতে পারবে না। আমি বলতাম,যতদিন না নিজেরা করতে পারব,ততদিন করবই না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এটুকু বলতে পারি, এখন সেই সেতুর কাজ এগিয়ে নেওয়ার মাধ্যমে বিশ্ব ব্যাংককে অনেক অপমানের একটা জবাব আমরা দিতে পারলাম।’

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে