আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > জঙ্গিবাদের উস্কানি রোধে বন্ধ ফেসবুক সাইট

জঙ্গিবাদের উস্কানি রোধে বন্ধ ফেসবুক সাইট

8522d064a54a4df014790b3a19dd9d291a5af90dপ্রতিচ্ছবি ডেস্ক :

জঙ্গি ভাবাবেগে লাগাম টানতেই পাকিস্তান সরকার বন্ধ করে দিলো ইন্টানেটের ৪১ টি সাইট। তালিবান, লস্কর-ই-জাঙ্গভি-র মতো একাধিক জঙ্গি সংগঠন এর ফেসবুক থেকে প্রকাশিত উগ্রবাদী ধ্যান ধারণা সম্পৃক্ত পোস্ট এর কারনে বন্ধ করে দেয়া হল এই সাইটগুলো।

ফেসবুকের মাধ্যমে খুব সহজেই হাজার হাজার মানুষের কাছে মূহুর্তেই পৌঁছে যাচ্ছে উস্কানিমূলক সাম্প্রদায়িক ভাবনা। যা পথ ভ্রষ্ট করছে হাজার হাজার তরুণকে। বিছিন্নতাবাদী বিভিন্ন সংগঠন তাদের ফেসবুক পেজ, গ্রুপ, এবং ইউজার প্রোফাইল দিয়ে এসব ছড়াচ্ছে। এতে তাদের কাজে আমন্ত্রন জানানো হচ্ছে নানা ধরনের ছবি, ভিডিও ও লেখনী দিয়ে। পাকিস্তানে এমন সাইটের সংখ্যা প্রায় ৬৪। এর মধ্যে গত মঙ্গলবার পাক সরকারের নির্দেশে বন্ধ হয়ে গেল প্রায় ৪১টি সাইট।

একটি পাক সংবাদপত্র সূত্রে খবর, সব ক’টিই প্রকাশ্য সাইট। গ্রাহক সংখ্যাও অগণিত। প্রত্যেকটিই নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রেখে চলে। চলে গোপন তথ্য আদানপ্রদান। সাইটগুলিকে মাধ্যম করে জঙ্গি প্রশিক্ষণ ও অস্ত্রচালনা শিক্ষার মতো একাধিক রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপও চালায় সংগঠনের সদস্যেরা। এদের সাথে জড়িত আছে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী একাধিক জঙ্গি সংগঠনও।

 

ফেসবুকে রীতিমত প্রকাশ্যে জঙ্গি নাশকতার প্রচার চলে। জঙ্গি নেতাদের বক্তব্যকে ছড়িয়ে দিতে নিয়মিত আপডেট হয় নানা অডিও ও ভিডিও। বন্দি নেতাদের মুক্তির জন্য চলে ভার্চুয়াল প্রতিবাদ। সন্ত্রাসবাদী কাজে আগ্রহ তৈরীর জন্য রয়েছে মোটিভেশনাল ধর্মীয় কার্যাবলী। গ্রুপে সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর জন্য রয়েছে একাধিক প্রশিক্ষিত সদস্য। যারা সংগঠনের কাজে প্রলুব্ধ করছে তরুন প্রজন্মকে।

 

একটি পাক সংবাদপত্র সূত্রে জানানো হয়, সব ক’টিই প্রকাশ্য সাইট। গ্রাহক সংখ্যাও প্রচুর ।প্রত্যেকটি সাইটেই রয়েছে ১০০টিরও বেশি পেজ এবং গ্রুপ। রয়েছে স্বতন্ত্র ইউজার প্রোফাইলও। সবচেয়ে বেশি কার্যকরী সাইটগুলি হল— আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত। ১৬০টি পেজ রয়েছে জেই-সিন্ধ মুত্তাহিদা মাহাজ নামক সাইটটির। সিপাহ-ই-সাহাবায় রয়েছে ১৪৮টি পেজ। বালুচিস্তান স্টুডেন্ট অরগানাইজেশন আজাদের ৫৪টি এবং সিপাহ-ই-মহম্মদের ৪৫টি পেজ। বাকি সাইটগুলি ফেসবুকে তুলনায় কম। এগুলি হল-লস্কর-ই-জাঙ্গভি, তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান (টিটিপি), তেহরিক-ই-তালিবান-সোয়াট, তেহরিক-ই-নিফাজ-এ-সারিয়াত-এ-মহম্মদি, জামাত-উল-আহরার, ৩১৩ ব্রিগেড ছাড়াও সিয়ার নিজস্ব একাধিক সাইট। ইংরেজির থেকে উর্দু ও রোমান ভাষাতেই এরা বেশি স্বচ্ছন্দ। তাই এই দুই ভাষাতেই চলে তথ্য আদানপ্রদান। সে ক্ষেত্রে সিন্ধি এবং বালোচ ভাষায় প্রচার অনেক কম। সরকারি সমীক্ষা বলছে, ২০১৫-র পর থেকে ওই ফেসবুক পেজগুলিতে ভিউয়ারের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। ২০১৫-এ এই সংখ্যা ছিল শতকরা ৬৪ থেকে ৬৮ শতাংশ।

সূত্র: আনন্দবাজার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে