আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > রোহিঙ্গা ইস্যুতে কার্যকর ফলাফলের আশায় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক আজ

রোহিঙ্গা ইস্যুতে কার্যকর ফলাফলের আশায় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক আজ

রোহিঙ্গা ইস্যুতে কার্যকর ফলাফলের আশায় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক আজ

প্রতিচ্ছবি ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের সমাধান কোন পথে, তা জানতে আজ বৃহস্পতিবার সবার নজর থাকবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ওপর। এ নিয়ে এক মাসে তিন দফা বৈঠকে হচ্ছে।

এর আগেও রোহিঙ্গা ইস্যুতে দুই দফা আলোচনা হয়েছে। শান্তিকামী রাষ্ট্রগুলোর প্রত্যাশা রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় নিরাপত্তা পরিষদ ঐকমত্যের ভিত্তিতে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেবে। লাখো লাখো রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয়দানকারী রাষ্ট্র বাংলাদেশও এই ইস্যুতে তার প্রস্তাব ও অবস্থান তুলে ধরবে। জাতিসংঘের ৭২ তম অধিবেশন উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে নিউইয়র্ক রয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত এই বৈঠকে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গণহত্যা ও জাতিগত নিধন বন্ধে একটি সিদ্ধান্তে আসতে পারেন বিশ্ব নেতারা।

জানা গেছে, প্রবল আন্তর্জাতিক চাপের মুখে আজ উন্মুক্ত বিতর্কে মিলিত হচ্ছে নিরাপত্তা পরিষদ। বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হবে। সেখানে মিয়ানমার সরকার ও দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ আশা করছেন পুরো বিশ্ব। যদিও চীনসহ দুই/একটি দেশ নিজের ব্যবসায়িক স্বার্থের কারণে ভেটো প্রদানের শঙ্কা রয়েছে। সেক্ষত্রে পরিকল্পনা ভেস্তে যেতে পারে। তারপরও রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্সের মতো তিন স্থায়ী ও অন্য চারটি অস্থায়ী সদস্য রাষ্ট্রের জোরালো সমর্থন থাকার কারণে মিয়ানমারের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের সম্ভাবনা রয়েছে।

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সাত সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, সুইডেন, মিসর, কাজাখস্তান ও সেনেগাল ২৩ সেপ্টেম্বর ওই আলোচনার প্রস্তাব দেয়। এসব দেশ জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে রোহিঙ্গা পরিস্থিতির বিষয়ে পরিষদকে বিস্তারিত জানানোরও অনুরোধ জানায়। মহাসচিব গুতেরেস আজকের অধিবেশনের শুরুতে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরবেন। আর অধিবেশন শেষে একটি বিবৃতি প্রচার হতে পারে।

এদিকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে চাপ তীব্রতর করতে একযোগে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র। কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড সোমবার রাতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলেছেন। ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড বলেছেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য না হলেও আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে কানাডার রয়েছে ব্যাপক প্রভাব।

এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে